| বাংলার জন্য ক্লিক করুন

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   মানব র্দুভোগ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
যুবককে উল্টো করে নির্যাতন, দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তলব

হেড অব নিউজ। মোশতাক রাইহান |
ঘুষ না দেয়ায় আবু সাঈদকে উল্টো করে বেঁধে নির্যাতন করার ঘটনায় যশোর সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক নাজমুল হাসান ও উপপরিদর্শক হাবিবুর রহমান তলব করেছেন হাইকোর্ট।

আগামী ২৫ জানুয়ারি তাদেরকে আদালতে সশরীরে হাজির হয়ে এবিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।
 
রবিবার বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি মোহম্মদ উল্লাহর ডিভিশন বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এই আদেশ দেন।
 
এছাড়া নির্যাতনের ঘটনায় ঐ দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না এই মর্মে রুল জারি ও নির্যাতনের ঘটনা তদন্ত করে এক মাসের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে যশোরের পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

যুবককে উল্টো করে নির্যাতন, দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তলব
                                  

হেড অব নিউজ। মোশতাক রাইহান |
ঘুষ না দেয়ায় আবু সাঈদকে উল্টো করে বেঁধে নির্যাতন করার ঘটনায় যশোর সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক নাজমুল হাসান ও উপপরিদর্শক হাবিবুর রহমান তলব করেছেন হাইকোর্ট।

আগামী ২৫ জানুয়ারি তাদেরকে আদালতে সশরীরে হাজির হয়ে এবিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।
 
রবিবার বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি মোহম্মদ উল্লাহর ডিভিশন বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এই আদেশ দেন।
 
এছাড়া নির্যাতনের ঘটনায় ঐ দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না এই মর্মে রুল জারি ও নির্যাতনের ঘটনা তদন্ত করে এক মাসের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে যশোরের পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

নিয়মনীতির তোয়াক্কা নেই বাড়িভাড়া বাড়ে মালিকের ইচ্ছায়
                                  

 

দেড় কোটি মানুষের বাস রাজধানী ঢাকায়। তবুও জীবিকার তাগিদে এই নগরীকেই বেছে নিচ্ছেন সবাই। তাই প্রতিদিনই এ সংখ্যা বাড়ছে। ফলে বাইরে থেকে আসা মানুষের একমাত্র আশ্রয়স্থল ভাড়াবাসা। আর এ সুযোগে কোনো প্রকার নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে বাড়ির মালিকরা ভাড়ার বাড়তি বোঝা চাপিয়ে দেন ভাড়াটিয়াদের কাঁধে। সরকারের নিয়ম ও নির্দেশ অমান্য করে ইচ্ছা মতো ভাড়া আদায়ের চাপে দিশেহারা ভাড়াটিয়ারা।

এছাড়া বাড়ির ভাড়া কেমন হবে, কখন ভাড়া বাড়বে, ভাড়াটিয়াকে কখন উচ্ছেদ করা যাবে, অগ্রিম জামানত গ্রহণ, ভাড়া আদায়ের রশিদ প্রদান, লিখিত চুক্তি, বাড়ি মেরামত ও বসবাস যোগ্য কিনা- বিষয়গুলো নিয়ে কোনো ধরণের আইনে তোয়াক্কা করেন না বাড়ির মালিকরা।

অন্যদিকে, বেশির ভাগ ভাড়াটিয়া বিষয়গুলো না জানায় সব অনিয়ম মুখ বুজে সহ্য করেন।

কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) এর তথ্য মতে, ঢাকায় গত ২৪ বছরে (১৯৯০-২০১৩) বাসাভাড়া বেড়েছে প্রায় ৩৭২ শতাংশ। সর্বশেষ ২০১২ সালে ৯ দশমিক ৭৩ শতাংশ ও ২০১৩ সালে ১০ দশমিক ৯১ শতাংশ ভাড়া বেড়েছে।

সূত্রে জানা যায়, সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক গুলশান এলাকার প্রতি বর্গফুট বাড়িভাড়া ১৫ থেকে ১৮ টাকা, বনানীতে ১৪ থেকে ১৬, মহাখালীতে ১১ থেকে ১২, নাখালপাড়াতে ৬ থেকে ৭, কল্যাণপুর-পল্লবীতে ৬ টাকা, উত্তরায় ৫ থেকে ৯ টাকা, শান্তিবাগে ৫ থেকে ৬ টাকা, নয়াপল্টনে ৯ টাকা, শান্তিনগরে ৮ থেকে ৯ টাকা, জিগাতলায় ৮ টাকা ও ধানমন্ডিতে ১১ দশমিক ২৫ টাকা নির্ধারিত রয়েছে। কিন্তু বাড়ির মালিকরা ভাড়া আদায় করছেন এর দ্বিগুণ থেকে তিনগুণেরও বেশি।

হাইকোর্টের নির্দেশ উপেক্ষিত :

২০১৫ সালের ১ জুলাই এক নির্দেশে বাড়িভাড়া নির্ধারণ এবং বাড়িভাড়া সংক্রান্ত বিরোধ নিষ্পত্তির একটি ‘উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন’ কমিশন গঠনের জন্য সরকারকে নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। আদালতের এই নির্দেশে জিম্মিদশায় থাকা ভাড়াটিয়াদের মনে আশার সঞ্চার করেছিল। কিন্তু হাইকোর্টের ওই আদেশের পর ৬ মাসের বেশি সময় পার হলেও নির্দেশ বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট দফতরের কোনো পদক্ষেপ দৃশ্যমান হয়নি।

বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ আইন হালনাগাদ ও কার্যকরের দাবি নিয়ে উচ্চ আদালতের শরণাপন্ন হয়েছিল একটি বেসরকারি মানবাধিকার সংগঠন। হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ’ নামে সংগঠনের ২০১০ সালে করা রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে ১৭ মে বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ-সংক্রান্ত আইন ও বিধিবিধান কার্যকর করতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট।

মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি করে ২০১৫ সালের ১ জুলাই রায় ঘোষণা করা হয়। রায়ে বাড়ির মালিক ও ভাড়াটিয়াদের সঙ্গে কথা বলে তাদের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করার পাশাপাশি এলাকাভেদে সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ ভাড়া নির্ধারণের জন্য সরকারকে ৬ মাসের মধ্যে একটি ‘উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন’ কমিশন গঠনের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

হাইকোর্টের রায়ের বিষয়ে অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ জাগো নিউজকে বলেন, সাত সদস্যের এ কমিশনের প্রধান হবেন আইন মন্ত্রণালয়ের মনোনীত একজন আইনজীবী। কমিশনে অন্তর্ভুক্ত থাকবেন গৃহায়ণ ও নগর বিশেষজ্ঞ, অর্থনীতিবিদ, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি, ভোক্তা অধিকার ও নাগরিক স্বার্থ সম্পর্কে বিশেষজ্ঞ এবং সরকার মনোনীত সিটি কর্পোরেশন কর্মকর্তা। ওই কমিশন ভাড়াটিয়া এবং বাড়ির মালিকদের মতামত শুনে, প্রয়োজনে গণশুনানির মাধ্যমে এলাকাভিত্তিক সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন ভাড়া নির্ধারণ করবেন।

পাশাপাশি ভাড়াটিয়া-মালিকদের বিভিন্ন সমস্যা চিহ্নিত করে প্রতিকারের সুপারিশ করার এবং ভাড়াটিয়াদের জিম্মিদশার অবসান ও বাড়িভাড়া সংক্রান্ত বিরোধ নিষ্পত্তির একটি প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থা তৈরির পথ নির্দেশ করছে এই রায়।

 

রায়ে কমিশনের সুপারিশ আইনি কাঠামোর রুপ না পাওয়া পর্যন্ত ১৯৯১ সালের বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ আইনের ৩ ধারা অনুযায়ী প্রতিটি ওয়ার্ডে বাড়িভাড়া সংক্রান্ত বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য একজন করে নিয়ন্ত্রক, অতিরিক্ত নিয়ন্ত্রক ও উপনিয়ন্ত্রক নিয়োগের উদ্যোগ নিতেও বলা হয়েছে।

 

মনজিল মোরসেদ আরো বলেন, কমিশনের সুপারিশ আইনি কাঠামোতে আসার আগ পর্যন্ত কোনো ভাড়াটিয়াকে যাতে উচ্ছেদ বা ভয়ভীতি দেখানো না হয়, কারও কোনো অভিযোগ থাকলে তা যাতে দ্রুত মেটানো হয় এবং প্রয়োজনে তাদের সুরক্ষার ব্যবস্থা যাতে নেয়া হয়, তা নিশ্চিত করতে সব থানার ওসিদের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। কিন্তু এ বিষয়ে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ চোখে পড়েনি।

৮০ ভাগ ভাড়াটিয়া ১৫ ভাগ বাড়ির মালিকের কাছে জিম্মি :

বিভিন্ন জরিপ সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীতে বসবাসকারীদের মধ্যে ৮০ ভাগেরও বেশি মানুষ ভাড়া বাসায় থাকেন। বাড়িভাড়ার হিসেব মিলিয়েই তাদের জীবন সংগ্রামে লিপ্ত হতে হয়। অর্থাৎ ১৫ ভাগ বাড়িওয়ালাদের কাছে নগরীর কোটি মানুষ অসহায়। বছরের পর বছর ধরে বাড়িভাড়া বাড়ার ফলে ভাড়াটিয়াদের দুর্গতির যেন শেষ নেই।

সম্প্রতি এক জরিপে জানা যায়, রাজধানী ঢাকায় বসবাসকারীদের উপার্জনের ৬০ ভাগ ব্যয় হয় বাড়িভাড়ায়। বাকি ৪০ ভাগ দিয়ে কোনো রকমে জীবিকা নির্বাহ করতে হয় তাদের।

 

তবে অন্য এক জরিপে জানা যায়, রাজধানীতে বসবাসরত ভাড়াটিয়াদের ৫৫ ভাগ বাসার ভাড়া ও আয়তন সম্পর্কে জানেন না। ফলে বাড়িভাড়ার ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকে আরো সক্রিয় হওয়া উচিত বলে মনে করছেন ভাড়াটিয়ারা।

বিশেষ প্রতিবেদক

 

 

কাজে আসছে না কোনো পরিকল্পনা সড়কে মৃত্যুর মিছিল! থামবে কবে?
                                  

 

প্রতিদিনই সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর মিছিল বেড়েই চলেছে। সড়ক-মহাসড়কগুলো যেন পরিণত হয়েছে মৃত্যুফাঁদে। এতে অসংখ্য জীবন যাচ্ছে। অনেকে পঙ্গুত্ব বরণ করছে চিরতরে। এইসব পরিবারের ওপর নেমে আসছে অনিশ্চিত ভবিষ্যতের কালোছায়া। অথচ প্রতিকারহীনভাবেই চলছে এই ‘দুর্ঘটনা’ নামক ‘হত্যাযজ্ঞ’। এ নিয়ে অনেক কথা হলেও কাজের কাজ তেমন কিছুই হচ্ছে না। এর প্রমাণ গতকাল রংপুরে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৩ জন মানুষের জীবন প্রদীপ নিভে যাওয়া। প্রশ্ন উঠেছে এভাবে আর কতোদিন?

দেশের কোনো না কোনো স্থানে প্রতিদিনই কারো না কারো জীবন প্রদীপ নিভে যাচ্ছে ‘দুর্ঘটনা’ নামক দানবের হাতে। সর্বশেষ ২০ এপ্রিল রংপুরের তারাগঞ্জে দুই যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৩ জন নিহত হওয়ার ঘটনাটি এর সর্বশেষ সংযোজন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত অর্ধশতাধিক।

২০ এপ্রিল বেলা ১১টার দিকে উপজেলার রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কের ইকরচালী বরাতির ব্রিজ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।  ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া সায়মুন পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস ওই এলাকায় পৌঁছালে সামনের ডানদিকের চাকা পাংচার হয়। এ সময় চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলায় বিপরীত দিক থেকে আসা দিনাজপুর থেকে রংপুরগামী তৃপ্তি পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই ৮ জন নিহত হন। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো ৪ জনের মৃত্যু হয়।  এ ধরনের মর্মান্তিক মৃত্যু কিছুতেই মেনে নেয়া যায় না। কিন্তু দুঃখজনক হচ্ছে এ ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটেই চলেছে।

এক হিসেবে দেখা যায়, গত ১৫ বছরে দেশে প্রায় দেড় লাখেরও বেশি সড়ক দুর্ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। এতে ৫০ হাজারের বেশি লোক প্রাণ হারায়। আহতের সংখ্যা এর চেয়েও কয়েকগুণ বেশি। সড়ক দুর্ঘটনাজনিত কারণে প্রতিবছর দেশের ক্ষতি হচ্ছে প্রায় পাঁচ হাজার কোটি টাকা, যা জিডিপির ২ শতাংশ। নাজুক ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা, অবকাঠামোগত সমস্যা, পরিকল্পনা ও নীতির দুর্বলতা, অসচেতনতা ইত্যাদি বিষয় সড়ক দুর্ঘটনা ত্বরান্বিত করছে। তাই সড়ক দুর্ঘটনা রোধে কর্তৃপক্ষকে সেসব সমস্যা দূরীকরণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের সড়ক দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউটের এক পরিসংখ্যানে জানা যায়, এক বছরে প্রায় ২০ হাজার ছোট-বড় সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ হাজার মানুষ নিহত হয়। আহত হয় এক লাখ। এদের বেশিরভাগই পঙ্গুত্ববরণ করে।

 

কারণগুলো জানা থাকলেও প্রতিরোধ করা যাচ্ছে না দুর্ঘটনা। যানবাহনের অধিক এবং বেপরোয়া গতিই কেড়ে নিচ্ছে অনেকের প্রাণ। রংপুরের দুর্ঘটনার ক্ষেত্রেও চালকের বেপরোয়া গতিই অন্যতম কারণ। সংঘর্ষে দু’টি বাসের দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া থেকেই বিষয়টি আঁচ করা যায়। কিন্তু দোষী চালককে এজন্য তেমন কোনো শাস্তি পেতে হয় না। কারো শাস্তি হলে হরতাল ধর্মঘট ডেকে পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা জিম্মিদশা সৃষ্টি করে। সত্যি বলতে কি নানাভাবেই পরিবহন সেক্টরের কাছে মানুষজন জিম্মি। এই দশা যে কবে কাটবে সেটাই এখন দেখার বিষয়।

সুষ্ঠু ও নির্বিঘœ যাতায়াত ব্যবস্থা নিশ্চিতের জন্য সমন্বিত ও আধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থা জরুরি। দুর্ঘটনা রোধে চালক ও পথচারীদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। যানবাহনের উচ্চগতি দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে হবে। দোষী ব্যক্তির শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। জেব্রা ক্রসিং ও ফুটওভার ব্রিজ ছাড়া রাস্তা পারাপার বন্ধ করতে হবে। যথাযথ পরীক্ষা ছাড়া ড্রাইভিং লাইসেন্স দেয়া যাবে না। ফুটপাথগুলো দখলমুক্ত করে পথচারী চলার উপযোগী করতে হবে। তুলে দিতে হবে মেয়াদোত্তীর্ণ যানবাহন। রাস্তা চলাচলে আইন অমান্যের জন্য আরও কঠিন শাস্তি ও জরিমানা আদায় করতে হবে। তাছাড়া রাস্তায় যেখানে সেখানে গাড়ি পার্কিং, ফুটপাথ দখল করে ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা, একই রাস্তায় নছিমন-করিমনসহ বিভিন্ন গতির যানবাহন চলাচল, অদক্ষ ও লাইসেন্সবিহীন চালক, মেয়াদোত্তীর্ণ গাড়ি, চালকের মাদকাসক্তি ইত্যাদি কারণে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে। কর্তৃপক্ষের সুষ্ঠু ও সমন্বিত পদক্ষেপে দেশ দুর্ঘটনামুক্ত হবে এ প্রত্যাশা সকলের। দেশের মানুষ সড়কে নিরাপত্তা চায়। তারা এ ধরনের করুণ মৃত্যু ও কান্না আর দেখতে চায় না।

 

কাজে আসছে না কোনো পরিকল্পনা

 

সড়ক দুর্ঘটনা অপ্রত্যাশিত হলেও আমাদের দেশে তা নিত্যদিনের সঙ্গী হয়ে দাঁড়িয়েছে। দিন যতই যাচ্ছে ততই বৃদ্ধি পাচ্ছে দুর্ঘটনা। দীর্ঘ হচ্ছে সড়কে লাশের মিছিল। চলতি বছরের শুধু দুই মাসেই প্রায় ৩শ’ মানুষ দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে। সড়ক দুর্ঘটনায় দেশে প্রতিবছর প্রায় ৭ হাজার ৫শ’ কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়।

 

মৃত্যু মানুষের স্বাভাবিক নিয়তি। তাই বলে যদি এমন হয়, কোনো দুর্ঘটনার ফলে নিমিষেই ঝরে যাচ্ছে একেকটি প্রাণ, তবে তা সত্যিই বেদনাদায়ক এবং একই সঙ্গে উদ্বেগের। কেননা সাম্প্রতিককালে লক্ষ্য করা যাচ্ছে, একের পর এক দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বাড়ছেই। অথচ যা সতর্কতা অবলম্বন ও যথাযথ আইন মান্য করলে অনেকটাই এড়ানো সম্ভব। আমরা তারেক মাসুদ, মিশুক মুনীর, বিভিন্ন পেশার কৃতী সন্তানসহ অনেক মানুষকে হারিয়েছি শুধু দুর্ঘটনার কারণে, এটা আমাদের জাতি হিসেবেও দুর্ভাগ্যের। যে ক্ষতি একবার হয়ে গেছে তা আর শুধরানোর কোনো সুযোগ নেই, সে ক্ষেত্রে প্রয়োজনে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন অপরিহার্য। ফলে দুর্ঘটনায় মানুষের মৃত্যরোধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার কোনো বিকল্প থাকতে পারে না।

সম্প্রতি জাতীয় দৈনিক পত্রিকার একটি প্রতিবেদনে দুর্ঘটনায় মৃত্যুসংক্রান্ত যে চিত্র উঠে এসেছে, তা রীতিমতো উৎকণ্ঠাজনক। দেশে প্রতিদিন সড়ক দুর্ঘটনায়ই শুধু গড়ে ৫৫ জন মানুষের মৃত্যু হচ্ছে বলে গেল বছর জানিয়েছে পরিবেশবাদী সংস্থা পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা) ও বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসোসিয়েশন (বিএইচএ)।

 

সার্বিক অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে এটা সত্য, বাংলাদেশের যোগাযোগব্যবস্থা অনেকাংশেই উন্নত হয়েছে। একটি দেশে যখন প্রতিদিন সড়ক দুর্ঘটনায় গড়ে ৫৫ জন মানুষ মারা যাচ্ছে তখন তাকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা বা স্বাভাবিক ঘটনা বলারও কোনো সুযোগ নেই। গত ১০ বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় সরকারি হিসাবে দেশে ৩৪ হাজার ৯১৮ জন লোক মারা গেছে যার বেশিরভাগ দুর্ঘটনাই চালকদের ভুলের কারণে ঘটছে। একই সঙ্গে অবৈধ লাইসেন্স বাণিজ্যরও যে খবর জানা যায় তা অত্যন্ত দুঃখজনক। আরো পরিতাপের যে যখন একের পর এক দুর্ঘটনার কবলে মানুষ মারা যাচ্ছে তখনো অদক্ষ চালকরা লাইসেন্স পাচ্ছে যেসব দুর্ঘটনা ঘটছে এবং আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা তার দায় সরকার কোনোভাবেই এড়াতে পারে না।

সম্প্রতি সরকারের পক্ষ থেকে সড়ক দুর্ঘটনা রোধে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় থেকে ১শ’ ৪৪টি ব্লাকস্পট নির্ধারণ করে তা সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কয়েকটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানও সড়ক দুর্ঘটনা কমানোর জন্য কাজ করে যাচ্ছে। কিন্তু কোনো ঔষধেই দুর্ঘটনার নিরাময়ক হচ্ছে না। অদক্ষ ড্রাইভার, সড়কের ত্রুটি, দুর্ঘটনায় দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তি না হওয়া, ওভারটেকিং আর লাইসেন্সবিহীন পরিবহনই সড়ক দুর্ঘটনার জন্য দায়ী বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

১৯৯৩ সালে চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চন সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাবার পর থেকে তিনিই প্রথম দেশে ব্যাপকভাবে সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে কাজ করছেন। সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ (নিসচা)।

 

নিসচা এর তথ্য মতে, প্রতি বছর দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয় প্রায় ৭ হাজার মানুষ। এ হিসেবে গত ১৯৯৩ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত মোট ১৭ বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে লক্ষাধিক মানুষ। সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ বাংলাদেশ (সিআইপিআরবি)-এর জরিপ অনুযায়ী, বছরে কমপক্ষে ১২ হাজার ৮শ’ মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাচ্ছে। আর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ২০০৯ সালের প্রতিবেদনে অনুযায়ী সড়ক দুর্ঘটনায় বছরে মারা যায় ২০ হাজার ২৩ জন। তবে পুলিশের হিসাবে ২০১১ সালের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত সারা দেশে ২ হাজার ২শ’ ৪১টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে। মারা যায় ২ হাজার ১৪০ জন। পুলিশ হেডকোয়ার্টারের তথ্যানুযায়ী, ২০১০ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ হাজার ৩শ’ জন নিহত ও ৩০ হাজার মানুষ আহত হয়। ২০০১ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত ১০ বছরে দেশে মোট ৪০ হাজার ৯শ’ ২৭টি দুর্ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় নিহত হয় ৩২ হাজার ২শ’ ৬১ জন। আর আহত হয় ২৯ হাজার ৬শ’ ৭৯ জন।

 

বিশ্বে প্রতিবছর ১ দশমিক ২ মিলিয়ন মানুষ দুর্ঘটনায় মারা যায়। উন্নয়নশীল দেশগুলোতে এ সংখ্যা আরো বেশি। বাংলাদেশে এর পরিমাণ ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ বেশি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য মতে, বিভিন্ন দুর্ঘটনার মাঝে ১৯৯০ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর দিক দিয়ে বাংলাদেশ ৯ম স্থানে ছিল তা ২০২০ সালে ৩য় স্থানে এসে দাঁড়াতে পারে।

ঢাকা সিটি করপোরেশন যানবাহন সমন্বয় বোর্ড (ডিটিসিবি)’র হিসাবে, ১৯৯১ সালে রাজধানীতে পথচারীরা দুর্ঘটনায় আক্রান্ত হয়েছিল ৬৭ শতাংশ তা ২০০৮ সালে দাঁড়ায় ৮৬ শতাংশে। তার মধ্যে শহরে ৯০ শতাংশ দুর্ঘটনা হয়ে থাকে বাস, ট্রাক ও মিনিবাসের কারণে।

 

নিসচা-এর তথ্য মতে, ২০১৪ সালে দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে ৬ হাজার ৫৮২ জন। জানুয়ারিতে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ২৬৪টি। এতে নিহত ৪২৫, আহত ৬৪৬ জন। ফেব্রুয়ারিতে ১৯১টি দুর্ঘটনায় নিহত ৪৪৭, আহত ৯১৫ জন। মার্চে ২১৪টি দুর্ঘটনায় ৪৯৭ জন নিহতসহ ৯৮৪ জন আহত হন। এপ্রিলে ২৬টি দুর্ঘটনায় ৩৬৫ জন নিহতসহ আহত হয়েছে ৭৯৩ জন। মে মাসে ২৬১টি দুর্ঘটনায় ৪৫৭ জন নিহত ও ১ হাজার ৬২ জন আহত হয়। জুন মাসে ২৪৭টি দুর্ঘটনায় ৩১৬ জন নিহতসহ ৯৬৯ জন আহত হয়। জুলাইয়ে ২০৭টি দুর্ঘটনায় ৪৩৫ জন নিহতসহ আহত হয় ১ হাজার ২৪০ জন। আগস্টে দুর্ঘটনা ঘটে ২৫৬টি। ৩৮৪ জন নিহত ও আহত হয় ১ হাজার ১০৮ জন। সেপ্টেম্বরে ২৪৩টি দুর্ঘটনা ঘটে। এতে ২৭৮ জন নিহত ও ৫৯৯ জন আহত হয়। অক্টোবরে ২২৪টি দুর্ঘটনায় ৩৯৮ নিহত ও ১ হাজার ২৪ জন আহত হয়। নভেম্বরে দুর্ঘটনার সংখ্যা ছিল ২০৪টি। নিহতের সংখ্যা ২৫৩ ও আহত ৫৭১ জন। ডিসেম্বরে ১৯৬টি দুর্ঘটনায় ২৮১ জন নিহতসহ ৮৫৯ জন আহত হন। এসব দুর্ঘটনায় আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হবার পর মারা যায় ১ হাজার ৭৭ জন। আর হাসপাতাল ছেড়ে যাবার পর মারা যায় ৯৬৯ জন।

সড়ক দুর্ঘটনা বিশেষজ্ঞ এম, মনিরুজ্জামান ও রাকিব মিত্রের এক গবেষণায় দেখা গেছে, ১৯৯৮ থেকে ২০০৩ পর্যন্ত দেশে ২৩ হাজার ২৭৩টি দুর্ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। এসময় ১৭ হাজার ৮৪ জন নিহতসহ আহত হয়েছে ১৯ হাজার ৮৪১জন। একই সময় শুধু ঢাকা শহরেই ৫ হাজার ১৬৮টি দুর্ঘটনা ঘটে। এসময় নিহত হন ২১০জন আর আহত হয় ৩ হাজার ৯২৩জন। বাংলাদেশ পুলিশের পরিসংখ্যান অনুযায়ী বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় ৪ হাজার প্রাণ বিনাশ হয় আর আহত হন প্রায় ৫ হাজার।

সম্প্রতি ‘সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়’ থেকে ঝুকিপূর্ণ ১৪৪টি ব্লাক স্পট নির্ধারণ করা হয়েছে। এসব স্পট সংস্কারের জন্য একটি প্রকল্পের অধীনে ১৬৫ কোটি টাকা বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ১২৬টি দুর্ঘটনা প্রবণ বাঁক চিহ্নিত করে এবং নতুন করে ১৮টি বাঁক প্রকল্পে যুক্ত করা হয়। একই প্রকল্পের আওতায় পথচারীদের ক্রসিংয়ের উন্নয়ন, মহাসড়কগুলোকে নিরাপদ করতে ইন্টারসেকশন উন্নয়ন, বাঁক সরলীকরণ, ঝুঁকিপূর্ণ স্থান সংস্কার, সিগন্যালিং, রোড মার্কিং স্থাপন, সাইন সিগন্যাল, দৃষ্টি প্রতিবন্ধকতা অপসারণ করা হবে। ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের মধ্যে এ কাজ সমাপ্ত হবার কথা রয়েছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, দুর্ঘটনার সময়ে প্রায় ৫৪ শতাংশ গাড়ির গতি ছিল অতিরিক্ত। মোটরযান আইনে গতিসীমা নির্ধারিত হলেও তা প্রায় কেউই মানে না। মোটরযান আইন অনুযায়ী মহাসড়কে বাস, কোচ ও পিকআপের সর্বোচ্চ গতিসীমা ঘণ্টায় ৫৫ কিলোমিটার। ভারী ট্রাক, লরির গতিবেগ ৫০ কিলোমিটার। ট্রাক্টর ও অন্যান্য ভারী যানবাহনের সর্বোচ্চ গতিসীমা ৩০ কিলোমিটার। মোটর ভেহিকেল অর্ডিন্যান্স-১৯৮৩ অনুযায়ী চালককে লাইসেন্স দেয়ার পূর্বে মহাসড়কে ৩৫ মিনিট গাড়ি চালানোর পরীক্ষা ও তাত্তি¦ক পরীক্ষা নেয়ার কথা। কিন্তু বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) এর পেশাদার লাইসেন্স প্রদানের ক্ষেত্রে প্রায় পুরোটাই হয় অর্থের বিনিময়ে। ফলে যথাযথ পরীক্ষা না দিয়ে লাইসেন্স পাওয়া ড্রাইভার মহাসড়কে গাড়ি চালাতে গেলে দুর্ঘটনা ঘটার ঝুকি বেশি। অন্যদিকে, বিআরটিএ এর হিসাবেই লাইসেন্সবিহীন চালকের সংখ্যা ৮ লাখ। বিআরটিএ এর তথ্য মতে, রাস্তায় গাড়ির সংখ্যা ২১ লাখ। এর বিপরীতে বৈধ চালকের সংখ্যা ১৩ লাখ। কিন্তু যাত্রী কল্যাণ সমিতির মতে, বৈধ ও অবৈধ মিলে দেশে প্রায় ৪০ লাখ মোটরযান রয়েছে। ওই হিসেবে প্রায় ২৭ লাখ পরিবহন চলছে লাইসেন্সবিহীন ড্রাইভার দিয়ে। সমিতির ২০১৩ সালের এক প্রতিবেদনে দেখা যায়, ৪০ লাখ যানবাহনের মধ্যে প্রায় ১৮ লাখ যানবাহনের বৈধ কাগজপত্র নেই। স্থানীয় প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতাদের প্রবাবে এসব অবৈধ যান রাস্তায় চলাচল করছে।

বিআরটিএ এর তথ্য মতে, রাজধানীতে মোটরসাইকেল বাদে যানবাহন রয়েছে ৫ লাখের বেশি। বিশাল সংখ্যাক এই পরিবহনের ফিটনেস পরীক্ষার জন্য মাত্র ১ জন উপ-পরিচালক ১১ জন কর্মকর্তা নিয়ে কাজ করছেন। ফলে প্রকৃতপক্ষে ফিটনেস যাচাই করা সম্ভব হয় না। তাছাড়া অর্থের বিনিময়ে ফিটনেস সার্টিফিকেট দেয়ার অভিযোগ দীর্ঘ দিনের।

সড়ক দুর্ঘটনা রোধের দায়িত্ব কার? এর উত্তর হল, এর দায় একক কোনো সংগঠনের নয়। সড়ক দুর্ঘটনা একক কারণে নয়, তেমনি দুর্ঘটনা রোধ করার দায়িত্বও একক কোনো কর্তৃপক্ষের নয়। সড়ক দুর্ঘটনায় সড়কের সঙ্গে সম্পৃক্ত অনেকগুলো মন্ত্রণালয় রয়েছে। এসব মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব কিন্তু সেতুমন্ত্রীর একার নয়। সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সাধারণ মানুষ, সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়, সংগঠন, সবারই দায়িত্ব রয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি দায়িত্ব সরকারের।

 

আমরা আশা করি, সরকার সব ঘটনা বিচক্ষণতার সঙ্গে বিশ্লেষণ করে এমন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করুক, যেন চালকের সতর্কতা নিশ্চিত হয় এবং সড়ক পথের যাবতীয় অনিয়মগুলো দূর হয়। যা দেশের দুর্ঘটনায় মৃত্যুরোধে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে। সড়ক দুর্ঘটনাকে একটি জাতীয় সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করে সরকারের পক্ষ থেকে ব্যাপক ভিত্তিক পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করলে দুর্ঘটনার পরিমান কমতে পারে বলে আমরা মনে করি। সরকার সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে উদ্যোগী হবেন এমনটি আমাদের প্রত্যাশা।

বিশেষ প্রতিবেদক

রাজধানীর ১৫ লাখ ভাড়াটিয়ার তথ্য পুলিশের হাতে
                                  

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাছে রাজধানীর প্রায় ১৫ লাখ বাড়িওয়ালা ও ভাড়াটিয়ার তথ্য জমা পড়েছে। সম্প্রতি বাড়িওয়ালা ও ভাড়াটিয়ার তথ্য চেয়ে ডিএমপি কমিশনারের আহ্বানের প্রেক্ষিতে ৩১ মার্চ পর্যন্ত এতথ্য জমা পড়ে। ডিএমপি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

 

সূত্র জানায়, রাজধানীর ৪৯ থানায় ১৯ লাখ ৩০ হাজার ৩৪৩টি ফরম বিতরণ করে ডিএমপি। এর মধ্যে ১৫ লাখ ২৪ হাজার ১৭৩টি ফরম জমা পড়েছে। প্রাপ্ত তথ্য দিয়ে একটি যুগোপযোগী ডেটাবেজ তৈরির কাজও শুরু করেছে পুলিশ। এজন্য একটি সফটওয়্যারও তৈরি করেছে ডিএমপি।

 

সূত্র আরো জানায়, রমনা বিভাগে বিতরণ করা ১ লাখ ৬৫ হাজার ৩১৬টি ফরমের মধ্যে ১ লাখ ৩৯ হাজার ৬১৩টি জমা পড়েছে। লালবাগ বিভাগ ১ লাখ ৫১ হাজার ৫২১টির মধ্যে ১ লাখ ৫১ হাজার ৯৪২টি, ওয়ারী বিভাগে ২ লাখ ৯৯ হাজার ৬৮১টির মধ্যে ১ লাখ ৯৬ হাজার ৫১৮, মতিঝিলে ২ লাখ ৬৬ হাজার ৬৮৮টির মধ্যে ২ লাখ ৫৪ হাজার ২০৯টি, তেজগাঁওয়ে ১ লাখ ৬৩ হাজার ৫৮৯টির মধ্যে ১ লাখ ১ হাজার ১৭৪টি, মিরপুরে ৪ লাখ ৫৪ হাজার ১০৩টির মধ্যে ৩ লাখ ৫২ হাজার ৮১৭টি, গুলশানে ২ লাখ ২৩ হাজার ৫৫৮টির মধ্যে ১ লাখ ৬৪ হাজার ২৬৩টি এবং  উত্তরা বিভাগে ২ লাখ ৫ হাজার ৮৮৭টি ফরমের মধ্যে ১ লাখ ৬৩ হাজার ৬৩৭টি ফরম জমা পড়েছে।

 

এ বিষয়ে ডিএমপির মিডিয়া ও পাবলিক রিলেসন্স বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. মারুফ হোসেন সরদার বলেন, যেসব বাড়িওয়ালা ও ভাড়াটিয়া এখনো ভাড়াটিয়া নিবন্ধন ফরম পাননি তাদের নিকটস্থ থানা থেকে সংগ্রহ করতে থানায় থানায় মাইকিং করেছে পুলিশ। ৎ

 

এর আগে ২৮৭টি বিট পুলিশের মাধ্যমে বাড়িওয়ালা ও ভাড়াটিয়াদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করছে ডিএমপি। প্রথম দিকে ভাড়াটিয়া নিবন্ধন ফরম অনুযায়ী পুলিশকে তথ্য দিতে অনীহা থাকলেও পরবর্তীতে ডিএমপি কমিশনার ও আদালতের নির্দেশে এই তথ্য সংগ্রহ চলমান থাকে।

 

প্রসঙ্গত, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে গত বছরের শেষ দিকে রাজধানীতে ভাড়াটিয়াদের তথ্য সংগ্রহের কাজ শুরু করে পুলিশ। এর পক্ষে-বিপক্ষে গণমাধ্যমে বক্তব্য ও পুলিশের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগও আসে।

 

তবে ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে পুলিশ কমিশনার এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ১৫ মার্চের মধ্যে ভাড়াটিয়া নিবন্ধন ফরম পূরণ করে পার্শ্ববর্তী থানায় জমা দেওয়ার অনুরোধ জানান। এসময় যারা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নিবন্ধন ফরম জমা দেবে না তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও জানান পুলিশ কমিশনার। এরপরই পুলিশের এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতে রিট হয়। পরবর্তীতে উচ্চ আদালত পুলিশের পক্ষেই রায় দেয়। কিন্তু দ্বিতীয় দফায় আরেকটি রিট করা হলে সেটি এখনো আদালতে বিচারাধিন রয়েছে।

নিজস্ব প্রতিবেদক


   Page 1 of 1
     মানব র্দুভোগ
যুবককে উল্টো করে নির্যাতন, দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তলব
.............................................................................................
নিয়মনীতির তোয়াক্কা নেই বাড়িভাড়া বাড়ে মালিকের ইচ্ছায়
.............................................................................................
কাজে আসছে না কোনো পরিকল্পনা সড়কে মৃত্যুর মিছিল! থামবে কবে?
.............................................................................................
রাজধানীর ১৫ লাখ ভাড়াটিয়ার তথ্য পুলিশের হাতে
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

Editor & Publisher: Rtn. Md Reaz Uddin
Mobile:+88-01711391530, Email: md.reaz09@yahoo.com Corporate Office
53,Modern mansion(8th floor),Motijheel C/A, Dhaka
E-mail:manabadhikarkhabar@gmail.com,manabadhikarkhabar34@yahoo.com,
Tel:+88-02-9585139
Mobile: +8801978882223 Fax: +88-02-9585140
    2015 @ All Right Reserved By manabadhikarkhabar.com    সম্পাদকীয়    Adviser List

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]