| বাংলার জন্য ক্লিক করুন

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   শেয়ার করুন
Share Button
   শিশু-কিশোর
  ৫ বছর পর দেশে ফিরেছে কিশোর ছামিরুল
  14, November, 2018, 1:35:5:PM

বছর পর দেশে ফিরেছে কিশোর ছামিরুল
দিশা বিশ্বাস , কলকাতা থেকে ঃ-
বাড়িতে বাবা-মায়ের সঙ্গে ঝগড়া করে পালিয়ে এসেছিল ১১ বছরের বাংলাদেশী কিশোর মো: ছামিরুল ; সেই ২০১৩ সালে। তারপর বেনাপোল সীমান্ত পথে অবৈধভাবে ঢুকে পড়ে পশ্চিমবঙ্গে। লোকজন ধরে চলে আসে রাজস্থানে আজমীর শরীফ দেখতে।
 আজমীর শরীফ দেখে কলকাতায় ফেরার পথে পশ্চিমবঙ্গে গ্রেপ্তার হয় সেই কিশোর মো: ছামিরুল ওরফে সমীর আহমেদ। সমীরের বাড়ি ছিল ঢাকার মীরপুর এলাকায়। বাবা শামীম আহমেদ ওখানকার একজন কাপড় ব্যবসায়ী। গ্রেপ্তারের পর সমীরকে পুলিশ ঠাঁই দেয় দক্ষিণ ২৪ পরগনার  ’হরিপুরা আমরা সবাই সমাজ উন্নয়ন সমিতি’ বা হাসুস হোমে। জেরায় সমীর বলেছে, সে প্রথমে স্কুলে পড়াশুনা করতো। তারপর মাদ্রাসায় ভর্তি হয়েছিল। সেখানে বসেই আজমীর শরীফ দেখার স্বপ্ন দেখা শুরু করে। এরপর একদিন বাবা-মায়ের সঙ্গে ঝগড়া করে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। তারপর বেনাপোল সীমান্তে এসে দালালের মাধ্যমে সীমান্ত পেরিয়ে পশ্চিমবঙ্গে ঢোকে। এরপর আজমীর শরীফ দেখার জন্য বিনা টিকিটে ট্রেনে করে চলে যায় রাজস্থানে।
সেই হাসুস হোমটি চারমাস আগে বন্ধ হয়ে যায়। তখন ওই হোমে থাকা ৮১ জন বন্দি কিশোরকে স্থানান্তর করা হয় দক্ষিণ ২৪ পরগনার কাকদ্বীপ ব্লকের ঢোলাহাটের নুর আলি মেমোরিয়াল সোসাইটি পরিচালিত ‘মাতৃতীর্থ জুভেনাইল হোমে’। ওই সময় এই হোমে ৩ জন বাংলাদেশী কিশোর ঠাঁই পায়। এরমধ্যে একজন সমীর আহমেদ। বাকি দুজন হলো আশিক (১৪) এবং আপন হৃদয় (১৪) নামের আরও দুই কিশোর। এবার এই তিন কিশোরের মধ্যে প্রথম ছাড়া পাচ্ছে সমীর আহমেদ। বাকি দুজনের ছাড়া পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় প্রশাসনিক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে মানবাধিকার খবর কর্তৃপক্ষ।
১১ নভেম্বর বিকাল ৩ টায় দক্ষিণ ২৪ পরগনার পুলিশ হরিদাসপুর-বেনাপোল সীমান্ত পথে সমীরকে তুলে দেয় বাংলাদেশের হাতে। বাংলাদেশ ভারত বর্ডারে ইমিগ্রেশন শেষে ছারিরুলকে বেনাপোল থানায় হস্তান্তর করা হয়। নিয়ম অনুযায়ী বেনাপোল থানা কর্তৃপক্ষ স্থানীয় সেচ্ছাসেবী সংগঠন রাইটস যশোর এর কাছে হস্তান্তর করে। রাইটস যশোর এর পক্ষে তথ্যানুসন্ধান কর্মকর্তা তৌফিকুজ্জামান গ্রহন করেন। এরপর গত ১১ নভেম্বর রাতে আনুষ্ঠানিক ভাবে রাইটস যশোর কর্তৃপক্ষ ঢাকা থেকে আসা ছামিরুল পিতার কাছে ছামিরুলকে তুলে দেন।  মাতৃতীর্থ হোমের সম্পাদক শেখ আসিফ ইকবাল ১০ নভেম্বর বলেছেন, এখন তাদের হোমে আরও ২ জন বাংলাদেশী কিশোর বন্দি রয়েছেন। এরআগে ১১  নভেম্বর সকালে সমীর আহমেদকে পশ্চিমবঙ্গের পুলিশের  তুলে দেওয়া হয়। তিনি আরও বলেছেন, তাদের হোমে বাংলাদেশ ছাড়া আরও দুই কিশোর রয়েছে নেপালের। তিনি বলেছেন, সমীরের সঙ্গে আলাপ করে তারা জানতে পারেন, বাবা মায়ের সঙ্গে ঝগড়া করে সমীর গোপনপথে চলে আসে বেনাপোল পশ্চিমবঙ্গের বেনাপোল-হরিদাসপুর সীমান্তে । আজমীর শরীফ দেখার সখ নিয়ে সে ট্রেনে করে রাজস্থান গিয়ে আজমীর শরীফ দেখে ফের কলকাতায় ফেরার পথে পশ্চিমবঙ্গে ট্রেনের পরীক্ষকদের হাতে ধরা পড়ে বিনা টিকিটে চলার জন্য বছর পাঁচ আগে। তারপর তাকে জেরা করে রেল পুলিশ জানতে পারে সমীরের বাড়ি বাংলাদেশে। এরপরেই পুলিশ সমীরকে তুলে দেয় হাসুস হোমে। তিনি আরও বলেছেন, আমরা চাইছি ছামিরুলের মত এই হোমে বন্দি অন্য দুই বাংলাদেশী কিশোর আশিক ও আপন হৃদয় মুক্তি পেয়ে ফিরে যাক তাঁদের বাবা মায়ের কাছে।
উল্লেখ, ছামিরুলসহ অন্য দুই কিশোরকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনতে দীর্ঘদিন ধরে একাধিকবার ভারতে গিয়ে আইনি প্রক্রিয়া ও কাগজপত্র সরবরাহ করে মানবাধিকার খবর কর্তৃপক্ষ। মানবাধিকার খবর নিরলস চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তাদের দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে। ছামিরুলের পাচার হয়ে যাওয়ার বিষয়টি নিয়ে মানবাধিকার খবরের গত মার্চ ২০১৭ সংখ্যায় বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছিল। গত ১০ নভেম্বর সকালে ছামিরুলের বাবা মার সাথে কথা হয় মানবাধিকার খবরের সাথে। ছামিরুল দেশে আসছে শুনে তারা খুবই আনন্দিত। এদিকে মানবাধিকার খবরের সহযোগিতায় ছামিরুলের পিতা দু’বার ভারতে গিয়ে ছামিরুলের সাথে সাক্ষাৎ করে  এসেছেন।
উল্লেখ্য যে, মানবাধিকার খবর এর আগে ভারতের উত্তরাখ- প্রদেশের রুদ্রপুর থেকে পাচার হয়ে যাওয়া বাংলাদেশী কলেজছাত্রী সাবানা আক্তার চায়না, হায়দ্রাবাদ থেকে গৃহবধু মুন্নি, পশ্চিমবঙ্গের লক্ষীকান্তপুর থেকে শার্শার কিশোর বিপ্লব, হুগলী থেকে গাইবান্ধায় সালমা, দিল্লীর তিহার জেল থেকে পটুয়াখালীর বিউটি আক্তার, খুলনার শিশু সুমনসহ সাফল্যের সাথে অসংখ্য নারী ও শিশুকে উদ্ধার করে দেশে ফিরিয়ে এনে মা বাবা ও আইনের হাতে তুলে দিয়ে সাফল্য দেখিয়েছে।
এছাড়া ভারতীয় কিশোরী বৈশাখী ও পাকিস্তানের নাগরিক প্রকৌশলী অনিল কুমারকে বাংলাদেশ থেকে উদ্ধারের সার্বিক সহযোগিতা করে সংশ্লিষ্ট দেশে পাঠিয়েছে। যা বাংলাদেশের জনপ্রিয় ও প্রথম শ্রেনীর দৈনিক পত্রিকা প্রথম আলোসহ দেশ-বিদেশের বিভিন্ন মিডিয়াতে গুরুত্ব সহকারে প্রচার হয়।
নারী ও শিশু উদ্ধার অভিযানে যারা মানবাধিকার খবরকে সার্বিক সহযোগিতা, পরামর্শ ও উৎসাহ দিয়েছেন তাদের মধ্য রয়েছেন, কলকাতাস্থ উপ-হাইকমিশনার তৌফিক হাসান, কাউন্সিলর ও হেড অব চ্যাঞ্চেলর মিয়া মোঃ মাইনুল কবির, ফাষ্ট সেক্রেটারী (প্রেস) মোঃ মোফাক্কারুল ইকবাল, কাউন্সিলর বি এম জামাল হোসেন সহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল কর্মকর্তা, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনে চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ও সাবেক প্রধান বিচারপতি গিরিশ চন্দ্র গুপ্ত, পশ্চিমবঙ্গ মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান নপরাজিৎ মূখার্জি, রাজ্য সভার সংসদ সদস্য ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি প্রদীপ ভট্টাচার্য, লোকসভার সংসদ সদস্য ও চাইল্ড ওয়েলফেয়ার কমিটির চেয়ারম্যান শ্রীমতি প্রতিমা ম-ল, আলিপুর ভবানী ভবনে দক্ষিন ২৪ পরগনায় জেলায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শ্রীমতি শান্তি দাস, জেলা ইন্টেলিজেন্ট ব্রাঞ্চের নিবেদিতা তালুকদার এডিশন সেক্রেটারি ফরেনার্স গভ পশ্চিমবঙ্গ হোম ডিপার্টমেন্ট গৌরাঙ্গ  সরকার।  
জেলা শিশুরক্ষা সমিতির কর্মকর্তা অনিন্দ ঘোষ, কলকাতার সল্টলেকে বিকাশ ভবনে অবস্থিত শিশু রক্ষা প্রোগ্রাম ম্যানেজার সুচরিতা সহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট দপ্তর,  প্রথম আলোর কলকাতা প্রতিনিধি অমর সাহা, মানবাধিকার খবর পত্রিকার কলকাতা প্রতিনিধি দিশা বিশ্বাস, ভারত প্রতিনিধি মনোয়ার ইমাম, বারাসাত প্রতিনিধি প্রদীপ রায় চৌধুরী, মানবাধিকার খবরের কলকাতাস্থ আইন উপদষ্টা রাজীব মুখার্জি, নিলোৎপল মৈত্র, রিয়াসহ অন্যান্য।




সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 325        
   আপনার মতামত দিন
     শিশু-কিশোর
তরুণদের শরীরে যৌনশিক্ষার অভাবে রোগব্যাধি বাসা বাঁধছে
.............................................................................................
৫ বছর পর দেশে ফিরেছে কিশোর ছামিরুল
.............................................................................................
কিশোর অপরাধ ও প্রতিকার
.............................................................................................
শিশুদের জন্য ফাউন্ডেশনের জরিপ ৩ মাসে ধর্ষিত ১৪৫ শিশু
.............................................................................................
সংস্কৃতির চর্চায় শিশুদের গড়ে তুলতে হবে -শিরীন শারমিন চৌধুরী
.............................................................................................
বাকিদের হিসেব নেই! শিশু শ্রমের আওতায় এখনো ১৭ লাখ শিশু
.............................................................................................
পাসের হার ৮৮ দশমিক ২৯ শতাংশ এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ : বেড়েছে সাফল্য
.............................................................................................
জ্ঞানই সব থেকে বড় সম্পদ - প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
অটিস্টিক শিশুরা দেশের সম্পদ -নাসিম
.............................................................................................
অটিস্টিক শিশুরা ফুলের মতো : সংস্কৃতিমন্ত্রী
.............................................................................................
শিশু শরণার্থীদের সহায়তায় এগিয়ে এলো ব্রিটেন
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

Editor & Publisher: Rtn. Md Reaz Uddin
Corporate Office
53,Modern mansion(8th floor),Motijheel C/A, Dhaka
E-mail:manabadhikarkhabar34@gmail.com,manabadhikarkhabar34@yahoo.com,
Tel:+88-02-9585139
Mobile: +8801978882223 Fax: +88-02-9585140
    2015 @ All Right Reserved By manabadhikarkhabar.com    সম্পাদকীয়    Adviser List

Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD