| বাংলার জন্য ক্লিক করুন

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   লাইফস্টাইল -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
লিটন হত্যা: জড়িত সন্দেহে ১৮ জন আটক

গাইবান্ধা প্রতিনিধি, মানাধিকার খবর::

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে এ পর্যন্ত ১৮ জনকে আটক করছে পুলিশ।

শনিবার রাত থেকে রোববার দুপুর পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিয়ার রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। এ পর্যন্ত ১৮ জনকে আটক করা হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম-পরিচয় জানানো সম্ভব হচ্ছে না।

মূলহোতাসহ হত্যাকাণ্ডে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে জড়িত সকলে গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে।

শনিবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নের শাহাবাজ গ্রামে নিজ বাড়িতে লিটনকে লক্ষ্য করে উপর্যুপরি গুলি চালিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায় মোটরসাইকেলে আসা তিন দুর্বৃত্তরা। লিটনকে উদ্ধার করে দ্রুত রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয়। এর কিছুক্ষণ পর সাড়ে ৭টার দিকে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আজ রোববার সকালে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে লাশের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। তার দেহে পাঁচটি গুলিবিদ্ধ হয়েছিল বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

হত্যার প্রতিবাদে ও ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার করে ফাঁসির দাবিতে সুন্দরগঞ্জে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালিত হচ্ছে।

লিটন হত্যা: জড়িত সন্দেহে ১৮ জন আটক
                                  

গাইবান্ধা প্রতিনিধি, মানাধিকার খবর::

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে এ পর্যন্ত ১৮ জনকে আটক করছে পুলিশ।

শনিবার রাত থেকে রোববার দুপুর পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিয়ার রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। এ পর্যন্ত ১৮ জনকে আটক করা হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম-পরিচয় জানানো সম্ভব হচ্ছে না।

মূলহোতাসহ হত্যাকাণ্ডে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে জড়িত সকলে গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে।

শনিবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নের শাহাবাজ গ্রামে নিজ বাড়িতে লিটনকে লক্ষ্য করে উপর্যুপরি গুলি চালিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায় মোটরসাইকেলে আসা তিন দুর্বৃত্তরা। লিটনকে উদ্ধার করে দ্রুত রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয়। এর কিছুক্ষণ পর সাড়ে ৭টার দিকে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আজ রোববার সকালে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে লাশের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। তার দেহে পাঁচটি গুলিবিদ্ধ হয়েছিল বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

হত্যার প্রতিবাদে ও ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার করে ফাঁসির দাবিতে সুন্দরগঞ্জে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালিত হচ্ছে।

ওরা যাচ্ছে কোথায়!
                                  



সারাদেশে  শিক্ষার  হার  বাড়লেও   বাড়েনি  নৈতিকতার হার!  তরুণরা আজ  নৈতিকতা সম্পর্কে অজ্ঞ। নৈতিকতা আগুনের ধ্বংস লিলায় পতিত হয়েছে।  নৈতিকতা যেন সমাজের বোঝা হয়ে দাড়িয়েছে। গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার অধিকাংশ  শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা আজ নৈতিকতা ভুলেগিয়ে সিগারেটের সাথে মাদক সেবন করে  জড়িয়ে পড়ছে নানা অপরাধ মূলক কাজে। তারা মাদকের ভয়াল কালো থাবার কথা জানেনা।  এর প্রতিবাদ করতে গেলে লাঞ্চিত হতে হচ্ছে  বড়দের। তাই অনেকে দেখেও না দেখার ভান করে।  মানবাধিকার খবর’র  দীর্ঘদিনের  অনুসন্ধানে বেড়িয়ে এসেছে  এমন  তথ্য। জানা গেছে, উঠতি বয়সের কিছু তরুণ  সিগারেটের সাথে মাদক সেবন করে। কাস ফাঁকি দিয়ে অনেক তরুণ শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের ভিতরে বা  বাইরে গিয়ে  সিগারেট সেবন করে পুনরায় কাসে গিয়ে কাস করছে। তবে এ বিষয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ কোনো কার্যকর ব্যব¯দা না নেওয়ায় হতাশ হয়েছে অভিভাবক মহল। তারা মনে করেন সন্তানদের উজ্বল ভবিষ্যৎ এর কথা চিন্তাকরে  লেখাপড়ার জন্য স্কুল, মাদ্রাসা , কলেজে পাঠাই! মানুষ গড়ার কারিগর শিক্ষাকরাই তাদের ছাত্রদের কঠোর হাতে দমন করতে পাড়ছে না। তবে শিক্ষাকরা বলেন, তাদের পক্ষে তেমন কিছু করার নেই। মাদক সেবন করে এমন কয়েকজন তরুণের সাথে কথা হয় আমাদের উপজেলা প্রতিবেদকের সাথে। তারা বলেন,  সিগারেটের সাথে গাঁজা, ইয়াবা টেবলেট, গাম, আঠাসহ বিভিন্ন ধরনের মাদক সেবন করেন। এক প্রশ্নের জবাবে  বলেন, এগুলো সেবন না করে কোনো  উপায় নেই। অনেকে মা-বাবার কাছ থেকে লেখাপড়ার কথা বলে টাকা এনে মাদকের বিল পরিশত করেন। মা-বাবা টাকা না দিলে সন্তানরা ঘরের আসবাবপত্র পর্যন্ত ভাঙ্গতে দ্বিধা বোধ করেন না। যে বয়সে তরুণদের লেখাপড়া নিয়ে সর্বদা ব্যস্ত থাকার কথা তারা মাদক নিয়ে সর্বদা ব্যস্ত! অনেক তরুণের পকেটে সর্বদা সিগারেটের প্যাকেট দেখা যায়। অনেকে লেখাপড়া বাদ দিয়ে অসামাজিক কাজে লিপ্ত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। স্কুল, মাদ্রাসা ও কলেজগামী তরুণদের এ ভয়াবহতা দেখে  এলাকার সচেতন মহল দোষারোপ করছে গ্রাম্য সালিশ  নিয়ন্ত্রণকারীদের। তাঁরা মনে করেন অপরাধ মূলক কাজে যখন তরুণরা জড়িয়ে পড়ে তখন গ্রাম্য সালিশে তাদের সঠিক বিচার করা হয় না। আর সঠিক বিচার না করার কারনে তারা (তরুণরা) আবার অপরাধ মূলক কাজে জড়িয়ে পড়ছে। এদিকে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ (বিপিএল) নিয়ে জমজমাট জুয়ার আসর বসেছে গোটা উপজেলায়। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার প্রত্যেকটি হাট-বাজারের চায়ের দোকান, মিষ্টির  দোকান, অলিগলি ও পাড়া মহল্লায় চলছে এসব জুয়া। তিন চার বছর ধরে  চলে আসা এই বিপিএল-এ জুয়ার বড় বড় আসরগুলোতে খেলতে এখন স্ট্যাম্পে লিখিত হচ্ছে। যোগাযোগ হচ্ছে মোবাইল ফোনে লেনদেন হচ্ছে বিকাশে। ফলে এলাকায় বসে ঢাকা বা দেশের অন্য কোনো প্রান্তের লোকের সাথে মেতে উঠেছে জুয়াড়িরা। মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজ শিক্ষক-শিক্ষার্থী, চিকিৎসক ও সমাজের কর্তা ব্যক্তিরাও বাদ পড়ছেন না জুয়া খেলা থেকে। প্রতিটি  ম্যাচের প্রত্যেকটি বলে বলে চলছে এসব জুয়া। কোন ব্যাট্স্ম্যান  কত রান করবে বা কোন বোলিং কয়টা উইকেট পাবে তা-নিয়েও চলছে জুয়া। দৈন্দদিন গড়ে প্রায় ১০ বা ১২ লক্ষ টাকার জুয়ার আসর বসে গোটা উপজেলায়। জুয়া খেলায় নিজের সর্বত্র বিক্রি করে এলাকা ছেড়েছেন অনেকে। এমনকি স্বামীর  জুয়া খেলার কারনে স্বামীকে তালাক দিয়ে চলেগেছেন স্ত্রী এমন ঘটনাও ঘটেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক জুয়ারি বলেন, আমার এখন পর্যন্ত চার লক্ষ টাকার উপরে  হার। তবে এলাকার সচেতন নাগরিক মহল মনে করে জুয়াড়িদের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসন কার্যকর ব্যব¯দা নিলে   জুয়াড়িদের নির্মুল করা সম্ভাব। তাই  এলাকার সচেতন নাগরিক মহল পত্রিকার রিপোর্ট প্রকাশের মাধ্যমে ‘উপজেলা প্রশাসনের’ কাছে এ ব্যাপারে আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

সুপেয় পানি সংকট স্যানিটেশন ব্যব¯দা নাজুক
                                  



সাতক্ষীরা তালা উপজেলায় শত ভাগ স্যানিটেশন ব্যব¯দা থাকলেও বর্তমান তা ভেঙে পড়েছে সাথে সুপেয় পানি সংকট ও অস্বা¯দ্যকর টয়লেটের ফলে পানি বাহিত রোগে সাড়ে তিন লাখ মানুষ বিভিন্ন রোগে ভুগছে। পর্যাপ্ত পরিমানে সুপেয় পানি ব্যব¯দা না থাকায় সাধারণ টিউবয়েলের পানি পান করে ৪৩৫ জন মরণব্যাধি আর্সেনিকে অক্রান্ত হয়ে বর্তমানে  সেই সংখ্যা বাড়িয়ে দিয়েছে। পানি সংকটের সত্যতা স্বীকার করেছেন  তালা উপজেলা জনস্বা¯দ্য প্রকৌশলী আমিনুল ইসলাম, গত ১যুগ ধরে তালা উপজেলায় সাধারণ মানুষ কপোতাক্ষ অববাহিকায় বন্যার সাথে যুদ্ধ করে বেঁচে আছেন, ২০০০ সালের পর থেকে ভয়ানক জলাবদ্ধতার স্বীকার  হয়ে আসছে এ এলাকার মানুষ, সরকারী বেসরকারী জরিপ অনুযায়ী ২০০১ ল্যাটিন তৈরিতে জনসচেতনতা বাস্তবায়নে ২০০৩ সালে শত ভাগ অর্জন করে, বর্তমানে ১৫ বছরের ব্যাবধানে সঠিক তদারকি, রাজনৈতিক অ¯িদরতা, প্রচার প্রচরণা ও লোকবলের অভাবে তালার স্যানিটেশন ব্যাব¯দা অতান্ত দূর্বল হয়ে পড়েছে। জানা যায় ২০১১ সালের আদমশুমারী অনুযায়ী  এ উপজেলায় ১২ ইউনিয়ানে ২২৯টি গ্রামে ২ লাখ ৯৯ হাজার ৮২০ জন জনসংখ্যা ছিল বর্তমানে বেসরকারী জরিপ অনুয়য়ী এর সংখ্যা ৩লাখ ২৯হাজার কিšদ প্রকৃতি পক্ষে আদমশুমারী হলে আরো সংখ্যা বাড়তে পারে জলাবদ্ধতার কারনে এ উপজেলার বেশির ভাগ মানুষের ঘর বাড়ি স্যাঁতস্যঁতে ও নোংড়া পরিবেশ ও অস্বা¯দ্যকর স্যানিটেশন ব্যবহার করায় বিভিন্ন ধরনের জটিল ও কঠিন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। উপজেলায় সরকারি ভাবে ৪ হাজার ৯৬২টি নলকুপ থাকলেও ২হাজার ৭৫০টি নিরাপদ ঘোষণা করা হয়েছে বর্তমানে ঐ সব নিরাপদ পানির উৎস নষ্ট হতে চলেছে, এছাড়া উপজেলার প্রতেকটি বাসাবাড়িতে নলকুপ থাকলেও ২০০৫ সালে নিরাপদ ও অনিরাপদ জরিপে লাল সবুজ রং চিহ্নিত করা হয় বর্তমানে চিহ্ন না থাকায় ৮০ভাগ মানুষ আর্সেনিক যুক্ত পানি পান করছে। এ বিষয়ে তালা উপজেলা সদর হাসপাতালের ডাক্তার প্রতাপ ক্যাশপী জানান অস্ব্যা¯দকর ল্যাটিন ও সুপেয় পানি সংকট থাকায় আর্সেনিক, ডাইরিয়া, কলেরা, টাইফয়েড এমনকি মরণব্যাধি ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে। এ ব্যাপারে তালা উপজেলা জনস্বা¯দ্য প্রকৌশলী আমিনুল ইসলাম এর সাথে কথা বললে তিনি জানান তালা, কলারোয়া, পাইকগাছা চারটি উপজেলার দায়িত্ব থাকায় সঠিক ভাবে তদারকি হয় না তবে আগামী দুই মােেস জনস্বা¯দ্য প্রকৌশলতে লোকবল নিয়োগ হলে এ সমস্য সমাধান সম্ভব। এ বিষয়ে তালা উপজেলা নির্বহী অফিসার জানান জনস্বা¯দ্য প্রকৌশলী চারটি উপজেলার দায়িত্ব রয়েছেন তা লিখিত ভাবে জানালে প্রয়জনীয় ব্যাব¯দা নেয়া হবে।



খোলা আকাশের নিচে পাঠদান
                                  

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মাইকেল মধুসুদন দত্তের প্রানের নদ কপোতাক্ষ পাড়ের কোমলমতি শিশুদের এখনও হাঁটু-কাঁদা মাড়িয়ে স্কুলে আসা-যাওয়া করতে হচ্ছে। অনেক বিদ্যালয়ের শ্রেণীকে এখনও পানি রয়েছে। তাই কাস করতে হচ্ছে অন্যের বাড়ী অথবা রাস্তার উপর। এরই মধ্যে বার্ষিক এবং সমাপনী পরীক্ষা আসন্ন। তাই ছেলে-মেয়েদের পরীক্ষার সফলতা নিয়ে চিন্তিত অভিভাবকরা।
এমনই অব¯দার মধ্য দিয়ে গত ৪ মাস ধরে চলছে জলাবদ্ধ এলাকার শিক্ষা কার্যক্রম। সারাদেশে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যব¯দা অবকাঠামগত উন্নয়ন ঘটলেও কপোতাক্ষ পাড়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা অন্যান্য ¯দানের তুলনায় ৪/৫ মাস পিছিয়ে পড়ছে। সেই সাথে পিছিয়ে পড়ছে শিশুদের আগামী দিনের স্বপ্ন।
সরেজমিন তালার গংঙ্গারামপুর, গোনালী, হরিচন্দ্রকাটি, কানাইদিয়া, খরাইল এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, বসত ভিটার পাশা-পাশি কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এখনও পর্যন্ত পানিতে তলিয়ে আছে।
গংঙ্গারামপুর সরকাকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণীকরে মধ্যে পানি, তাই পাশ্ববর্তী একটি ধানের চাতলে চলছে পাঠদান। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা প্রতিভা রানী ঘোষ জানান, স্কুল মাঠে শ্যালো মেশিন বসিয়ে পানি নিষ্কাষনের চেষ্টা চলছে। বর্তমানে ৯৫ জন ছাত্র/ছাত্রীর বিপরীতে ৩ জন শিক্ষিকা রয়েছেন, তবে বছরের পর বছর জলাবদ্ধ থাকায় শিক্ষার্থীর সংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে। এলাকার সচেতন অভিভাবকরা তাদের সন্তানের ভবিষ্যতের কথা ভেবে ছেলে-মেয়েদের অন্যত্র নিয়ে যাচ্ছে বলে জানান এক শিক্ষিকা।
১৪৮ নং গোনালী সরকারী বিদ্যালয়টি পানি বেষ্ঠিত একটি দ্বীপের মত দাড়িয়ে আছে। ৫ জন শিক্ষক বিদ্যালয়ে শিশু শ্রেনী থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত ১১৮ জন ছাত্র-ছাত্রী নিয়ে পার্শ্ববর্তী রজব আলী গাজীর বাড়িতে পাঠদান করছেন। এমন অব¯দায় প্রতি বছরের ৫/৬ মাস যাবৎ চলে পাঠদান কার্যক্রম। প্রধান শিক্ষিকা লতিফা খানম জানালেন সুপেয় পানি সহ স্যানিটেশনের ক্ষেত্রে মারাত্বক সংকট চলে আসছে এ ক’মাস। তালা টেকনিক্যাল কলেজে এখনও পানি, তালা উপজেলা সদরের একটি ভাড়া ভবনে চলছে কাস। টেকনিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ মো. হাফিজুল ইসলাম জানান, এখনও বেতন হয়নি শিক্ষকদের, তারপরেও শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া এগিয়ে নিতে অনেক টাকা ব্যায়ে ভবন ভাড়া করে কাস চালাতে বাধ্য হয়েছি। হরিচন্দ্রকাটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাস চলছে পানির মধ্যে মারাত্বক ঝুকিপূর্ণ একটি ভবনে। লাড়িপাড়া, খরাইল সহ কয়েকটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে এখনও পানি, আসা যাওয়ার পথে হাটু-কাঁদা।
তালা শহীদ কামেল মডেল হাইস্কুল সহ ভবানীপুর, কেসমতঘোনা, মাঝিয়াড়া, খানপুর, কাজীডাংগা, ইসলামকাটি এলাকার আরও কয়েকটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চারপাশ পানি বেষ্টিত থাকায় এখনও শিক্ষার সুষ্ঠ পরিবেশ ফিরে আসেনি।। ফলে জলাবদ্ধতার কবলে মারাত্বক হুমকির মুখে পড়েছে এলাকায় শিক্ষা ব্যব¯দা।
শিক্ষা অফিসের হিসাব মতে এবছর কপোতাক্ষের উপচে পড়া পানিতে তালা উপজেলার ৫০ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১১ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, এবং ৩ টি কলেজ পানিবন্দি হওয়ায় স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে।
তালা উপজেলা ভারপ্রাপ্ত প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ ওহিদুল ইসলাম জানান, উপজেলার বেশ কিছু প্রাথমিক বিদ্যালয় পানিবন্দি হওয়ায় শিশুদের লেখাপড়ায় বিঘœ ঘটেছে, তবে আমরা বিপদকালীন সময়ে অন্যত্র কাস নেওয়ার ব্যব¯দা করেছি।






কৃষিকাজের প্রতি কৃষকের অনিহা বিলীণ হচ্ছে আবাদী জমি
                                  



বাংলাদেশ কৃষি প্রধানদেশ। একসময় ৮৫% লোক কৃষিকাজের উপর নির্ভর ছিল। কিšদ কালের ব্যাবধানে কৃষি তথা কৃষিজমি বিলীন হয়ে যাচ্ছে। গাজীপুর জেলা বর্তমানে শিল্পনগরী হিসেবে আমাদের সবার নিকট সু পরিচিত। গাজীপুরের সর্বত্র শিল্প- কারখানা, ঘড়বাড়ী, আর বিভিন্ন ¯দাপনা গড়ে উঠেছে জেলার বিভিন্ন ¯দানে দ্রুতবেগে। কারণ গাজীপুর জেলা বর্তমানে বাংলাদেশের ৬৪ টি জেলার মধ্যে সবচেয়ে ঘনবসতি ও শিল্পনগরী এলাকা। কাজের অনুসন্ধানে প্রতিনিয়ত দেশের বিভিন্ন জেলার লোকজন এখানে এসে ভিড় জমাচ্ছে। আর সেই ল্েয তৈরী হচ্ছে অতিরিক্ত ঘড়বাড়ি। ঘড়বাড়ি বৃদ্ধি করা হলেও জমি বাড়ছে না, এ কারনে আবাদি জমিতে আবাদের পরির্বতে তৈরী হচ্ছে নানান ¯দাপনা ও কলকারখানা। এজন্য প্রতিনিয়ত কমে যাচ্ছে কৃষিজমি। সারাবছরে কি পরিমান জমি কমে যাচ্ছে তা জেলা কৃষি বিভাগের নিকট জানা যায়নি। গাজীপুর জেলার বিভিন্ন এলাকায় অপরিকল্পিত ভাবে গড়ে ওঠেছে শিল্প কারখানা ঘর ,বাড়ি, রাস্তাঘাট সহ বিভিন্ন রকমের ¯দাপনা। এসব কারনে প্রতিবছর কৃষিজমির পরিমান কমে যাচ্ছে, সেই সাথে কৃষক তার কৃষি কাজে অমনযোগী হয়ে পড়ছে। কৃষি জমি  হ্রাস  রোধে  সরকারের কি কোনো পদপে নেই? জেলাকৃষি বিভাগের তথ্য মতে ১৮০৬.৩৬ বর্গ কি: মি: আয়তনের গাজীপুর জেলায় আবাদী জমির পরিমান ১১২০৫৩ হেক্টর মাত্র। তবে এ হিসাব সর্বশেষ কবে করা হয়েছিল তা সাংবাদিকদের জানাতে পারেনি জেলাকৃষি বিভাগ। রাজধানী ঢাকার অদূরে গাজীপুর জেলায় সরকারী ও বেসরকারী ভাবে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন ধরনের, কলকারখানা, রা¯দা-ঘাট হাটবাজার  সহ নানা রকমের ¯দাপনা। এধরনের পরির্বতনে বাড়তি চাপ পড়ছে আবাদী জমিতে। কারণ বাড়তি লোকের থাকার জন্য বাড়তি  জায়গার প্রয়োজন। সম্প্রতি গাজীপুরের বিভিন্ন উপজেলা ঘুরে এ দৃশ্য ল করা যায়।  ঢাকার অদূরে গাজীপুর জেলাধীন শ্রীপুর উপজেলার ময়মনসিংহগামী মহাসড়কের পাশে ছয়ফর মুকুলের বহূরূপকথার বেলাভূমি  লবলঙ সাগর। এর দুপাশে অনেক লোক বাস করে। আদিকাল থেকে এ মৃত সাগরে দু পাশের প্রায় ল কৃষক কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। বর্তমানে এ সাগরে বেশকটি ফ্যাক্টরী তৈরী হয়েছে। এর মধ্য রয়েছে রং ফ্যাক্টরী। এ কারখানা থেকে রাসায়নিক ক্যামিকেল যুক্ত পানি এসব আবাদী জমিতে আসার কারনে ধান ভালো উৎপন্ন হয় না।  শ্রীপুরের একজন প্রবীণ লোকের সাথে কথা বলে জানা যায় সেটেলমেন্টের রেকর্ডের পূর্ব থেকে এ মৃত সাগরে আবাদ চলছে যা প্রায় দুইশত বছরের আগের কথা। এ সাগরটি বর্তমানে সকলের নিকট খাল নামে পরিচিত। ¯দানীয় যেসব কৃষক ছিল তাদের নিজ নামে কমপক্ষে একশত বিঘা জমি ছিল। কৃষি ছিল তাদের প্রধান কাজ, যা ছিল একমাত্র আয়ের পথ। লবলঙ সাগরটি উত্তরে ভালুকার জামিদিয়া মাস্টার বাড়ি বিলাই জুরি খাল থেকে বারচুরি পর্যন্ত। অপর দিকে দেিণ হালদা নদীর মাধ্যমে টঙ্গীর তুরাগ নদীর সাথে গিয়ে মিশেছে। কিšদ কলকারখানা  ¯দাপন ও জনসংখার বাড়তি চাপের কারনে আবাদী জমি কমে যাচ্ছে। পরিবেশ আন্দোলন কর্মীদের মতে কৃষিজমি কমে যাওয়ার অন্যতম কারন  অপরিকল্পিতভাবে আবাসিক এলাকায় শিল্পকারখানা গড়ে ওঠা। এতে করে একদিকে যেমন ফসলী জমি কমে যাচ্ছ অপরদিকে পরিবেশের বিপর্যয় ঘটছে। গাজীপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো: মাসুদ রেজা সাংবাদিকদের জানান কৃষি জমি হ্রাস রোধে তাদের কিছুই করার নেই।

বাঞ্ছারামপুরে শোকের ছায়া সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ আহত ১
                                  




ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরগামী একটি চাউলের ট্রাক খাদে পড়ে গিয়ে ঘটনা¯দলে একই গ্রামের দুইজন নিহত ও একজন আহত হয়। জানাযায়, চাল ভর্তি ঐ ট্রাকটি গত ২১নভেম্বর সন্ধ্যা ৭ টার দিকে চরছয়ানী মোড়ে ¯দানীয় একটি রোগী বহনকারী এম্বুলেন্সকে সাইড দিতে গিয়ে খাদে পড়ে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ সময় নিহত হন বাঞ্ছারামপুর গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে শাকিল মিয়া(১৮) আবুল হোসেনের ছেলে মোঃ এরশাদ মিয়া(২৮)।
নিহত শাকিল এর বড় ভাই মোঃ সগির আহত হয়। আহত সগিরকে ¯দানীয় স্বা¯দ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। পুলিশ ঘটনা¯দল পরিদর্শন করেন। এ ঘটনায় বাঞ্ছারামপুর থানার এসআই আবুল কালাম বাদী হয়ে একটি সাধারণ ডায়েরী করেণ। যার নং-৯৪৬/১৬ইং
নিহতদের নিজ গ্রামে আজ(২২ নভেম্বর) জানাজা শেষে পারিবারিক গোর¯দানে সকাল ১০ টায় দাফন করা হয়। সড়ক দুর্গটনায় নিহতের পরিবরসহ পুরো গ্রামে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

শ্রীপুরে ¯দানীয় সাংবাদিকদের সাথে ছাত্রলীগের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত
                                  



গাজীপুর প্রতিনিধি:

গাজীপুরের উপজেলা শ্রীপুরে ছাত্রলীগের নব নির্বাচিত তরুন নেতাকর্মীরা ¯দানীয় প্রিন্ট ও ইলেকট্রিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা ছাত্রলীগ কর্তৃক আয়োজিত এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ২৩ শে নভেম্বর বুধবার দুপুরে শ্রীপুর পৌর এলাকার প্রাণকেন্দ্র জেলা পরিষদ ডাকবাংলা অডিটরিয়ামে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শ্রীপুর উপজেলা ছাত্রলীগের নব নির্বাচিত সভাপতি মেধাবী ও তরুণ ছাত্রনেতা জাকিরুল হাসান জিকুর সভাপতিত্তে, সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল হাসান রাকিবের সঞ্চালনায়  ছাত্রলীগের এ মতবিনিময় সভায় শ্রীপুরের প্রায় অর্ধ শত সাংবাদিক উপ¯িদত ছিলেন। নব নির্বাচিত সভাপতি তার  বক্তিতায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, শ্রীপুর উপজেলা  ছাত্রলীগকে সু- সংঘঠিত এবং সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত সংগঠন হিসেবে গড়ার ল্েয উপ¯িদত সকল সাংবাদিক তথা সকলের সহযোগীতা ও পরামর্শ কামনা করেন।

ধর্মান্ধতা নয় বরং ধর্মহীনতাই জঙ্গীবাদের মূল কারণ
                                  


খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

‘ইসলাম জঙ্গীবাদকে বিন্দুমাত্র  সমর্থন করে না। সম্প্রতি গুলশানের হলিআর্টিজনে হামলাকারী নিহত জঙ্গীদের ব্যক্তিগত জীবন দর্শন তারই প্রমান বহন করে। ইতোপূর্বে ইসলামী জ্ঞান, সংস্কৃতি-সভ্যতার সাথে যাদের কোন সম্পর্ক ছিলো না এমন জঙ্গীদের দুষ্কর্ম স্পষ্ট করে দেয়, ধর্মান্ধতা নয় বরং ধর্মহীনতাই জঙ্গীবাদের মূল কারণ।’ গত ১৪ নভেম্বর ২০১৬ সোমবার খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা বড়বিল মুসলিম পাড়া আজিজিয়া এমদাদুল উলুম মাদরাসার ৩৯ তম বার্ষিক ওয়াজ মাহফিলে প্রধান আলোচকের বক্তৃতায় বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন, জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত আলোচক এবং মানবাধিকার খবর পত্রিকার সহকারী সম্পাদক মাওলানা মোহাম্মাদ আবুবকর সিদ্দীক আদ্দাঈ এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রামের নানুপুর ওবাইদিয়া মাদরাসার মহাপরিচালক বিশ্ব বরেণ্য আলেমে দ্বীন আল্লামা সালাহ উদ্দীন।
বিশেষ আলোচক ছিলেন তবলছড়ি ইসলামিয়া আলিম মাদরাসার অধ্য, মাওলানা সাইফুল ইসলাম নিজামী এবং মোল্লাবাজার দারুসসুন্নাহ মাদরাসার পরিচালক মাওলানা মোহাম্মাদ আব্দুল মমিন। এছাড়া ¯দানীয় উলামায়ে কেরাম বক্তব্য রাখেন।

আটোয়ারীতে আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস উদযাপন
                                  



জাহেরুল ইসলাম, পঞ্চগড় থেকে:

“টেকসই ভবিষ্যৎ গড়ি- ১৭টি লক্ষ্য অর্জন করি” প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে ২৫তম আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস উদযাপন করা হয়েছে। উপজেলার আগমনি কুষ্ঠ ও প্রতিবন্ধী সমাজ কল্যাণ সং¯দা’র অয়োজনে এবং কমিউনিটি প্রোগ্রাম দি লেপ্রসী মিশন ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ এর সহযোগিতায় ৩ ডিসেম্বর শনিবার আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস উদযাপন উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। দিবসটির শুরুতে উপজেলা স্বা¯দ্য কমপ্লেক্স চত্বর হতে ব্যানার সহ একটি বণার্ঢ্য র‌্যালী বের করে প্রধান প্রধান সড়ক পদক্ষিন করা হয়। র‌্যালীতে স্বা¯দ্য বিভাগের কর্মকর্তা- কর্মচারী, আগমনি কুষ্ঠ ও প্রতিবন্ধী সং¯দার সদস্যবৃন্দ, কমিউনিটি প্রোগ্রাম দি লেপ্রসী মিশন ইন্টার ন্যাশনাল বাংলাদেশ আটোয়ারী উপজেলা শাখার কর্মীবৃন্দ সহ গণমাধ্যমকর্মী গন উপ¯িদত ছিলেন। র‌্যালী শেষে মোঃ জাফর আলীর সভাপতিত্বে উপজেলা স্বা¯দ্য কমপ্লেক্স চত্বরে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপ¯িদত থেকে পরামর্শমুলক বক্তব্য দেন উপজেলা স্বা¯দ্য ও প: প: কর্মকর্তা ডাঃ মওলা বক্স চৌধুরী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপ¯িদত থেকে বক্তব্য দেন আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ হুমায়ুন কবির। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, উপজেলা টি.এল.সি.এ রেজাউর রহমান, সি.ডি.এফ প্রতিমা রাণী, নাজিম উদ্দীন, নূর জাহান, খলিলুর রহমান, মোছাঃ নূর নাহার প্রমুখ। পরে উপজেলা স্বা¯দ্য ও প: প: কর্মকর্তা ডাঃ মওলা বক্স চৌধুরী হুইল চেয়ারে অব¯দানরত প্রতিবন্ধীদের সাথে পৃথক পৃথকভাবে কুশলাদি বিনিময় করেন।

তারেক রহমানের ৫২ তম জন্মবার্ষিকী পালিত
                                  


আতাউর রহমান সোহেল, গাজীপুর থেকে:

গাজীপুরের শ্রীপুরে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫২ তম জন্মবার্ষিকী পালিত হয়েছে। গত ২০ নভেম্বর শ্রীপুর উপজেলা বিএনপি ও শ্রীপুর পৌর বিএনপির যৌর্থ উদ্যোগে শ্রীপুর ভাংনাহাটি মাদ্রাসা মাঠে এ আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহ্ফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত অনুষ্ঠানে শ্রীপুর উপজেলা বিএনপি সভাপতি শাহ্জাহান ফকিরের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপ¯িদত ছিলেন শ্রীপুর উপজেলা বি এন পি প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি পীরজাদা এস এম রূহুল আমীন।  উক্ত অনুষ্ঠানে আরো উপ¯িদত ছিলেন আব্দুল মোতালেব, সিরাজুল,  রাজ্জাক ও শ্রীপুর পৌর বি এন পি সাধারণ সম্পাদক শহীদুল্লাহ শহীদ সহ আরো অনেকে।

পায়ের আঙ্গুল দিয়ে পিএসসি পরীক্ষা উচ্চ শিক্ষিত হয়ে সরকারী চাকুরী করবে অদম্য প্রতিবন্ধী রাসেল
                                  


মোঃ এমরান আলী রানা, নাটোর প্রতিনিধি:

একটি পা দিয়েই চলছে রাসেল মৃধার জীবন সংগ্রাম। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা তাকে দমাতে পারেনি। এদিকে প্রতিবন্ধী হওয়া সত্ত্বেও হাল ছাড়ে রাসেলের বাবা-মা। লেখাপড়ার প্রতি প্রবল আগ্রহ আর মনের জোরে এবার বাম পায়ে কলম ধরেই ইবতেদায়ি শিা সমাপনী পরীায় অংশগ্রহণ করেছে শারীরিক প্রতিবন্ধী রাসেল মৃধা।
সিংড়া দমদমা সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে বিশেষ কৌশলে বেঞ্চের ওপর খাতা রেখে সেখানে বসেই বাম পায়ের দুই আঙুলের ফাঁকে কলম রেখে এভাবেই অন্য সবার সঙ্গে ২য় দিনের বাংলা পরীা দিচ্ছে সে। সে শোলাকুড়া ইসলামিয়া আলিম মাদরাসায় ছাত্র।
প্রতিবন্ধী শিার্থী রাসেল মৃধা (১১) বাড়ি নাটোরের সিংড়া পৌর শহরের শোলাকুড়া মহল্লায়। বাবা আবদুুর রহিম মৃধা পেশায় একজন সাধারণ কৃষক।
শোলাকুড়া ইসলামিয়া আলিম মাদরাসার অধ্য মাওলানা নাজমুল হক বলেন, রাসেল ছাত্র হিসেবে মেধাবী। ইসলামী সংগীতেও রয়েছে তার ব্যাপক প্রতিভা। তার জন্য প্রতিষ্ঠান থেকে অনেক সুবিধা দেয়া হয়। ভবিষ্যতে তার জন্য পড়াশুনার বিষয়ে যতটুকু সম্ভব সুবিধা দেয়া হবে।
অদম্য রাসেলকে জিজ্ঞাসা করা হলে সে বলে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে সে সরকারী চাকুরি করবে। বাবা মায়ের অভাব অনটন দূর করবে।
রাসেলের বাবা মা জানায়, সে পা দিয়ে লিখে এবং শুকনা খাবার খায়। সে স্বাভাবিকভাবে কথা শুনতে ও বলতে পারে। রাসেল প্রতিবন্ধী হিসেবে তিন মাস পরপর ১৫শ টাকা প্রতিবন্ধী ভাতা পায়। ¯দানীয় সাংসদ আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি মহোদয় রাসেলের চলাচলের জন্য একটি হুইল চেয়ার দিয়েছেন।

চরম ভোগান্তিতে যাত্রীরা শ্রীপুরের মাওনা রোডের বেহাল দশা
                                  


নিলয় মাহমুদ সুজন:

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মাওনা চৌরাস্তার মাওনা বাজার রোডের কিছু অংশ পানিতে টয়-টম্বুর। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় মাওনা চৌরাস্তার  হাজী মালেক মাস্টার কমপ্লেক্স সংলগ্ন মাওনা বাজার রোডের কিছু অংশ বাসা-বাড়ির বাথরুমের নোংরা পানি এবং মার্কেট পরিষ্কারের ময়লা পানি রাস্তায় এসে দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। অনেকের শরীরে ময়লা পানি ছিটে গিয়ে ব্যহত করছে যাত্রা। একটু বৃষ্টি হলেই মাওনা চৌরাস্তা থেকে প্রশিকা মোড় পর্যন্ত রাস্তাটুকু পানিতে ভরপুর। রাস্তার এক পাশে একটি ড্রেন থাকলেও সুষ্ঠ নয় পানি নিষ্কাশন ব্যব¯দা। রাস্তার পানি ড্রেনে না গিয়ে বরং ড্রেনের পানি রাস্তায় আসে। মাওনা চৌরাস্তা থেকে প্রশিকা মোড় পর্যন্ত রাস্তাটুকু বর্ষাকালে যেমন যাতায়াতের অযোগ্য  তেমনি শুকনো মৌসুমেও ছুট-বড় গর্তের কারণে যানবাহনের ঝাঁকুনিতে যাতায়াত অযোগ্য। রাস্তার দুই পাশে ফুটপাতে গড়ে উঠেছে ছোট ছোট দোকান, রাস্তা হয়ে গেছে সরু। এসকল কারণে দেখা যায় যানবাহনের লম্বা লাইন, সৃষ্টি হয় জ্যাম, নষ্ট হয় যাত্রীদের মূল্যবান সময়।  
মাওনা বাজারে অব¯িদত মাওনা ইউনিয়ন ভূমি অফিস, মাওনা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়, জি.এম. সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পিয়ার আলী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ সহ আরো অনেক প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান। প্রশিকা মোড়ে রয়েছে ডা: পলাশ মেডিকেল এন্ড ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার। তেমনি মাওনা চৌরাস্তায় রয়েছে অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম একাডেমি এন্ড কলেজ, মাওনা সিটি কলেজ, পাবলিক স্কূল এন্ড কলেজ, গাজীপুর আইডিয়াল পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট(জি. আই. পি. আই.) সহ আরো অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। রয়েছে স্বদেশ হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার, আল্হেরা হাসপাতাল, বিল্লাল মাষ্টার হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার, এ. কে. মেমোরিয়াল হাসপাতাল সহ আরো অনেক প্রাইভেট কিনিক। মাওনা চৌরাস্তার পশ্চিম পার্শে¦র ছাত্র-ছাত্রী, রোগী, জনসাধারণ মাওনা চৌরাস্তা এবং শ্রীপুর উপজেলার কাক্সিক্ষত বিভিন্ন হাসপাতাল, প্রতিষ্ঠান ও কার্যালয়ে যেতে এই রাস্তাটি ব্যবহার করে। তদ্রুপ মাওনা চৌরাস্তার পূর্ব পার্শে¦র শিক্ষার্থী, জনসাধারণ মাওনা বাজারের, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও কার্যালয়ে যেতে ব্যবহার  করতে হয় এই রাস্তাটি আর পরতে হয় চরম ভুগান্তিতে। সবমিলিয়ে মাওনা চৌরাস্তা থেকে প্রশিকা মোড় পর্যন্ত ভাল নয় যাতায়াত ব্যব¯দা। ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবক সহ যাত্রী সাধারণের প্রত্যাশা এবং দাবি রাস্তাটুকুর ¯দায়ী সমাধান। এ ব্যপারে ¯দানীয় কাউন্সিলর ইজ্জত আলী ফকির মানবাধিকার খবরকে জানান রাস্তার পাশের ড্রেনটি তিনি পরিষ্কার করার ব্যব¯দা নিবেন।

ভারতীয় নাগরিককে বাংলাদেশী সাজিয়ে জমি দখলের অপচেষ্টা
                                  


মোহাঃ হারুন-অর-রশিদ

অন্যান্য জেলার মতই  ঠাকুরগাঁও জেলাতে ও  ভূমি দখলবাজরা নতুন কৌশল অবলম্বন করে জেলার সাধারণ মানুষের জমি দখলের চেষ্টা করছে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের নাগরিকদেরকে বিভিন্ন কৌশলে একটি প্রভাবশালী মহল এদেশের নাগরিক সাজিয়ে  জেলায় বাংলাদেশী প্রকৃত নাগরিকদের জমি “জাল দলিল” তৈরীর মাধ্যমে দখলের চেষ্টা করে চলেছে। ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ঠুমনিয়া গ্রামের  রইশ উদ্দীনের ছেলে  রবিউল আলম ও খোদা বক্স এর ছেলে মোহাঃ জমিদার শেখসহ ঐ এলাকার আরো কয়েকজন মিলে  একটি প্রভাবশালী ভূমি দখলকারী সিন্ডিকেট বাহিনী গড়ে উঠেছে। তারা ভারতের লোকজনকে  বাংলাদেশে এনে বাংলাদেশী নাগরিক সাজিয়ে সাধারণ মানুষের ভুমি দখল করে চলেছে। ঠাকুরগাঁও জেলা বালিয়াডাঙ্গা উপজেলা ঠুমনিয়া, গ্রামের ¯দানীয় বাসিন্দা মোঃ ফজলু হক, যতেন্দ্রনাথ সিংহ, রিয়াজ উদ্দিন, আব্দুল বাতেনসহ ¯দানীয় সূত্রে জানা যায়, ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ঠুমনিয়া গ্রামের  মোহাঃ আব্দুর রশিদ, মোঃ আমিরুল ইসলাম, সাদেকুল ইসলাম, মিসেস সায়েমা আনজু, মাছাঃ সায়েমা খাতুন, মোছাঃ ইফতারা খাতুন  সকলের পিতা মৃত আয়ূব আলী বিশ্বাস, মোছাঃ আনোয়ারা বেওয়া স্বামী মৃত আয়ূব আলী বিশ্বাস ¯দায়ী বাসিন্দা। কিšদ বর্তমানে জীবিকা নির্বাহের কারনে তারা কেহ ঢাকায় কেহ রাজশাহীতেসহ বিভিন্ন¯দঅনে জেলার বাহিরে বসবাস  করে। এই এলাকার জমিজমা কিছু  নিজে মাঝে মধ্যে এসে আর কিছু জমি বর্গাচাষীাদের মাধ্যমে আবাদ করে। ১৯৬৫ সালের বিনিময় দলিল মূলে পৈতৃক সম্পত্তি প্রাপ্ত ১৫.২৩ একর জমি ২৬/০৪/২০১৪ইং তারিখে  সাত জনের নামে খারিজ করে নিজ নামে নাম জারি করে। প্রয়োজনে কিছুদিন  পরে সেখান থেকে কিছু জমি বিক্রি করতে গেলে ঐ এলাকার ভুমি দখলবাজ জমিদার শেখ ও রবিউল আলমসহ কয়েকজন  জমি বিক্রি করতে বাধা দেয়। পরে ভূমি দখলবাজ জমিদার শেখ ও রবিউল আলম মিলে  ভারতের পশ্চিম বঙ্গের মালদা জেলার বৈঞ্চবনগর থানার কৃঞ্চপুর গ্রামের মৃত মোশারফ হোসেনের ছেলে শফিকুল আলম কে দিয়ে  সম্পত্তি তারা জাল দলিলের মাধ্যমে বিক্রি করার চেষ্টা করছে। ভুমি দখলবাজ জমিদার শেখ ও রবিউল আলম মিলে  ভারতীয় নাগরিক শফিকুল আলম পিতা মোঃ মোশারফ আলী বিশ্বাস, মাতা মোছাঃনুর আলম ¯দানীয় বড়বাড়ী ইউপি থেকে গত ১২/০২/২০১৬ ইং তারিখে জন্ম নিবন্ধন নং ১৯৭১৯৪১০৮২১১০৫৪১ জন্ম তারিখ ০১/০১/১৯৭১ ইং, জন্ম ¯দান- গ্রাম: ঠুমনিয়া, ওর্য়াড নং -০৮, ইউপি: ০৩ নং ধনতলা, নউপজেলা: বালিয়াডাঙ্গি, জেলা: ঠাকুরগাঁও। এবং ¯দায়ী ঠিকানা: গ্রাম: গোয়ালকারী, ওর্য়াড নং ০৪, ইউনিয়ন পরিষদ: ০৮ নং বড়বাড়ি, উপজেলা: বালিয়াডাঙ্গী, জেলা: ঠাকুরগাঁও এই  ঠিকানায় একটি জন্ম সনদ বানিয়ে দেয় কিšদ আদৌ তার নিজস্ব কোন বাড়ী নেই। অজ্ঞাত কারণে সংশিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান জাল জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরী করে  বাংলাদেশের নাগরিক বানিয়ে তাকে দিয়ে ভোগ-দখলীয় ও খাজনা-খারিজকরা সম্পত্তি যাহা: ঠুমনিয়া মৌজার জেএলনং ১৪,  খতিয়ান নং-১৪০২ এবং প্রস্তাবিত আগত খতিয়ান নং ৩৯৬, ৩৯২, ৩০১, ২৮১, ২৬২, ২৬১, ২৪৬, ২৩৫, ২২৮, ২২৫, ১১৪, ৩২৭, ৫৫২, ৪২৬, দাগ নং ৭৮১৬, ৫৮৮৩, ৫৭৯৩, ৭৬৯৪, ৬৮৯৬, ৫৬০৪, ৭৭৬৬, ৭০৯২, ৬৯৬৫, ৭০৬৬, ৭০৭০, ৮৮৪৫, ৭০৬৪, ৭৯০৫, ৫৯০৫, ৭৬৩৭, ৮২৭৫, ৮২৭২, ৮৩৩০, ৮৩৬৩, ৮৩৮৯, ৮৩৬৫, ৮৩৪৯, ৮৩৩৯, ৮৩৭৪, ৮৪২৪, ৭৬২৮,  ৭৬২৫, ৭৬৩১, ৮৪০৭, ৮৯৮৫, ৯০৫৭, ৬৯২১, ৯০১৬ মোট জমি ১৫.২৩ একরের মধ্যে বেশীর ভাগ জমি অবৈধ ভাবে দখলের চেষ্টা করছে। অথচ তার বাড়ি হচ্ছে, ভারতের পশ্চিম বঙ্গের মালদা জেলার বৈঞ্চবনগর থানার কৃঞ্চপুর গ্রামে। সেখানকার সে ¯দায়ী বাসিন্দা। ২০১৬ ইং সালের ভারতের(সাধারণ) বিধানসভা নির্বাচন তালিকা অনুযায়ী, রাজ্য পশ্চিমবঙ্গ। কোড নং ঝ২৫/ডই ৫৪ বৈঞ্চবনগর। ভাগ নং ১: খুদিটোলা, মৌজা-কৃঞ্চপুর, জেএল নং-৩৯  গ্রাম+পোষ্ট-কৃঞ্চপুর, থানা- বৈঞ্চবনগর -৭৩২২১০ ভোটার নং ৪৮৮, ডই/০৭/০৪৯/৩১৮৮৩৯, বাড়ির নং- হ০০৩১ বয়স: ৪৫। সে বাংলাদেশে অবৈধভাবে এসে ভুমিদস্যুদের বাড়িতে থেকে  সাধারণ মানুষের জমি দখল করে বিক্রির চেষ্টা করছে। এই বিষয়ে সংশিষ্ট বিভিন্ন অফিসসমূহে যেমন  জেলা রেজিষ্টার, ঠাকুরগাঁও অফিসে জাল দলিল রেজিষ্ট্রি বন্ধ করা জন্য গত ২২/০৩/২০১৬ইং তারিখে, সহকারী কমিশনার(ভূমি) লাহিড়ী,  উপজেলা-বালিয়াডাঙ্গী, জেলা-ঠাকুরগাও অফিসে ভারতীয় নাগরিক কর্তৃক অবৈধভাবে মূল মালিকের জমির খারিজ বাতিল ও জাল দলিলের মাধ্যমে নিজ নামে খারিজ করে নাম জারি  বন্ধ করা প্রসঙ্গে গত ২২/০৩/২০১৬ইং তারিখে  অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক), ঠাকুরগাঁও, ১৪/০৩/২০১৬ইং তারিখে উপজেলা নিবার্হী অফিসার-বালিয়াডাঙ্গী জেলা-ঠাকুরগাঁও, ১৫/০৩/২০১৬ইং তারিখে পুলিশ সুপার ঠাকুরগাঁও, ২২/০৩/২০১৬ইং, এবং সচিব, নির্বাচন কমিশন সচিবালয়, আগারগাঁও, ঢাকা  বরাবর আবেদন করা হয়। গত  ০৬/০৪/২০১৬ইং তারিখে  ভারতীয় নাগরিক কর্তৃক অবৈধভাবে জাতীয় পরিচয় পত্র তৈরী বন্ধ করে আইনানুগ ব্যব¯দা গ্রহনের জন্য আবেদন করেন ¯দানীয় ভুক্তভুগীরা। এলাকাবাসীগন জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যব¯দা গ্রহনের জন্য জোর দাবী জানান।




বাগেরহাটে দুলাভাইকে হত্যার অভিযোগে শ্যালক আটক
                                  



ফরিদুর রহমান শামীম, বাগেরহাট প্রতিনিধি.

বাগেরহাটে তপন শীল (৫২) নামে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে ও মুখে বিষ ঢেলে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ২৫ নভেম্বর রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে তিনি মারা যান। তপন শীল উপজেলার বাসাবাটি এলাকায় বসবাস করতেন। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে তপন শীলের শ্যালক বাসুদেব সরকারকে (৫৫) আটক করেছে পুলিশ। পরদিন সকালে উপজেলার বাসাবাটি এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। তপন শীলের স্ত্রী আখি শীল বলেন, বাগেরহাট কেন্দ্রীয় বাসস্ট্যান্ডে আমার স্বামীর সেলুন রয়েছে। ২৫ নভেম্বর সন্ধ্যায় সেলুন থেকে কয়েকজন যুবক আমার স্বামীকে ডেকে বাসস্ট্যান্ডের পাশের পরিত্যক্ত একটি ঘরে নিয়ে মারধর করে ও মুখে বিষ ঢেলে দেয়। পরে মোবাইল ফোনে আমাকে ঘটনাটি জানালে আমরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করি। তিনি আরো বলেন, আমার বিয়ের পর বাসাবাটি এলাকায় বাবার লিখে দেয়া জমিতে বসবাস করে আসছি। আমার সৎ ভাই বাসুদেব সরকারের অংশ বাদে অন্য অংশ বোনদের নামে লিখে দেন বাবা। এই স¤পত্তির ভাগভাগি নিয়ে  ২-৩ বছর ধরে বোনদের সঙ্গে আমাদের বিরোধ চলে আসছে। বাবার
স¤পত্তি থেকে বঞ্চিত করতে আমার স্বামীকে হত্যা করেছে। বাগেরহাট সদর হাসপাতালের চিকিৎসক মুসফিকার শামস মেনন বলেন, রাত ৮টার দিকে তপন শীল নামে এক ব্যক্তিকে বিষপান করা অব¯দায় তার স্বজনেরা হাসপাতালে নিয়ে আসেন। চিকিৎসা দেওয়ার কিছু সময় পর তিনি মারা যান। তার মাথা ও হাতে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। বাগেরহাট মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান খান বলেন, তপন শীলের সঙ্গে তার শ্যালকদের স¤পত্তি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। এ নিয়ে মামলাও চলছে। সেই বিরোধের জেরে প্রতিপরা তাকে মারধর করে মুখে বিষ দিয়েছে কিনা তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তার শরীরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

কচুয়ায় ২টি দোকান পুড়ে ছাই ২ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি

কচুয়া (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

কচুয়ায় ২টি দোকান পুড়ে ছাই,২ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি। জানা যায়, কচুয়া উপজেলার মঘিয়া ইউনিয়নের সম্মানকাঠি গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মার্কেটের পাশে জেসমিন বেগম(৩০)নামের এক দু¯দ্য মহিলার ১টি চায়ের দোকান ও জয়দেব শীল (৩২)নামের এক অসহায় লোকের ১টিসেলুন গতকাল গভীর রাতে কে বা কারা আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়।দোকানের মালিক জেসমিন বেগম প্রতিদিনের ন্যায় গতকাল রাত সাড়ে ৯টায় দোকন বন্ধ করে বাড়ি গিয়ে রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ে।  রাত  আনুমানিক ২টা ৩০ মিনিটের সময় পার্শবর্তী এক গাছের চারা বিক্রেতা দোকানে আগুন দেখতে পেয়ে ডাক চিৎকার দিলে জেসমিন বেগম ও জয়দেব শীল দ্রুত আসতে আসতে দোকান দুটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়।জেসমিন বেগমের ১টি মেয়ে ৯ম শ্রেনীতে পড়ে, অন্য মেয়েটি ৫ম শ্রেনীতে এবং ছোট ৪বছরের ১টিছেলে সন্তান রয়েছে।স্বামী অসু¯দ্য থাকায় অসহায় জেসমিন বেগম এই চায়ের দোকানের  আয়ের টাকা দিয়েই মেয়েদের পড়াশুনা ও সংসার চালাতেন। একমাত্র আয়ের উৎস চায়ের দোকানটি পুড়ে যাওয়ায় জেসমিন বেগম এখন স্বামী সন্তান নিয়ে খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করছে।এব্যাপারে জেসমিন বেগমের স্বামী মোঃ জাকির হোসেন কচুয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দয়ের করেছে।

খেলায় জয়লাভ
উল্লাসে সমর্থকের মৃত্যু
জাকারিয়া শেখ, কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) থেকে ঃ

গোপালগঞ্জের  কোটালীপাড়া  উপজেলায়  ফুটবল খেলায় নিজ ইউনিয়ন জয়লাভ করায় উল্লাসে ইউনুচ সিকদার (৪০) নামে এক ফুটবল সমর্থকের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার বিকালে  কোটালীপাড়া শেখ লুৎফর  রহমান আদর্শ সরকারি কলেজ মাঠে  এঘটনা ঘটে। জানা গেছে,  “কোটালীপাড়া উপজেলা পরিষদ টুর্নামেন্টে’র” সেমিফাইনাল খেলায় পিঞ্জুরী ইউনিয়ন পরিষদ একাদশ  কোটালীপাড়া পৌরসভা একাদশকে ১-০ গোলে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে। এতে উল্লাসে ফেঁটে পরে পিঞ্জুরী ইউনিয়ন পরিষদের খেলোয়াড় ও সমর্থকরা। উল্লাসের এক পর্যায়ে ইউনুচ সিকাদার হঠাৎ অসু¯দ হয়ে পড়েন। পরে তাকে উপজেলা স্বা¯দ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক  মৃত্যু ঘোষনা করেন। উপজেলা স্বা¯দ্য কমপ্লেক্স ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের ডা. প্রেমানন্দ মন্ডল জানান, হাসপাতালে নিয়ে আসার আগে তার মৃত্যু হয়েছে। ইউনুচ সিকদার ওই  ইউনিয়নের কাকডাঙ্গা গ্রামের মৃত  মোন্তাজ সিকদারের ছেলে। মৃত্যুর খবর মূহুর্তের মধ্যে পিঞ্জুরী ইউনিয়ন পরিষদ একাদশ খেলোয়াড়দের   মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে  তাদের  মধ্যে শোকের ছাঁয়া  নেমে এসেছে।

বানিয়ারী প্রাথমিক বিদ্যালয় নানা সমস্যায় জর্জরিত
                                  

 

জাকারিয়া শেখ, কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) থেকে:

 

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে ১৭৫ নং উত্তর বানিয়ারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক, শ্রেণীকক্ষ সংকট ও দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার কাজ না হওয়ায় জরাজীর্ণ হয়ে পরেছে  বিদ্যালয় ভবনটি। জরাজীর্ণ ভবনে দীর্ঘদিন ধরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা ক্লাস করছে। এব্যাপারে    সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ  কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায়   ছাত্রছাত্রী,  শিক্ষকমন্ডলী, স্কুল পরিচালনা কমিটি ও অভিভাবকদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। সরেজমিন  গিয়ে দেখা যায়, কোমলমতি শিক্ষার্থীরা জীবনের ঝুঁকি  নিয়ে জরাজীর্ণ ভবনে ক্লাস করছে। জানা গেছে, ১৯৯৭ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি ৩৩ শতাংশ জমির ওপর বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয়। “বিদ্যালয়ে জমিদাতা পারুল রানী রায় জানান, বিদ্যালয়ের নামে জমি দিলাম কিন্তু কী লাভহল? এখন বিদ্যালয় ভাঙা-চুড়া অবস্থা। এর মধ্যে কী  ছাত্রছাত্রীরা ক্লাস করতে পারে”। প্রধান শিক্ষিকা মৌসুমী দাস বলেন, ২০১৩ সালে বিদ্যালটি সরকারি করা হয়। বর্তমানে বিদ্যালটিতে ২০৬ জন ছাত্র-ছাত্রী  ও চারজন শিক্ষক রয়েছেন। বার্ষিক পরীক্ষাসহ সমাপনী পরীক্ষায়ও এ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ভালো ফল করে আসছে। নৈশপ্রহরি, দপ্তরি-তো দূরের কথা আসবাবপত্র সংকট ও বিদ্যালয়ে প্রসস্ত খেলার মাঠ না থাকায় কোমলমতি শিক্ষার্থীরা  খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ছাত্র অনুপাতে  বিদ্যালয়টি শিক্ষক স্বল্পতাসহ বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত । একটি  টিনশেড দোচালা ঘর ও দুই কক্ষের একটি আধাপাকা ভবন থাকলেও তা ব্যবহারের অনুপযোগী। দুই কক্ষের আধাপাকা ভবনটি ফাটলে জর্জরিত। তারপরও  বাধ্য হয়ে ক্লাস করছে শিক্ষার্থীরা। ‘‘তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী মরিয়াম বলেন, সব স্কুলে খেলার মাঠ আছে। আমাদের স্কুলে কোনো খেলার মাঠ  নাই। আমাদের একটি খেলার মাঠ প্রয়োজন।” এক অভিভাবক বলেন, বিদ্যালয়ের আধাপাকা ভবন ভেঙে গিয়ে কোনো শিক্ষার্থী আহত হলে তার দায়ভার  কে    নিবে?   বিদ্যালয়  ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুল খালেক হাওলাদার ও প্রধান শিক্ষিকাসহ সহকারী শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা সব সমস্যার সমাধান ও অতিদ্রুত  একটি পাঁকা ভবন নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে  জোর দাবি জানিয়েছেন। এব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ শহিদুল ইসলাম বিদ্যালয়টির সব সমস্যার কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরকে ভবন নির্মাণসহ বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের জন্য লিখিত জানানো হয়েছে।

 

 

 

তাজমহলের অজানা তথ্য

একঘেয়ে  জীবন  যাত্রায় মানুষ  যখন হাঁপিয়ে ওঠেন, তখন তার অন্তত কিছু সময়ের জন্য একটু আরাম,একটু বিরাম,একটু শান্তির খোঁজে বেরিয়ে পড়েন সৃষ্টিকর্তার অপরময় সৃষ্টির প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখার জন্য কাছে বা দূরে কোথাও। ভ্রমণ করে না অথবা করতে চায় না এমন মানুষ এই দুনিয়ায় পাওয়া বড় দুষ্কর। একজন পর্যটক হিসেবে আপনি ঘুরে আসতে পারেন সারা বিশ্ব। দেশের বাইরে ঘুরে আসতে চান? তবে স্বদেশ মূল্যে ঘুরে আসতে পারেন বিদেশ। আর এই বিদেশ অন্য কোন দেশ নয়। আমাদেরই পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত। যে দেশের মধ্যে রয়েছে একদিকে মরুভূমি, অন্যদিকে বরফ আচ্ছাদিত পাহাড়, পর্বত, সমুদ্র, জঙ্গল, স্থাপত্য, পুরাকৃর্তি ইত্যাদি। পর্যটকদের আকর্ষণের জন্য রয়েছে সব ধরনের বিনোদনের ব্যবস্থা, প্রাকৃতিক সম্পদের অফুরন্ত সম্ভার। প্রবাদ আছে, ‘সমগ্র ভারত ভ্রমণ করলে পৃথিবীর অর্ধেক দেখা হয়ে যায়’। আর আপনি যদি একজন পর্যটক হিসেবে ভারতে ভ্রমণ করতে চান, তবে তার আদি গোড়াপত্তন ও ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্পর্কে জানা দরকার। ভারত ঘুরে এসে ভ্রমণ পিপাসু পাঠকদের উদ্দেশ্যে পর্যটন বোর্ড ও ভারতীয় ভ্রমণ সঙ্গী গাইডের অবলম্বনে লিখেছেন : মমতাজ আক্তার

 

তাজমহল। ভালোবাসার অনন্য প্রতীক। মধ্যযুগীয় সপ্তাশ্চর্যের মাঝে একটি। বিশ্ববাসী তাজমহলকে এক পলক দেখার জন্য ব্যাকুল হয়ে থাকে। তাজমহল যেমন সবাইকে এর শৈল্পিকতায় বিমুগ্ধ করে তেমনি এটি তৈরির ইতিহাস পৃথিবী বিখ্যাত। মূলত প্রচলিত ইতিহাস মতে তাজমহল ‘বেগম মমতাজের সম্মানে বাদশা শাহজাহান কর্তৃক নির্মিত প্রেমের সমাধিস্থল। মুঘল স¤্রাট শাহজাহান তার স্ত্রী মমতাজকে এতই ভালোবাসতেন, সে ভালোবাসার অমোঘ নিদর্শনস্বরূপ মৃত স্ত্রীর সমাধিস্থলে অদ্বিতীয় শৈল্পিক কারুকাজের এ তাজমহল তৈরি করে দেন। তাই তাজমহলকে নিয়ে পৃথিবীজুড়ে লিখিত হয়েছে হাজারো প্রেমের গদ্য, পদ্য ও কাব্য।

সংক্ষেপে তাজমহলের সর্বজন স্বীকৃত ইতিহাস হল মুঘল বাদশা জাহাঙ্গীর পুত্র স¤্রাট শাহজাহানের ৩য় প্রিয়তমা স্ত্রী মমতাজ মহল ১৬৬১ সালে ১৪তম সন্তান গওহারা বেগমকে জন্মদানকালে মৃত্যুবরণ করেন। শাহজাহান স্ত্রী বিয়োগে শোকাতুর হয়ে পড়েন এবং মমতাজের প্রতি তার ভালোবাসার নিদর্শন পৃথিবীবাসীর কাছে অমর করে রাখতে তিনি প্রিয় বেগম মমতাজের সমাধিস্থলে তাজমহল তৈরি করেন। ১৬৩২ সালেই যমুনা নদীর তীরে শুরু হয় তাজমহল তৈরি। তাজমহলের নির্মাণশৈলী ও এর উপকরণ থেকে বোঝা যায় তৎকালে পৃথিবীর সর্বাধিক ব্যয়বহুল প্রাসাদ এটি। এতে ব্যবহার করা হয়েছে সাদা মার্বেল পাথর ও অত্যন্ত মূল্যবান কিছু দুর্লভ পাথর। তাজমহলের বিভিন্ন দেয়াল ও গম্বুজের নকশায় এবং কারুকাজে ফুটে ওঠে মুসলিম মুঘল, পারস্য ও তুর্কি স্থাপত্যের চিহ্ন। এর প্রধান নকশাকার ছিলেন ওস্তাদ আহমেদ লাহুরি আরও ছিলেন আবদুল করিম মামুর খান এবং মাকরামাত খান যারা সে সময়ের সবচেয়ে নিখুঁত, পারদর্শী ও উচ্চ পর্যায়ের প্রকৌশলী এবং নকশাকার ছিলেন। এছাড়া তাজমহলের বিখ্যাত ক্যালিওগ্রাফিগুলো করেছিলেন তৎকালের ক্যালিওগ্রাফার আবদুল হক, যার প্রশংসনীয় ক্যলিওগ্রাফি দেখে মুগ্ধ হয়ে স¤্রাট নিজেই তাকে ‘আমানত খান’ উপাধিতে ভূষিত করেন।

তাজমহলে পবিত্র আল-কোরআনের ১৫টি সূরা লিপিবদ্ধ হয়েছে। কয়েক হাজার শিল্পী দিয়ে পুরো তাজমহল তৈরিতে সময় লেগেছে প্রায় ২২ বছর। অর্থাৎ ১৬৩২ থেকে ১৬৫৩ সাল পর্যন্ত। যদিও ১৬৪৮ সালেই এর কাজ শেষ হয়ে যায়, তবে বাইরের বাগান, গেট এবং এর চারপাশের অন্যান্য স্থাপনা তৈরি শেষ করতে আর ৫ বছর সময় অতিবাহিত হয়েছিল। মোটকথা তাজমহলের ইতিহাস ও এর গঠন, নির্মাণশৈলী থেকে বিশ্ববাসী মমতাজের প্রতি স¤্রাট শাহজাহানের অদ্বিতীয় অমর প্রেমের বহিঃপ্রকাশ হিসেবেই জেনে আসছে। কিন্তু ভালোবাসার এ বিমূর্ত শিল্পকলা তাজমহলের ইতিহাসকে চ্যালেঞ্জ করে বসেছেন প্রফেসর পিএন অক (চৎড়ভবংংড়ৎ চ.ঘ. ঙধশ) তার তাজমহল : দ্য ট্রু স্টরিতে (ঞধল গধযধষ : ঞযব ঞৎঁব ঝঃড়ৎু)। তিনি দাবি করেন, তাজমহল বেগম মমতাজের সম্মানে নির্মিত কোন প্রেমের সমাধিস্থল নয়, বরং এটি প্রাচীন হিন্দু দেবতা শিবের মন্দির। এ মন্দিরের নাম ছিল ‘তেজ মহালয়’। এই মন্দিরে আগ্রার রাজপুতরা পূজা-অর্চনা করত, তাই সাধারণের কাছে এ মন্দির অতটা পরিচিত ছিল না। আর ‘তেজ মহালয়’ থেকেই তাজমহলের নামকরণ। এটি পরে স¤্রাট শাহজাহান তার মৃত স্ত্রীর স্মরণে স্মৃতিশালা হিসেবে গড়ে তোলেন। ইতিহাস অনুসন্ধান করে প্রফেসর অক যে পিলে চমকানো কথাগুলো ব্যক্ত করেন তা হল, স¤্রাট শাহজাহান অন্যায়ভাবে জয়পুরের মহারাজা জয় সিংয়ের কাছ থেকে শিব মন্দিরটি অর্থাৎ তাজমহলটি দখল করে নেন। অক যে দলিল উপস্থাপন করেনথ স¤্রাট শাহজাহান নিজেই তার দিনপঞ্জি ‘বাদশাহনামা’তে উল্লেখ করে গেছেন, রাজা জয় সিংয়ের কাছ থেকে আগ্রার এক চমৎকার প্রাসাদোপম ভবন মমতাজ মহলের সমাধিস্থলের জন্য বেছে নেয়া হয়েছে এবং এর জন্য স¤্রাটের পক্ষ থেকে রাজা জয় সিংকে অন্যত্র জমিও কিনে দেয়া হয়েছে। ‘তাজমহলের’ নাম নিয়েও প্রফেসর অক সংশয় প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, মুঘলামলে এমনকি খোদ শাহজাহানের আমলেও কোন দলিলাদি ও কোর্টের নথিপত্রে কোথাও ‘তাজমহলের’ নাম উল্লেখ নেই। আর সে সময়ে মুসলিম শাসনামলে কোন ভবন বা প্রাসাদের নাম ‘মহল’ রাখার প্রচলন ছিল না। এছাড়া ‘তাজমহল’ নামটি এসেছে মমতাজ মহল থেকে এ বিষয়টিও প্রফেসর অক মেনে নেননি। তিনি এর পেছনে দুটি কারণ উল্লেখ করেন। প্রথম কারণ, স¤্রাট শাহজাহানের স্ত্রীর প্রকৃত নাম কখনোই মমতাজ ছিল না। দ্বিতীয় কারণ, সাইকোলজিক্যাললি কেউ কারও নামে প্রাসাদ নির্মাণ করলে নামের প্রথম দুই অক্ষর বাদ দিয়ে অর্থাৎ মমতাজের মম বাদ দিয়ে তাজ নাম রাখাটা মানব স্বভাবের মধ্যে পড়ে না।

নামকরণের ইতিহাসকে ভুল প্রমাণিত করেই প্রফেসর থেমে থাকেননি, তিনি শাহজাহান ও মমতাজের প্রেমকাহিনীর সত্যতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। তার লেখায় তিনি উল্লেখ করেন, মমতাজ ও শাহজাহনের ভালোবাসার গল্প মূলত রূপকথা যা লোকমুখে সৃষ্ট। কারণ এত গভীর ও চমৎকার প্রেমের কথা ভারতের ওই সময়কার কোন সরকারি নথিপত্রে বা গ্রন্থে উল্লেখ নেই। তিনি আরও কিছু ডকুমেন্টরি উপস্থাপন করেন যা প্রমাণ করে তাজমহল কখনোই স¤্রাট শাহজাহানের আমলের নয়। সেগুলো হল, নিউইয়র্কের আর্কিওলজিস্ট মারভিন মিলার (গধৎারহ গরষষবৎ) যমুনা নদীর তীর সংলগ্ন তাজমহলের দেয়ালের নমুনা পরীক্ষা করেন। তিনি এর কার্বন টেস্ট করে যে তথ্য পান, এই কার্বন স¤্রাট শাহজাহানের শাসনামলেরও চেয়ে ৩০০ বছর বেশি পুরনো! এছাড়া আরেকটি ব্যাপার হল কোন এক ইউরোপীয়ান পর্যটক ১৬৩৮ সালে আগ্রা ভ্রমণ করেন। সময়টি শাহজাহান স্ত্রী মমতাজের মারা যাওয়ার মাত্র ৭ বছর পর। কিন্তু তিনি তার লিখিত ভারতবর্ষ ভ্রমণ গ্রন্থে তাজমহল নামক প্রাসাদের কথাই উল্লেখ করেননি।

প্রফেসর অক তাজমহলের স্থাপত্য শৈলীর কিছু অসামঞ্জস্যতার কথা উল্লেখ করে বলেন, তাজমহল মূলত হিন্দু শিব মন্দির ছাড়া আর কিছুই নয়। তিনি আরও যুক্তি দেখান, তাজমহলের কিছু কামরা শাহজাহানের আমল হতেই তালাবন্দি যা এখনও জনসাধারণের অজানা রয়ে আছে। তিনি দৃঢ়তার সঙ্গে দাবি করেন ওই সব কামরার একটাতে রয়েছে দেবতা শিবের মস্তকবিহীন মূর্তি অর্থাৎ শিব লিঙ্গ যা হিন্দুদের শিব মন্দিরে সচরাচর দেখতে পাওয়া যায়। বিখ্যাত তাজমহল নিয়ে প্রফেসর অকের এ উল্টো বক্তব্য ও ইতিহাস তিনি তার যে বইতে লিখেছিলেন তৎকালীন ভারতের ইন্দিরা গান্ধী সরকার বইটি ব্যান্ড করে দেয় ও সবগুলো কপি বাজার হতে উঠিয়ে নেয় এবং ভারতে এর দ্বিতীয় কোন কপি প্রকাশ করাও বন্ধ করে দেয়। সেখানে কারণ দেখানো হয়, যদি এ বই প্রকাশ করা হয় তাহলে ভারতে হিন্দু ও মুসলিমদের মাঝে ধর্মীয় এবং রাজনৈতিক সংঘাত বা রায়োট বেঁধে যাওয়ার শংকা রয়েছে। পরে প্রফেসর অকের প্রচলিত ইতিহাস বিরোধী বক্তব্য এবং তার বই বিশ্লেষণে গবেষকরা এতটুকু মত দিতে পেরেছেন, তাজমহলের মার্বেল পাথর, ইসলামিক সংস্কৃতি, আলকোরআনের আয়াত ক্যালিওগ্রাফি এবং সৌন্দর্যম-িত গম্বুজের কারুকাজ এসব কিছুই স¤্রাট শাহজাহানের সময়ে হয়ে থাকলেও তাজমহলের প্রাথমিক স্থাপনা শাহজাহান কর্তৃক না হয়েও থাকতে পারে। তবে তাজমহল তৈরির আসল ইতিহাস যতই বির্তকিত হয়ে থাকুক, তবু তাজমহল মুঘল মুসলিম স্থাপত্য কীর্তিগুলোর মধ্যে গৌরবান্বিত অলঙ্কার, একটি অনন্য কীর্তি। সপ্তাশ্চর্যের এক আশ্চর্য।

 

 

লালমনিরহাটে সন্ত্রাস ও জঙ্গী প্রতিরোধ শীর্ষক সভা ও সংবর্ধনা
                                  

 

 

লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

 

লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার গোড়ল ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে গত ২৪ অক্টোবর লোহাকুচি স্কুল এন্ড কলেজ অডিটরিয়ামে জনপ্রশাসনে সচ্ছতা, জবাবদিহিতা এবং সন্ত্রাস ও জঙ্গী প্রতিরোধে করনীয় শীর্ষক সভা এবংএক  সংবর্ধনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক আবুল ফয়েজ মোঃ আলাউদ্দিন খান। বিশেষ অতিতি ছিলেন কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহীনুর আলম, উত্তর বাংলা কলেজের ইংলিশ এন্ড আইটি প্রজেক্ট ডাইরেক্টর আইরিন গ্রাহাম (গং ওৎবহব এৎধযধস) । বক্তব্য রাখেন লালমনিরহাট বার্তার সম্পাদক গেরিলা লিডার এস. এম. শফিকুল ইসলাম কানু, উত্তর বাংলা কলেজের অধ্যক্ষ এ.এস.এম মনওয়ারুল ইসলাম। সভাপতিত্ব করেন গোড়ল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও লোহাকুচি স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মাহমুদুল ইসলাম। ওই সভায় শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ লোহাকুচি স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি ও উত্তর বাংলা কলেজের অধ্যক্ষ বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর এ এস.এম মনওয়ারুল ইসলামকে চ্যারিটি এডুকেশন ইন্টারন্যাশনাল গ্লাসগো, ইউ কে কর্তৃক স্বর্ণপদক প্রাপ্ত হওয়ায় সংবর্ধনা জানানো হয়।

সভায় কালীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মামুন ভূইয়া, ইউকে থেকে আগত ভিজিটিং টিচার ডেভিড কেনভিন (উধারফ কবহাুহ), ইসরাত গাজালা (ওংযৎধঃ এধুধষধ), প্রভাষক বদরুল ইসলাম, কালীগঞ্জ প্রেসক্লাবের যুগ্ন-সম্পাদক সবুজ আলী আপন, গোড়ল ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য-সদস্যা, শিক্ষক-শিক্ষকা ও আমন্ত্রিত সুধীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন কুমড়ির হাট স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ কামরুল


   Page 1 of 5
     লাইফস্টাইল
লিটন হত্যা: জড়িত সন্দেহে ১৮ জন আটক
.............................................................................................
ওরা যাচ্ছে কোথায়!
.............................................................................................
সুপেয় পানি সংকট স্যানিটেশন ব্যব¯দা নাজুক
.............................................................................................
খোলা আকাশের নিচে পাঠদান
.............................................................................................
কৃষিকাজের প্রতি কৃষকের অনিহা বিলীণ হচ্ছে আবাদী জমি
.............................................................................................
বাঞ্ছারামপুরে শোকের ছায়া সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ আহত ১
.............................................................................................
শ্রীপুরে ¯দানীয় সাংবাদিকদের সাথে ছাত্রলীগের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
ধর্মান্ধতা নয় বরং ধর্মহীনতাই জঙ্গীবাদের মূল কারণ
.............................................................................................
আটোয়ারীতে আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস উদযাপন
.............................................................................................
তারেক রহমানের ৫২ তম জন্মবার্ষিকী পালিত
.............................................................................................
পায়ের আঙ্গুল দিয়ে পিএসসি পরীক্ষা উচ্চ শিক্ষিত হয়ে সরকারী চাকুরী করবে অদম্য প্রতিবন্ধী রাসেল
.............................................................................................
চরম ভোগান্তিতে যাত্রীরা শ্রীপুরের মাওনা রোডের বেহাল দশা
.............................................................................................
ভারতীয় নাগরিককে বাংলাদেশী সাজিয়ে জমি দখলের অপচেষ্টা
.............................................................................................
বাগেরহাটে দুলাভাইকে হত্যার অভিযোগে শ্যালক আটক
.............................................................................................
বানিয়ারী প্রাথমিক বিদ্যালয় নানা সমস্যায় জর্জরিত
.............................................................................................
লালমনিরহাটে সন্ত্রাস ও জঙ্গী প্রতিরোধ শীর্ষক সভা ও সংবর্ধনা
.............................................................................................
গাজীপুরের সন্ত্রাসী আজাদ অস্ত্র ও গুলিসহ গ্রেপ্তার
.............................................................................................
নাটোরে বড়াইগ্রাম ট্রাজেডির দুই বছর
.............................................................................................
স্ত্রীকে হত্য করে মাটি চাপা ১২ ঘন্টা পর লাশ উদ্ধার
.............................................................................................
ঘাটাইলে গারট্ট সরকারবাড়ী সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
বাগেরহাটে ৪ ‘জেএমবি’ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার
.............................................................................................
কপিলমুনিতে সাদা মাছে মড়ক বিপাকে চাষী
.............................................................................................
শ্যামনগরে চিকিৎসকের দায়িত্বহীনতা সাড়ে ৩ মাস পর রোগীর পেট থেকে গজ উদ্ধার
.............................................................................................
কচুয়ায় চেয়ারম্যানসহ ৫ ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা
.............................................................................................
নীলফামারী চেম্বারের দায়িত্ব পেল নতুন কমিটি
.............................................................................................
বাগেরহাটে ৪ ‘জেএমবি’ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার
.............................................................................................
মাদ্রাসায় পড়–য়া শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে চুরির অভিযোগ প্রহারের প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন
.............................................................................................
বখাটেপনার বলি স্কুলছাত্রী
.............................................................................................
৭০টি বিদ্যালয় কম্পিউটারাইজডের দায়িত্ব নিলেন আনোয়ার হোসেন খাঁন বাবুল
.............................................................................................
শালিসে প্রতিপক্ষের হামলায় বৃদ্ধ নিহত
.............................................................................................
কোটালীপাড়ার নামকরণ ও দর্শনীয় স্থান!
.............................................................................................
আ’লীগ-৬ বিএনপি-১ স্বতন্ত্র-১
.............................................................................................
রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় হেমায়েত উদ্দিন বীরবিক্রমের দাফন
.............................................................................................
সাহায্যের আবেদন কনুই ঘেষে বললেন ভাল আছি!
.............................................................................................
নাসিরনগরে হিন্দু যুবক কর্তৃক কাবাশরিফ অবমাননা হিন্দুদের বাড়িঘরে ও মন্দিরে হামলা-ভাঙচুর
.............................................................................................
নাটোরে ছেলের বউয়ের হাতে শ্বশুর খুন
.............................................................................................
সুন্দরবনে ৫ বাহিনীর অত্যাচারে জেলে ও বাওয়ালিরা দিশেহারা
.............................................................................................
শ্রীপুরে ১৭ বছরের কিশোরীকে ধর্ষণ:২ যুবক আটক
.............................................................................................
তালায় বালিয়া বিল থেকে অর্ধ গলিত লাশ উদ্ধার
.............................................................................................
আটোয়ারীতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে অভিযোগ
.............................................................................................
শ্যামনগর ডাক্তারের অবহেলায় এক নবজাতকের মৃত্যু
.............................................................................................
নাটোরে শিশু মুক্তি হত্যা মামলার ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেফতার
.............................................................................................
ঘাটাইল পৌরসভা নির্বাচন’১৬ : পর্যবেক্ষণ রিপোর্ট
.............................................................................................
কচুয়ায় ২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারী সহায়তা বঞ্চিতৎ
.............................................................................................
রডের সঙ্গে বেঁধে শিশুকে নির্যাতন
.............................................................................................
বাংলাদেশ ফিরে পেয়েছে ইলিশের গৌরব
.............................................................................................
দীর্ঘদিন উপেক্ষিত ও বঞ্চনার স্বীকার উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
.............................................................................................
৮০ টাকার জন্য স্কুল ছাত্রীর আত্যহত্যা!
.............................................................................................
বড়াইগ্রামে দুই প্রতিবন্ধী মেয়েকে নিয়ে বিপাকে নরসুন্দরের পরিবার
.............................................................................................
ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় দিনমজুর জাহাঙ্গীরের মানবেতর জীবনযাপন
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

Editor & Publisher: Rtn. Md Reaz Uddin
Mobile:+88-01711391530, Email: md.reaz09@yahoo.com Corporate Office
53,Modern mansion(8th floor),Motijheel C/A, Dhaka
E-mail:manabadhikarkhabar@gmail.com,manabadhikarkhabar34@yahoo.com,
Tel:+88-02-9585139
Mobile: +8801978882223 Fax: +88-02-9585140
    2015 @ All Right Reserved By manabadhikarkhabar.com    সম্পাদকীয়    Adviser List

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]