| বাংলার জন্য ক্লিক করুন

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   শেয়ার করুন
Share Button
   স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা
  স্ট্রোকের কারণ, চিকিৎসা ও প্রতিরোধে করণীয় মস্তিষ্কে
  18, April, 2018, 3:57:0:PM


 রক্ত সরবরাহের ক্ষেত্রে কোন বাধার সৃষ্টি হলে অর্থাৎ মস্তিষ্কের কার্যকারিতায় ক্ষতি হলে ব্রেইন স্ট্রোক হয়। ব্রেইন স্ট্রোক স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ক্ষতিকর। এই রক্তক্ষরণ সাধারণত ইস্কিমিয়া ব্লকেজ অর্থাৎ রক্ত প্রবাহের অভাবের কারণে হয়ে থাকে। তবে, একজন সাধারণ ব্যাক্তি অবশ্যই জানে না, স্ট্রোক কি? স্ট্রোকের কারণে কি কি হতে পারে? স্ট্রোক করা রোগীদের কীভাবে পুনর্বাসন করতে হবে? ইত্যাদি। ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ, ধূমপান, স্থুলতা, উচ্চ কোলেস্টেরলের মাত্রা এবং হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীদের ব্রেইন স্ট্রোকের ঝুঁকি বেশি। মস্তিষ্কে রক্ত সরবরাহে কোন বাধার সৃষ্টি হলেই মূলত ব্রেইন স্ট্রোক হয়। তবে এর কিছু সতর্কতা সংকেত রয়েছে, যা নিম্নে দেয়া হল-
১. মুখ বেকে যাওয়া:
রোগীর মুখের এক পাশে যদি অসাড়তা অনুভব করে অথবা রোগীর মুখের এক পাশ যদি বেকে যায়, তাহলে তাকে দ্রুত ডাক্তারের নিকট নিয়ে যেতে হবে। সে সময় আপনি রোগীকে একবার হাসার জন্য অনুরোধ করুন। যদি সে হাসতে না পারে, তাহলে তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যান। ব্রেইন স্ট্রোক এর প্রধান লক্ষণ মুখ বেকে যাওয়া এবং হাসতে না পারা।
২. হাতে দুর্বলতা:
একজন স্ট্রোকের রোগী তার এক হাতে অথবা উভয় হাতে অবশতা বা দুর্বলতা অনুভব করে। যা স্ট্রোকের লক্ষণ হতে পারে। আপনি স্ট্রোকের রোগীকে হাত উপরে উঠানোর জন্য অনুরোধ করুন। সে তার হাত উপরে উঠাতে পারবেন না। উপর দিকে উঠাতে নিলে তার হাত নিচের দিকে নেমে আসবে।
৩. কথা বলতে অসুবিধা:
একজন স্ট্রোকের রোগী বক্তৃতা প্রদানের সময় ঠিকমত কথা বলতে পারবে না। তাদেরকে পরীক্ষা করার জন্য একই প্রশ্ন বারবার করুন। দেখবেন তারা সঠিকভাবে প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবে না। তারা একই প্রশ্নের বিভিন্ন উত্তর প্রদান করবে।
৪. তাদের ভারসাম্য ঠিক থাকবে না:
একজন স্ট্রোকের রোগী তাদের শরীরের ভারসাম্য বজায় রাখতে পারেন না। তারা চলাচলের সময় সমন্বয়ের অভাব অনুভব করে। তারা বিভিন্ন অসুবিধায় ভুগতে থাকে।
স্ট্রোক হলে যা জরুরি
স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়া মানেই জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণ। রোগী একদিকে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যেতে থাকেন আরেকদিকে রোগীকে বাঁচিয়ে রাখার প্রাণান্তকর চেষ্টা করতে থাকেন আত্মীয়-স্বজনেরা। এই অবস্থায় হাসপাতালের জরুরি বিভাগে উপস্থিত হয়ে তাঁকে একনজর দেখার জন্যও ভিড় জমান রোগীর স্বজনেরা। যেন দ্রুত তাঁকে শেষবার একনজর জীবিত দেখে নেওয়ার তাগিদ অনুভব করেন। সবচেয়ে পরিচিত স্ট্রোকের মধ্যে  পড়ে মস্তিষ্কের শিরায় রক্ত জমে রক্ত চলাচল বন্ধ হওয়ার যাওয়ার ঘটনাটি। এতে মস্তিষ্কের ওই শিরার নিকটস্থ কোষগুলো দ্রুত মারা যেতে শুরু করে। তবে ভাগ্য সুপ্রসন্ন যে, বর্তমানে এই রোগের কার্যকর চিকিৎসা সুবিধা রয়েছে। স্ট্রোকের মতো অবস্থা দেখা দিলে দ্রুত নিউরোলজিস্টকে দেখাতে হবে। সম্প্রতি স্ট্রোকের জরুরি চিকিৎসা নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে দ্য ইকোনমিস্ট। মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বাঁধা স্ট্রোকের একটি চিকিৎসা হচ্ছে ‘থ্রম্বোলাইটিক থেরাপি’, যে চিকিৎসায় ওষুধ প্রয়োগের মাধ্যমে দ্রুত মস্তিষ্কের জমাট বাঁধা রক্ত গলে যায় এবং রক্ত প্রবাহ স্বাভাবিক হয়। হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোক (মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ ঘটে গেলে ভিন্ন বিষয়) উভয় ক্ষেত্রেই এই থেরাপি বা ওষুধের মাধ্যমে জমাট বাঁধা রক্ত গলিয়ে ফেলা হয়। স্ট্রোক হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে এই থেরাপি দেওয়া হলে মস্তিষ্কের ক্ষতি কম হয় এবং প্যারালাইসিস বা দীর্ঘমেয়াদি অক্ষমতা তৈরির বিষয়গুলো কমে যায়। নিউরোলজিস্ট বা স্নায়ুুরোগ বিশেষজ্ঞরা স্ট্রোকের চিকিৎসার বিষয়টিকে বলেন, ‘টাইম ইজ ব্রেইন’।
স্ট্রোকের কারণ, চিকিৎসা ও প্রতিরোধে করণীয়
অনিয়ন্ত্রিত উচ্চ রক্তচাপ স্ট্রোকের সবচেয়ে বড় কারণ। এছাড়া, ধূমপান, তামাক পাতা, জর্দা, মাদক সেবন, অতিরিক্ত টেনশন, হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, রক্তে বেশি মাত্রায় চর্বি, অলস জীবনযাপন করা, স্থুলতা বা অতিরিক্ত মোটা হওয়া, অতিরিক্ত মাত্রায় কোমল পানীয় গ্রহণ, কিছু কিছু ওষুধ যা রক্ত জমাট বাঁধার ক্ষমতা কমিয়ে দেয় যেমন অ্যাসপিরিন, ক্লোপিডগ্রিল প্র্রভৃতি ব্যবহারে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হতে পারে। এমনকি ঘুমের সময় নাক ডাকা, ঘুমের সময় শ্বাসকষ্টজনিত উপসর্গ। যেকোনো ধরনের প্রদাহ অথবা ইনফেকশন ও জন্মগতভাবে ব্রেইনে কিংবা মস্তিষ্কে সরু রক্তনালী থাকা, অনেক সময় বংশানুক্রমে কিংবা পূর্বের স্ট্রোক, হার্ট অ্যাটাক ও দূরবর্তী রক্তনালী বন্ধ হওয়ার কারণেও স্ট্রোক হতে পারে।
চিকিৎসা :
রোগী যদি খেতে না পারে তবে নাকে নল দিয়ে খাবার ব্যবস্থা করতে হবে। প্রস্রাব ও পায়খানা যাতে নিয়মিত হয় সে ব্যবস্থা নিতে হবে, প্রয়োজনে প্র¯্রাবের রাস্তায় ক্যাথেটার দিতে হবে। চোখ, মুখ ও ত্বকের যতœ নিতে হবে। বেডসোর প্রতিরোধ করার জন্য নিয়মিত পাশ ফেরাতে হবে। উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। পাশাপাশি অনেক স্ট্রোক রোগীর হার্টের রোগ থাকে। এসব ক্ষেত্রে কারডিওলজিস্টের পরামর্শের প্রয়োজন হয়। অন্যান্য চিকিত্সা স্ট্রোকের ধরন অনুযায়ী করা হয়। যেমন: ইশকেমিক স্ট্রোকের বেলায় এসপিরিন, ক্লোপিডগ্রিল জাতীয় ওষুধ দেওয়া হয়। রক্তক্ষরণের কারণে স্ট্রোক হলে অপারেশনের প্রয়োজন পড়ে। সকল হাসপাতালেই থাকা উচিত একটি স্ট্রোক কেয়ার ইউনিট, যেখানে ডাক্তার, নার্স, থেরাপিস্ট এবং অন্যান্য বিশেষজ্ঞ সমন্বিত পরিকল্পনার মাধ্যমে স্ট্রোক রোগীর চিকিৎসা দেবেন। রোগীর অঙ্গ সঞ্চালন করে জড়তা কাটিয়ে তুলতে রিহ্যাবিলিটেশন বা পুনর্বাসনের জন্য ফিজিওথেরাপিস্ট প্রয়োজন হয়। রোগী কথা বলতে না পারলে প্রয়োজন স্পিচ থেরাপিস্টের। স্ট্রোক কেয়ার ইউনিট, সমন্বিত স্ট্রোক কেয়ার টিমের ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসায় আসবে সুফল, রোগী ও রোগীর স্বজন হবেন চিন্তামুক্ত, রোগী লাভ করবে আরোগ্য।
যেভাবে প্রতিরোধ সম্ভব :
নিয়মিত ওষুধ সেবনের মাধ্যমে উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি ধূমপান, মদ্যপান, মাদকদ্রব্য, তামাক পাতা ও জর্দা খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। এছাড়া হৃদপিন্ডের রোগের চিকিৎসা, রক্তের চর্বি নিয়ন্ত্রণ, চর্বি ও শর্করাযুক্ত খাবার নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি ফাস্টফুড, বাদাম,
সন্দেশ-রসগোল্ল­া, দুধ-ঘি-পোলাও-বিরিয়ানি, পাঙ্গাশ-চিংড়ি-কাঁকড়া, গরু বা খাসির মাংস, নারকেল বা নারকেলযুক্ত খাবার ইত্যাদি কম খাওয়া উচিত। নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে। বাড়তি ওজন কমাতে হবে। স্ট্রোক অবশ্যই একটি প্রতিরোধযোগ্য রোগ। একবার আক্রান্ত হয়ে গেলে চিকিৎসা অত্যন্ত জটিল, ব্যয়বহুল এবং কষ্টসাধ্য। আক্রান্ত রোগী নিজে মানসিক এবং শারীরিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন, পরিবারের জন্য অনেক সময় বোঝা হয়ে দাঁড়ায়। তাই প্রতিরোধ করাই সর্বোত্তম।







সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 400        
   আপনার মতামত দিন
     স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা
সঠিক সেবার অভাব বিশ্বে প্রতি বছর মারা যায় ২৬ লাখ রোগী
.............................................................................................
ডেঙ্গুতে সরকারি হিসাবে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯৩
.............................................................................................
তথ্য প্রযুক্তি মনের কথা ‘শুনে’ অন্যকে জানাবে যে যš
.............................................................................................
স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা জেনে নিন কিডনি সুস্থ রাখতে ১০ টিপস
.............................................................................................
স্ট্রোকের কারণ, চিকিৎসা ও প্রতিরোধে করণীয় মস্তিষ্কে
.............................................................................................
ঘুরে আসতে পারেন রাতারগুল স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা কিডনির রোগের লক্ষণ ও নির্ণয়
.............................................................................................
সুস্থ রাখবে যেসব খাবার!
.............................................................................................
শীতের শুরুতে চুলের যত্ন নিবেন কিভাবে?
.............................................................................................
কিডনি রোগের কারণ, প্রতিরোধ ও চিকিৎসা
.............................................................................................
সাব সেক্টর কমান্ডার মেজর (অবঃ) জিয়াউদ্দিন গুরুতর অসুস্থ রাষ্ট্রীয়ভাবে চিকিৎসার দাবি
.............................................................................................
চিকনগুনিয়া পরবর্তী সমস্যা ও প্রতিকার
.............................................................................................
চিকুনগুনিয়া থেকে নতুন রোগ পলি আর্থ্রাইটিস হতে পারে।
.............................................................................................
ক্যান্সার আক্রান্তদের পাশে রবি
.............................................................................................
সা স্থ্য ও চি কি ৎ সা জন্ডিস এর কারণ ও প্রতিকার
.............................................................................................
শিশুর টনসিল সমস্যায় কী করবেন?
.............................................................................................
দেশের ২৭ শতাংশ নারী স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত
.............................................................................................
মহামারী রূপ নিচ্ছে হৃদরোগ
.............................................................................................
ওজন কমানোর পাঁচ উপায়
.............................................................................................
ভুঁড়ি পালাবে ৩০ দিনেই
.............................................................................................
ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধ করুন
.............................................................................................
ভাঙা-গড়ার খেলা নিয়েই জীবন
.............................................................................................
শিশুর খাবার
.............................................................................................
জেনে নিন শিশুর যত্ন
.............................................................................................
আপনার শিশুর যত্ন
.............................................................................................
আপনার শিশুর জন্য জেনে নিন
.............................................................................................
পোলিও নির্মূলে নতুন টিকা
.............................................................................................
আপনার শিশুর জন্য জেনে নিন মানসিক বৃদ্ধি ও বাচন ভঙ্গি
.............................................................................................
পোলিও
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

Editor & Publisher: Rtn. Md Reaz Uddin
Corporate Office
53,Modern mansion(8th floor),Motijheel C/A, Dhaka
E-mail:manabadhikarkhabar34@gmail.com,manabadhikarkhabar34@yahoo.com,
Tel:+88-02-9585139
Mobile: +8801978882223 Fax: +88-02-9585140
    2015 @ All Right Reserved By manabadhikarkhabar.com    সম্পাদকীয়    Adviser List

Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD