| বাংলার জন্য ক্লিক করুন

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
তাজরিন ট্র্যাজেডির পাঁচ বছর স্মরণ করলো নিহতদের শোকার্ত সহকর্মীরা

॥ সৈয়দ তানভীর আহমেদ রনি ॥

আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুরে তাজরিন ফ্যাশনস ট্র্যাজেডির পাঁচ বছর পূর্ন হলো ২৪ নভেম্বর। ভয়াবহ এই অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ১১২ জন পোশাক শ্রমিক পুড়ে মারা যায়। তবে নিহতের সংখ্যা আরও বেশি। এ ঘটনায় এখনও বহু সংখ্যক শ্রমিক নিখোঁজ রয়েছেন। দূর্ঘটনায় নয় তলা ভবনের ছয় তলা পর্যন্ত পুরোপুরি আগুনে ভূস্মিভূত হয়।

ভয়াবহ এই ঘটনার শিকার শ্রমিকদের কেহ কেহ সামান্য ক্ষতিপূরণ পেলেও অনেক শ্রমিকের পরিবারক্ষতিপূরণ পায় নাই। শোকাবহ এই দিনে নিহত শ্রমিকদের স্মরণে গার্মেন্টস শ্রমিকদের একাধিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেছে। এর মধ্যে ইন্ডাষ্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিল (আইবিসি) তাজরিন ফ্যাশনের মালিক সহ সকল দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি সহ নিরাপদ কর্মস্থল করার দাবী করেছেন।

তাজরিন ট্র্যাজেডির পাঁচ বছর স্মরণ করলো নিহতদের শোকার্ত সহকর্মীরা
                                  

॥ সৈয়দ তানভীর আহমেদ রনি ॥

আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুরে তাজরিন ফ্যাশনস ট্র্যাজেডির পাঁচ বছর পূর্ন হলো ২৪ নভেম্বর। ভয়াবহ এই অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ১১২ জন পোশাক শ্রমিক পুড়ে মারা যায়। তবে নিহতের সংখ্যা আরও বেশি। এ ঘটনায় এখনও বহু সংখ্যক শ্রমিক নিখোঁজ রয়েছেন। দূর্ঘটনায় নয় তলা ভবনের ছয় তলা পর্যন্ত পুরোপুরি আগুনে ভূস্মিভূত হয়।

ভয়াবহ এই ঘটনার শিকার শ্রমিকদের কেহ কেহ সামান্য ক্ষতিপূরণ পেলেও অনেক শ্রমিকের পরিবারক্ষতিপূরণ পায় নাই। শোকাবহ এই দিনে নিহত শ্রমিকদের স্মরণে গার্মেন্টস শ্রমিকদের একাধিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেছে। এর মধ্যে ইন্ডাষ্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিল (আইবিসি) তাজরিন ফ্যাশনের মালিক সহ সকল দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি সহ নিরাপদ কর্মস্থল করার দাবী করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা, বিরল রোগে আক্রান্ত জহিরুল বাঁচতে চায়
                                  

 ॥ মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন ॥

 ইঞ্জিঃ জহিরুল ইসলাম চাদপুঁর জেলার কচুয়া থানার ২নং পাথৈর ইউনিয়নের বেরকোটার গ্রামের অধিবাসী। তার বাবা একজন কৃষক, মা অসুস্থ হয়ে পঙ্গু জীবন যাপন করছে। সে একজন Faciio Scapnto Humeral Muscular dystrophy রোগী। দূরারোগ্য এই রোগটি তার ১৮ বছর পর থেকে দৃশ্যমান হয়। তার বর্তমান বয়স ২৬ বছর। সে ২০০৯ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত দেশের সব হাসপাতাল গুলোতে চিকিৎসা সেবা নিতে চেষ্টা করে কিন্তু কোন ফলাফল পায়নি।

 

অতঃপর উন্নত চিকিৎসার জন্য ২০১৫ সালে ভারত যায়। ভারত কে.পি.সি হাসপাতালসহ কয়েকটি হাসপাতালে গেলে এই চিকিৎসা নেই বলে জানায়। পরর্বতীতে ২০১৭ সালে আবার চিকিৎসার জন্য ভারতে গেলে তখন কে.পি.সি হাসপাতাল (প্রফেসর ডা: আমলান মন্ডল) কলকাতা, ক্রিস্ট্রিয়ান মেডিকেল কলেজ (ডাঃ কেবিন জন) ব্যাঙ্গালোর চেন্নাই, সি নারায়নী হাসপাতাল (প্রফেসর ড: টি.টু মটু) তামিল নাডু মার্দ্রাজ, ব্যাঙ্গালোর ন্যাশনাল নিওরো সাইন্স এন্ড মেন্টাল হ্যালথ ইন্সটিটিউট (প্রফেসর এ নালনী) ব্যাঙ্গালোর।

 তারা প্রত্যেকেই সর্বোচ্চ সুবিধা প্রধান সাপেক্ষে উন্নত চিকিৎসার জন্য আমেরিকাতে যাওয়ার জন্য পরামর্শ প্রদান করে এবং বলে যদি এখনি সঠিক চিকিৎসার ব্যবস্থা না হয় তাহলে সামনের কয়েক বছরের মধ্যে প্যারালাইসেস হয়ে যাবে। দীর্ঘ প্রায় দেড় মাস ভারতে অবস্থান শেষে দেশে ফিরে তার মামা (আমেরিকার নাগরিক), মামাত ভাই এবং অন্যান্য আত্মীয় স্বজনের সাথে যোগাযোগ করে অতঃপর তারা তাকে সাহায্য করতে আশস্ত করে। সে তার এই রোগের জন্য আমেরিকার বৃহত্তর চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান ইউনিভার্সিটি অব রোসেস্টোর মেডিকেল সেন্টরের নিওরো মাসকুলার ডিজোএস সেন্টার অন্তর্গত the fields center of Faciio Scapnto Humeral Muscular dystrophy ও নিওরো মাসকুলার রিচার্জের ডিরেক্টর ডঃ রাবি তাওয়াল সাথে যোগাযোগ করলে তারা তার কাগজ পত্র, পরীক্ষাপত্র এবং সমগ্র শরীরের ছবি দেখে দুই সপ্তাহ পর্যালোচনা করে চিকিৎসার জন্য আশস্ত করে এবং একটি এপয়েন্টমেন্ট দেয় যার তারিখ ডিসেম্বর ১৩, ২০১৭ ইং অতঃপর ইউ এস মেডিকেল ভিসা সহজে পেতে এম্বেসী বরাবর একটি এপয়েন্টমেন্ট লেটার পাঠায়। এরপর চিকিৎসার খরচের জন্য তার আত্মীয় স্বজন এবং স্থানীয় এমপি সাবেক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ডঃ মহীউদ্দীন খান আলমগীর এর কাছে গেলে তিনি যাবতীয় খরচ বহন করবে এবং চিকিৎসার শেষে দেশে ফিরে আসবে এই মর্মে একখানা পত্র এম্বেসী বরাবর প্রেরন করে। এই দিকে আমেরিকার বসবাসরত তার মামা, মামাতো ভাই, মামাতো বোন তার ইউএস এ চিকিৎসার জন্য অবস্থানরত সময় সকল খরচ বহন মর্মে নোটারি পাবলিকেশন করে একখানা পত্র এম্বেসী বরাবর প্রেরণ করে এরপর সে প্রথমবারের মত আমেরিকার মেডিকেল ভিসার জন্য ৩ অক্টোবর লাইনে দাড়ায় কিন্তু ভিসা অফিসার কোন কারন না বলে ডিসকোয়ালিফাই ঘোষনা করে। এমতাবস্থায় সে চরম হতাশাগ্রস্থ হয় এবং বাংলাদেশের উচ্চ পদস্থ লোকদের কাছে বাচার আকুতি জানায়। তাদের সহযোগীতায় সে দ্বিতীয় বারের মত এম্বেসী ফি জমা দিয়ে ভিসার জন্য ১৪ই নভেম্বর লাইনে দাড়ায়। কিন্তু ভিসা অফিসার তাকে আগের মত ডিসকোয়ালিফাই করে। এমতাবস্থায় প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশন চেয়াম্যান এর কাছে তার একটাই চাওয়া- “আমি বাঁচতে চাই। আমাকে বাঁচার সুযোগ করে দিন।”

জাতীয় মানবাধিকার কমিশন চেয়ারম্যানের এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার
                                  


গতকাল জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ড. কাজী রিয়াজুল হক মানবাধিকার খবরকে এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার প্রদান করেন।

সাক্ষাৎকারে তিনি বাংলাদেশ ও বিশ্বের বর্তমান মানবাধিকার পরিস্থিতির সামগ্রিক অবস্থা, ১০ ডিসেম্বর বিশ্ব মানবাধিকার দিবস, জাতিসংঘ ঘোষিত মানবাধিকারের ৩০টি ধারার প্রয়োজনীয়তা , বাংলাদেশের বর্তমান মানবাধিকার পরিস্থিতি সামগ্রিকভাবে অবস্থা, মায়ানমারে রোহিঙ্গাদের জাতিগত নিধন ও হত্যা নির্যাতনসহ বহিঃ বিশ্বের বর্তমান মানবাধিকার পরিস্থিতি সম্পর্কে মন্তব্য ও পরামর্শ প্রদান করেন।

এছাড়াও বাংলাদেশের সাথে ভারত ও মায়ানমার সীমান্তে প্রতিদিন বাংলাদেশীদের হত্যা নির্যাতনসহ সবধরনের মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে। হত্যা নির্যাতন বন্ধে উভয় দেশ উদ্যোগ নিলেও কোন কাজে আসছে না এ ব্যাপারে তার মন্তব্য ও পরামর্শ প্রদান করেন।

কোন প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই স্বাধীনভাবে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ করতে পারছে কিনা, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন, সমাজে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় ও সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে কি কি কাজ করছে, ভবিষ্যতে কি ধরনের কাজ করতে চায় এ ব্যাপারে তার গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য ও পরামর্শ প্রদান করেন।

মানবাধিকার বিষয়ক বিশ্বের একমাত্র নিয়মিত সৃজনশীল জনপ্রিয় বাংলা প্রকাশনা মানবাধিকার খবর তার লেখনী ও সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে অধিকার বঞ্চিত অসহায় মানুষের সেবা প্রদান করছে। এ ছাড়া দেশ-বিদেশ থেকে নারী ও শিশু উদ্বার, আইনি সহায়তা, চিকিৎসা, শিক্ষা, সংস্কৃতি, প্রাকৃতিক দুর্যোগে ত্রাণ বিতরণ ও দরিদ্রদের সহায়তাসহ নানাবিদ সামাজিক কাজ করে যাচ্ছে। মানবাধিকার খবরের কর্মকান্ড সম্পর্কে তার মন্তব্য ও পরামর্শ প্রদান করেন।

বিস্তারিত পড়ুন ডিসেম্বর ২০১৭ এর সংখ্যায়।

বেপরোয়া রোহিঙ্গা রামুতে এক বাঙালি নিহত ॥ উখিয়ায় আহত ৪
                                  

॥ মানবাধিকার খবর প্রতিনিধি ॥

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের একটি অংশ দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে। ঝগড়া-বিবাদ, কথায় কথায় উগ্র আচরণ, ছুরিকাঘাতে খুনসহ বিভিন্ন অপরাধকর্মে জড়িয়ে পড়ছে এই অংশটি। শুধু নিজেদের ভিতরই ঝগড়া-বিবাদে লিপ্ত হচ্ছে তা নয়, স্থানীয় বাসিন্দাদের ওপরও চড়াও হচ্ছে এখন রোহিঙ্গারা। এতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন স্থানীয়রা। ফলে দিন দিন এখানকার পরিবেশ হয়ে উঠছে অসহিষ্ণু, অপ্রীতিকর। সর্বশেষ রামুতে এক রোহিঙ্গা যুবকের হামলায় আবদুল জব্বার (২৮) নামে স্থানীয় এক যুবক নিহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। এর আগে রোহিঙ্গাদের হামলায় আহত হয়েছেন স্থানীয় চার ব্যক্তি। উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন আন্তর্জাতিক বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা এমএসএফ পরিচালিত হাসপাতাল ও একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের দুজন নলকূপ মিস্ত্রি বলে জানা গেছে। উখিয়া থানার ওসি মো. আবুল খায়ের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকায় ডাকাত সন্দেহে স্থানীয় কয়েক বাংলাদেশির ওপর রোহিঙ্গারা হামলা চালায়। এতে চারজন আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে আহতদের উদ্ধার করে। আহতরা ধারালো অস্ত্রের আঘাতে জখম হয়েছেন।

এদিকে ক্যাম্পের অন্য একটি সূত্রে জানা গেছে, কয়েকজন অপরিচিত লোক বালুখালীর একটি অস্থায়ী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে প্রবেশ করেন। তারা মূলত একটি গভীর নলকূপ বসানোর কাজেই ওই ক্যাম্পে গিয়েছিলেন। অপরিচিত হওয়ায় ডাকাত ডাকাত বলে কেউ একজন চিৎকার শুরু করলে আশপাশের শতাধিক তাঁবু থেকে মুহূর্তেই লোকজন বের হয়ে তাদের ধাওয়া করেন। একপর্যায়ে হাতের নাগালে পেয়ে গণপিটুনি শুরু করেন। এতে গুরুতর আহত হন চারজন। অপ্রীতিকর এই ঘটনার পেছনে অন্য কোনো কারণ আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে জানিয়ে উখিয়া থানার ওসি আবুল খায়ের বলেন, হামলায় জড়িতদের গ্রেফতারে অভিযান চালানো হচ্ছে। পুলিশ ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ১৯ অক্টোবর রোহিঙ্গা দুই সহোদরের ছুরিকাঘাতে আহত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের আবু ছিদ্দিক। দুই দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে ২১ অক্টোবর ভোরে তিনি মারা যান। মহিষ বিক্রিকে কেন্দ্র করে রোহিঙ্গা মোহাম্মদ হোছনের ছেলে কালা মিয়া ও ধলা মিয়ার সঙ্গে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে আবু ছিদ্দিককে মারধর ও ছুরিকাঘাত করা হয়।

সর্বশেষ টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ডি ব্লকে রোহিঙ্গা নারী দিলবাহার ও তার স্বামী সৈয়দ আহমদ অবৈধভাবে একটি মুদির দোকান বসানোর চেষ্টা করছিলেন। এতে নয়াপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (এসআই) কবির আহমদ বাধা দিলে রোহিঙ্গা দম্পতি তার ওপর চড়াও হন। এ ঘটনায় এসআই কবিরের মাথা ফেটে গেলে তাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে টেকনাফ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

সাংবাদিক হত্যায় বিচার না হওয়া দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ দশম
                                  

॥ মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন ॥

সাংবাদিক হত্যায় বিচার না হওয়া দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান দশম। সিপিজে সারা বিশ্বে সাংবাদিক হত্যার বিচার না হওয়া নিয়ে যে তালিকা প্রকাশ করেছে, সেখানে এই তথ্য উপস্থাপন করা হয়। এই তালিকার শীর্ষে রয়েছে সোমালিয়া। গেটিং অ্যাওয়ে উইথ মার্ডার’ শিরোনামে সিপিজে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বিচারহীনতার সূচক তৈরি করা হয়েছে সেপ্টেম্বর ১, ২০০৭ থেকে আগস্ট ৩১, ২০১৭ পর্যন্ত সাংবাদিক হত্যা ও হত্যা মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ার দৃষ্টান্ত নিয়ে। শুধু যে দেশগুলোয় পাঁচজন বা তার চেয়ে বেশিসংখ্যক সাংবাদিক নিহত হয়েছেন, সেই দেশগুলোকে এই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

সিপিজে বলেছে, তালিকায় থাকা সাংবাদিকেরা তাঁদের কাজের জন্য খুন হয়েছেন। সংগঠনটির গবেষণায় দেখা গেছে, সাংবাদিক হত্যার দুই-তৃতীয়াংশই ঘটেছে তাঁদের পেশাগত কাজের কারণে। এ তালিকায় বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে আছে পাকিস্তান। দেশটির অবস্থান সপ্তম। অন্যদিকে ভারতের অবস্থান ১২। গত বছরও বাংলাদেশের অবস্থান দশম ছিল। সিপিজের হিসাবে, বাংলাদেশে গত এক দশকে সাতজন সাংবাদিক খুনের ঘটনায় ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বাংলাদেশের পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করতে গিয়ে সিপিজে আলোচনায় নিয়ে এসেছে মুক্তমনা ব্লøগারদের প্রসঙ্গ। প্রতিবেদনে বলা হয়, গত এক দশকে তাঁদের মৌলবাদী ও অপরাধী গোষ্ঠীগুলো খুঁজে বের করে হত্যা করেছে।

নিহত ব্যক্তিরা ছিলেন অসাম্প্রদায়িক ব্লøগার এবং তাঁরা মাদক পাচারের ওপর প্রতিবেদন লিখেছেন। এসব খুনের মধ্যে কেবল ২০১৩ সালে আহমেদ রাজীব হায়দার নামের একজন ব্লগারকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় আদালত রায় ঘোষণা করেছেন। ২০১৫ সালে অভিজিৎ রায় খুনের পর বিভিন্ন ধরনের তথ্য-প্রমাণ হাতে পাওয়া এবং বেশ কিছু গ্রেপ্তারের পরও কারও বিচার হয়নি। জনৈক সাংবাদিক মিডিয়াকে বলেন, বিচার না হওয়ার সংস্কৃতি, তদন্তে ধীরগতি, তদন্ত না হওয়া উদ্বেগের। সাংবাদিক হত্যার ঘটনায় বিচারে খুবই ধীরগতি দেখা যায়। এখন পর্যন্ত কোনো সাংবাদিক হত্যার ঘটনায় যথাযথ বিচার হয়নি। সাগর-রুনি হত্যার ঘটনায় এখন পর্যন্ত যথাযথ তদন্ত পর্যন্ত হয়নি। সেদিক থেকে বলা যায়, সিপিজের পর্যবেক্ষণ ঠিকই আছে।

সিপিজে প্রতিবছর ২ নভেম্বর ‘সাংবাদিকদের ওপর সংঘটিত অপরাধের বিচার না হওয়ার সংস্কৃতি বন্ধে’ প্রতিবেদন প্রকাশ করে। প্রতিটি দেশের মোট জনসংখ্যা এবং ১০ বছরের ওপরে অনিষ্পন্ন মামলার সংখ্যা নিয়ে সূচক তৈরি হয়। এ বছরের সূচকে গত ১০ বছরের তথ্য দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, সূচকের প্রথম ১২টি দেশে অনিষ্পন্ন মামলার সংখ্যা প্রায় ৮০ শতাংশ। খুন হওয়া সাংবাদিকদের এক-তৃতীয়াংশ মৌলবাদী গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট বা অন্য জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোর শিকার। নিহত সাংবাদিকদের ৯৩ শতাংশই মফস্বল সাংবাদিক, তাঁরা প্রধানত অপরাধ ও দুর্নীতি নিয়ে লিখতেন। বাংলাদেশে সাংবাদিক হত্যার বিচার দাবি করে আসছে সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠন ও ইউনিয়ন।

জানতে চাইলে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল মিডিয়াকে বলেন, প্রতিবেদনে যে তথ্য দেওয়া হয়েছে তা সঠিক। সরকার সাধারণত যে ব্যাখ্যা দেয় তা হলো, বাংলাদেশে সাংবাদিক হত্যার ঘটনায় প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সরকারের কোনো হাত থাকে না। তবে সাংবাদিক হত্যার ঘটনা আতঙ্কের, হত্যার পর বিচার না হওয়াটা উদ্বেগের। তিনি বলেন, হত্যাকাণ্ড বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে রাষ্ট্রকে বের হয়ে আসতে হবে। না হলে এই অবস্থার পরিবর্তন হবে না।

রোহিঙ্গাদের কারণে বনের ক্ষতি দেড়’শ কোটি টাকা
                                  



॥ মানবাধিকার খবর প্রতিনিধি ॥

বসতি স্থাপন করতে কাটা হয়েছে অসংখ্য গাছ। নতুন করে আসা বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গা শরণার্থীর চাপে কক্সবাজার এলাকার পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছে পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি।

সম্প্রতি সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত কমিটির বৈঠকে জানানো হয়, এখন পর্যন্ত রোহিঙ্গাদের কারণে ১৫০ কোটি ৮৭ লাখ টাকার বনজ সম্পদ ধ্বংস হয়েছে। পরিবেশের এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি।

বৈঠক শেষে সংসদ ভবনের মিডিয়া সেন্টারে কমিটির সভাপতি হাছান মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, সরকার রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছে মানবিক কারণে।

তাদের জন্য পর্যাপ্ত ত্রাণও যাচ্ছে। কিন্তু তাদের জ্বালানির কোনো ব্যবস্থা না থাকায় তারা প্রাকৃতিক বন থেকে জ্বালানি সংগ্রহ করছে। এতে পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। টেকনাফ রোডের গাছগুলো উজাড় হয়ে যাচ্ছে। বন অধিদপ্তরের হিসাব অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত শুধু বনের ক্ষতি দেড়’শ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। পরিবেশের ক্ষতির হিসাব অনেক বেশি। ভবিষ্যতে ভয়াবহ পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা প্রকাশ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ইতিমধ্যে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে পর্যটন ব্যবসায় ধস নেমেছে। বনের পাশাপাশি পরিবেশের অন্যান্য খাতে কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে, তা নিরূপণ করে আগামী বৈঠকে জানানোর জন্য মন্ত্রণালয়কে বলা হয়েছে। বৈঠকে বনের ক্ষতি কমাতে রোহিঙ্গাদের জ্বালানি-সাশ্রয়ী চুলা সরবরাহের সুপারিশ করা হয়। বৈঠক সূত্র জানায়, বৈঠকে জানানো হয়, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের কারণে পাহাড়, জলাশয়, সমুদ্র সৈকতসহ পরিবেশের অন্যান্য খাতেরও ক্ষতি হয়েছে। তবে কোন খাতে কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে, তা সুনির্দিষ্ট করে জানানো হয়নি।

বৈঠকে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ও সেন্ট মার্টিনের পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য রক্ষায় মন্ত্রণালয়ের নেওয়া পদক্ষেপ ও কার্যক্রম, বন্য অর্কিড সংরক্ষণ ও সম্প্রসারণে বন বিভাগের কার্যক্রম ও করণীয় নিয়ে আলোচনা হয়।

বৈঠকে জানানো হয়, সেন্ট মার্টিন দ্বীপে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ ও জীববৈচিত্র্য ধ্বংস করার দায়ে এখন পর্যন্ত ১০টি প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে এনফোর্সমেন্ট কার্যক্রম পরিচালনা করে ১ কোটি ৭১ লাখ ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ আরোপ করা হয়েছে। বৈঠকে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ও সেন্ট মার্টিন এলাকার পরিবেশ ও জীববৈত্র্যি রক্ষায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে।

হাছান মাহমুদের সভাপতিত্বে কমিটির সদস্য পরিবেশ ও বন উপমন্ত্রী আবদুল্লøাহ আল ইসলাম জ্যাকব, নবী নেওয়াজ, গোলাম রাব্বানী, ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী, টিপু সুলতান ও ইয়াসিন আলী বৈঠকে অংশ নেন।

 

 

 

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস
                                  

॥ মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন ॥

রংপুরে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে এক যুবক কর্তৃক ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার প্রতিবাদে পাগলাপীর এলাকায় রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা।

এসময় পুলিশের সঙ্গে মুসল্লিøদের ধাওয়া পাল্টাধাওয়া ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের এক সময় গুলিতে একজন নিহত ও পাঁচজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার প্রতিবাদে চলা বিক্ষোভ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় ১১ টি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় ১০ পুলিশসহ অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। ১০ নভেম্বর শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর থেকে এ সংঘর্ষ শুরু হয়।

জানা গেছে, পুলিশ ও মুসল্লিøদের মধ্যে সংঘর্ষে হাবিব (২৭) নামে স্থানীয় এক যুবক নিহত হয়েছেন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, জুমার নামাজের পর রংপুর সদর উপজেলার খলেয়া ইউনিয়নের শলেয়া শাহ বাজারে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ রাবাট বুলেট ও টিয়ারশেল ছুড়েছে। এ সময় বিক্ষুব্ধ মুসল্লিøরা ওই এলাকার ঠাকুরপাড়ার কয়েকটি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করেছে।

স্থানীয়রা আরও জানান, কয়েকদিন আগে ওই এলাকার টিটু চন্দ্র নামে এক ব্যক্তি মহানবীকে (সাঃ) নিয়ে ফেসবুকে কটূক্তি ও আপত্তিকর ছবি পোস্ট করে। এরই প্রতিবাদে ১০ নভেম্বর শুক্রবার জুমার নামাজের পর স্থানীয় মুসল্লিøরা এক জোট হয়ে পাগলাপীর বাজারে মানববন্ধন শুরু করেন।

এ সময় ওই কর্মসূচিতে সংহতি জানিয়ে আশপাশের কয়েক হাজার মুসল্লি সমবেত হন। একপর্যায়ে বিক্ষুব্ধ মুসল্লিøরা ঠাকুরপাড়ার দিকে অগ্রসর হতে থাকলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এতে পুলিশের সঙ্গে মুসল্লি­দের সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় মুসল্লিøরা ওই পাড়ার তিনটি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ শতাধিক রাউন্ড রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। আহতদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

 

 

রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকে চাপ দিন : প্রধানমন্ত্রী
                                  

॥ মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন ॥

বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের ওপর চাপ প্রয়োগের জন্য কমনওয়েলথভুক্ত দেশের সংসদ সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, `মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে সাময়িকভাবে আমরা এই বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গা নাগরিককে আশ্রয় দিয়েছি। আপনাদের অনুরোধ জানাব, রোহিঙ্গা ইস্যুটি বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে আলোচনা করুন। মিয়ানমারকে তার নাগরিকদের ওপর নির্যাতন বন্ধ করতে এবং বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে চাপ প্রয়োগ করুন।

` প্রধানমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর মিয়ানমারের অমানবিক নির্যাতন এবং তাদের দেশ ছাড়তে বাধ্য করা শুধু এ অঞ্চলে নয়, এর বাইরেও অস্থিরতা সৃষ্টি করছে। রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউয়ে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লøাজায় ৬৩তম কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি কনফারেন্সের (সিপিসি) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে কমনওয়েলথভুক্ত ৫২ দেশের মধ্যে ৪৪ দেশ, ১৮০ শাখার মধ্যে ১১৪টি এবারের সম্মেলনে অংশ নিচ্ছে। এ সব দেশের জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের ৫৬ জন স্পিকার, ২৩ জন ডেপুটি স্পিকার এবং সংসদ সদস্যসহ পাঁচ শতাধিক প্রতিনিধি সম্মেলনে উপস্থিত হন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি অ্যাসোসিয়েশনের (সিপিএ) ভাইস প্যাট্রন হিসেবে ওই সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। এবারের সম্মেলনের প্রতিপাদ্য ঠিক করা হয়েছে `কনটিনিউয়িং টু এনহ্যান্স হাই স্ট্যান্ডার্ডস অব পারফরম্যান্স অব পার্লামেন্টারিয়ানস`। রোহিঙ্গা সংকটের প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমার সরকারের নিযার্তনমূলক আচরণের ফলে গত ২৫ আগস্ট থেকে ছয় লাখ ২২ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে ঢুকেছে।

১৯৭৮ সাল থেকে বিভিন্ন সময়ে আসা আরও প্রায় পাঁচ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়ে আছে। মানবিক কারণে তাদের বাংলাদেশ আশ্রয় দিয়েছে। তাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের ওপর চাপ প্রয়োগ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশ বরাবরই বলে আসছে রোহিঙ্গা সমস্যার পেছনে বাংলাদেশের কোনো ভূমিকা নেই, সমস্যার সৃষ্টি ও কেন্দৃবিন্দু মিয়ানমারে, সমাধানও সেখানে নিহিত।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিচক্ষণ ও দূরদৃষ্টিসম্পন্ন সিদ্ধান্তের মাধ্যমে ১৯৭৩ সালে সিপিএর সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয় বাংলাদেশ। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৪ সালে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সিপিএর নির্বাহী কমিটির চেয়ারপারসন নির্বাচিত হন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সিপিএর চেয়ারপারসন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। পরে তিনি সিপিএর প্যাট্রন ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের বাণী পড়ে শোনান। এরপর বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমানের সংগ্রামী জীবন এবং সিপিএর কার্যক্রম নিয়ে দুটি তথ্যচিত্র দেখানো হয়। দুই তথ্যচিত্রের মাঝে নাচের দল নৃত্যাঞ্চল দলগত নৃত্য পরিবেশন করে।

এ ছাড়া কমনওয়েলথ মহাসচিব প্যাট্রেশিয়া স্কটল্যান্ডের একটি ভিডিও বার্তা দেখানো হয়। অনুষ্ঠানে সিপিএর সেক্রেটারি জেনারেল আকবর খান ও অষ্টম কমনওয়েলথ ইয়ুথ পার্লামেন্টের যুব প্রতিনিধি আয়মান সাদিকও বক্তব্য দেন। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন সিপিএর কোষাধ্যক্ষ ও অস্ট্রেলিয়ার ক্যাপিটাল টেরিটরির লেজিসলেটিভ অ্যাসেম্বলির ডেপুটি স্পিকার ভিকি ডান। পরে `বাংলাদেশ দ্য গোল্ডেন ডেল্টা` শীর্ষক নৃত্যনাট্য পরিবেশিত হয়।

এ ছাড়া `সম্ভাবনাময় বাংলাদেশ` শীর্ষক একটি তথ্যচিত্রও দেখানো হয় অনুষ্ঠানে। এবারের সিপিএ সম্মেলনের কার্যক্রম শুরু হয়েছে গত ১ নভেম্বর। ঢাকার হোটেল র‌্যাডিসনে ২ থেকে ৪ নভেম্বর সিপিএর স্মল ব্রাঞ্চ এবং নির্বাহী কমিটিসহ বিভিন্ন কমিটির বৈঠক হয়। রোহিঙ্গা ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে সমর্থন দিয়ে যাবে বাসস জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতি বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি অব স্টেট থমাস এ শ্যানন বলেছেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে সমর্থন দিয়ে যাবে। রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে যুক্তরাষ্ট্র মিয়ানমারের ওপর চাপ ও আলোচনা অব্যাহত রাখবে।

১০ মাসে ২,৯২৬টি সড়ক দুর্ঘটনা নিহত ৩,৬০৮ আহত ৭,৭৮৬
                                  

॥ মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন ॥

সারাদেশে গত ১০ মাসে ২,৯২৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩,৬০৮ জন নিহত ও ৭,৭৮৬ জন আহত হয়েছেন। নিহতের তালিকায় ৪২৩ নারী ও ৪৬৫ শিশু রয়েছে। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন সড়ক, মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে এসব দুর্ঘটনা ও হতাহতের ঘটনা ঘটে।

বেসরকারি সংগঠন নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির (এনসিপিএসআরআর) নিয়মিত মাসিক জরিপ ও পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। ২২টি জাতীয় দৈনিক, ১০টি আঞ্চলিক সংবাদপত্র এবং আটটি অনলাইন নিউজপোর্টাল ও সংবাদ সংস্থার তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে এই প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে বলে সংগঠনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

এনসিপিএসআরআর-এর তথ্য মতে, গত ১০ মাসের মধ্যে ফেব্রুয়ারিতে সর্বাধিক ৩৭২টি দুর্ঘটনায় ৫৬ নারী ও ৫৮ শিশুসহ মোট ৪৭২ জন নিহত ও ১,০৯৪ জন আহত হয়েছেন। সব চেয়ে কম দুর্ঘটনা ঘটেছে আগস্টে। এ মাসে ২১৭টি দুর্ঘটনায় ২৫ নারী ও ৩১ শিশুসহ মোট ২৭৯ জনের প্রাণহানি ঘটে এবং আহত হন ৫০৩ জন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, জানুয়ারিতে ৩৫০টি দুর্ঘটনায় ৫৪ নারী ও ৫৫ শিশুসহ ৪১৬ জন নিহত ও ১,০১২ জন আহত হয়েছেন। মার্চে ৩৩০টি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৩৬২ জন; যার মধ্যে ৪৯ নারী ও ৫৪ শিশু রয়েছে। আর আহত হয়েছেন ৮৬৫ জন।

এপ্রিলে ৩২০টি দুর্ঘটনায় ৪৭ নারী ও ৪৮ শিশুসহ ৩৪৯ জন নিহত এবং ৮৬১ জন আহত হয়েছেন। মে মাসে দুর্ঘটনা ঘটেছে ৩৪৬টি; এতে ৫২ নারী ও ৫৮ শিশুসহ ৪১০ জন নিহত ও ১,০১৬ জন আহত হন। জুনে ২৬৫টি দুর্ঘটনায় ৩৪ নারী ও ৪২ শিশুসহ ৩৩৩ জন নিহত ও ৬৩২ জন আহত হয়েছেন।

জুলাইয়ে দুর্ঘটনা ঘটেছে ২১৯টি; এতে নিহত ও আহত হয়েছেন যথাক্রমে ২৭৯ ও ৫১৭ জন। নিহতদের মধ্যে ২৭ নারী ও ৩৫ শিশু রয়েছে। সেপ্টেম্বরে ২৪৯টি দুর্ঘটনায় ৩৮ নারী ও ৩৯ শিশুসহ ৩৫৬ জন নিহত এবং ৬০৫ জন আহত হয়েছেন।

অক্টোবরে ২৫৮টি দুর্ঘটনায় ৩৭৯ জন নিহত ও ৬৮১ জন আহত হন। নিহতদের মধ্যে ৪১ নারী ও ৪৫ শিশু রয়েছে। কমিটির তথ্য মতে, চলতি বছরের প্রথম পাঁচ মাসে সড়ক দুর্ঘটনা ও হতাহতের ঘটনা বেশি ঘটলেও জুন মাস থেকে তা কমতে শুরু করে। তবে সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে দুর্ঘটনা ও হতাহতের সংখ্যা আবারো বেড়ে যায়।
জাতীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে বলেন, তাদের পর্যবেক্ষণে বর্তমান সময়ে সড়ক দুর্ঘটনার জন্য ৯টি প্রধান কারণ চিহ্নিত করা হয়েছে।

সেগুলো হচ্ছে, বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো, সড়ক-মহাসড়কে মোটরসাইকেলসহ তিন চাকার যানবাহন চলাচল বৃদ্ধি, স্থানীয়ভাবে তৈরি দেশীয় ইঞ্জিনচালিত ক্ষুদ্রযানে যাত্রী ও পণ্য পরিবহন, বিধি লঙ্ঘন করে ওভারলোডিং ও ওভারটেকিং, জনবহুল এলাকাসহ দূরপাল্লার সড়কে ট্রাফিক আইন যথাযথভাবে অনুসরণ না করা, দীর্ঘক্ষণ বিরামহীনভাবে গাড়ি চালানো, ঝুঁকিপূর্ণ বাঁক ও বেহাল সড়ক, ত্রুটিপূর্ণ গাড়ি চলাচল বন্ধে আইনের যথাযথ প্রয়োগের অভাব এবং অদক্ষ ও লাইসেন্সবিহীন চালক নিয়োগ। তবে সাম্প্রতিক সময়ে দুর্ঘটনা বৃদ্ধির জন্য সংশ্লি­ষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোর যথাযথ তদারকি ও নিয়ন্ত্রণের অভাব এবং সাধারণ মানুষের অসচেতনতাকেই দায়ী করেন।

 

প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ
                                  

॥ মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন ॥

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। কানাডা যাওয়ার পথে সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশের হাইকমিশনে তিনি রাষ্ট্রপতি বরাবর পদত্যাগপত্রটি জমা দেন। এটি বঙ্গভবনে এসে পৌঁছেছে বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব জয়নাল আবেদীন। প্রধান বিচারপতির ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, ছুটিতে থাকা প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা সিঙ্গাপুর থেকে কানাডা গেছেন। তিনি চিকিৎসার জন্য অস্ট্রেলিয়া থেকে সিঙ্গাপুরে যান। কানাডায় প্রধান বিচারপতির ছোট মেয়ে আশা সিনহা রয়েছেন।

প্রধান বিচারপতির ছুটির মেয়াদের শেষ দিন ছিল ১০ নভেম্বর। তিনি গত ১৩ অক্টোবর রাতে অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশে ঢাকা ছাড়েন। সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষণার পূর্ণাঙ্গ রায় গত ১ আগস্ট প্রকাশিত হয়। ওই দিনই পূর্ণাঙ্গ রায়টি সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে দেওয়া হয়। রায় প্রকাশের পর এ নিয়ে সরকার ও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ সংক্ষুব্ধ হয়। বিশেষ করে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার বিভিন্ন পর্যবেক্ষণ নিয়ে ক্ষোভ ও অসন্তোষ প্রকাশ করে আসছিলেন মন্ত্রী, দলীয় নেতা ও সরকারপন্থী আইনজীবীরা। তাঁরা প্রধান বিচারপতির পদত্যাগের দাবিও তোলেন।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় এবং তার কিছু পর্যবেক্ষণের বিষয়ে আইনি পদক্ষেপ নিতে জাতীয় সংসদে একটি প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। বিচারিক সিদ্ধান্তের বিষয়ে সংসদে ওই দিন প্রায় পাঁচ ঘণ্টা আলোচনা হয়, যাতে সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ ১৮ জন সংসদ সদস্য অংশ নেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আদালত তাঁর এখতিয়ারের বাইরে গিয়ে সংসদে পাস হওয়া সংবিধানের সংশোধনী বাতিল করেছেন।

বহিঃবিশ্বে সুনাম অর্জন শত বছরের ভাসমান সবজী ক্ষেত
                                  

 মোঃ হুমায়ুন কবির, নাজিরপুর

দেশের দক্ষিনাঞ্চল পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলার উত্তরাঞ্চল পতিত জমিতে বছরের অধিকাংশ সময় জলাবদ্ধতা থাকায় এখানকার চাষীরা অর্থনৈতিকভাবে খুবই অসহায়ত্ব দিন যাপন করতো । এমন কি জমির বাইরেও বসবাসরত বাড়িঘর ও পানিতে তলিয়ে থাকতো । আজ থেকে শত বছর আগে এখানকার চাষীরা তাদের বিকল্প চিন্তা চেতনা মননশীলতা ও মেধা কাজে লাগিয়ে পতিত জমিতে প্রাথমিকভাবে শুরু করে জলাবদ্ধ জমির উপর ভাসমান সবজী চাষ ।

তা ক্রমশ সফলতার মুখ দেখতে শুরু করে । এটি অত্যন্ত লাভজনক হওয়ায় এই ভাসমান সবজী ক্ষেত সিলেট, গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর সহ দেশের বিভিন্ন হাওড় এলাকা ও বন্যা কবলিত নিম্ন এলাকায় এ সবজী ক্ষেতের ব্যাপকতা বৃদ্ধি পেয়ে এখন দেশের বাইরে এটি আধুনিক কৃষি ক্ষেত্রে একটি নতুন বিপ্লব হিসেবে সুনাম ও সুখ্যাতি কুড়িয়েছে ।

নাজিরপুরের বৈটাকাটা, মনোহরপুর, বিল ডুমুরিয়া, মুগারজোর, গাও খালীর নিম্ন অঞ্চল, বানার জোর সহ এ জলাবদ্ধ জমিতে কৃষকরা ক্ষেত তৈরীতে কচুরিপানা, শেওলা, নারিকেলে ছোবড়ার গুড়া দিয়ে সেড তৈরী করে এবং এগুলো বাঁশ দিয়ে জায়গায় স্থায়ী করার জন্য বেঁধে রাখা হয় । যে কারনে জোয়ার ভাটার সময়েও উঁচু নিচু হলেও সবজী ক্ষেতের কোন ক্ষতি হয় না । বছরে তিনবার একই সেডে এ সবজী চাষ করা সহজলভ্য এবং অর্থনৈতিকভাবেও সাশ্রয়ী । মিষ্টি কুমড়া, লাউ, মরিচ, বেগুন, টমেটো, করল্লা, শশা, সিম, বরবটি, তিন প্রকার কফির চারা সহ অন্যান্য ফসলের উৎপাদন করা সহজতর হয় ।

এগুলো দেশের বৃহত্তর বরিশাল, পিরোজপুর, বাগেরহাট সহ দেশের অন্যান্য অঞ্চলে এ চারাগুলো পাইকাররা কিনে নিয়ে এ সকল অঞ্চলে বিক্রি করে ঐ সকল অঞ্চলের কৃষকরা তাদের জমিতে লাগিতে নাজিরপুর সহ কৃষকরা কৃষি ক্ষেত্রে ব্যাপক ফলন ফলিয়ে বাজারজাত এবং অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনে কৃষক কৃষাণী তাদের পরিবার পরিজন সুখে শান্তিতে পড়া লেখা সহ তাদের মুখে হাসি এবং সুখ স্বাচ্ছন্দ্য ফিরে পেয়ে এ চাষ ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে । বর্তমান আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে লবনাক্ত ছাড়া মিষ্টি পানিতে এ চাষে ব্যাপক সাফল্যতা পেয়ে আজ তা বহিঃবিশ্বে একটি আধুনিক মডেল হিসেবে এর ব্যাপকতা ক্রমশ ছড়িয়ে পড়ছে ।

তবে ভুক্তভুগি কৃষকদের অভিমত কৃষি মন্ত্রনালয়, অধিদপ্তর তথা বাংলাদেশ সরকারের সকল প্রকার সহজ সুলভ ঋণ সহ আর্থিক পৃষ্টপোশকতা পেলে দেশের জলাবদ্ধ এলাকা গুলো ভাসমান সবজী ক্ষেত সোনার ক্ষেতে পরিনত হবে ।

জাতীয় নির্মম নৃশংস !
                                  


॥ মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন ॥

এক যুবককে `আঙ্কেল` বলায় ৪ বছরের শিশু হাসিকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। আছাড় দিয়ে ও ইটের আঘাতে মাথা থেঁতলে দেওয়া হয় শিশুটির। এ ঘটনার পর মুমূর্ষ অবস্থায় শিশুটিকে বরিশাল শেরে বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয়ের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি করা হলে তার মৃত্যু হয়। মর্মান্তিক এ ঘটনাটি ঘটেছে বরিশাল নগরীর পশ্চিম কাউনিয়া এলাকায়। কাউনিয়া থানার ওসি মো. নুরুল ইসলাম সন্ধ্যায় সমকালকে বলেন, ঘাতক যুবক রাজাকে (২৭) গ্রেফতার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।

হাসির খালু রুবেল হোসেন জানান, ইব্রাহিম সিকদারের যমজ দুই মেয়ে ছিল হাসি ও খুশি। এক মাদকাসক্ত যুবকের নির্মমতায় হাসির মৃত্যুতে বোন খুশি যেমন নির্বাক তেমনি পাগলপ্রায় তাদের বাবা-মা। শিশু হাসি পশ্চিম কাউনিয়া এলাকার দারোগা বাড়ির ভাড়াটিয়া বাসিন্দা ইব্রাহিম সিকদারের মেয়ে। ঘাতক রাজা একই এলাকার শাহাদত হোসেনের ছেলে। স্থানীয় বাসিন্দা ও কাউনিয়া থানা পুলিশ জানিয়েছে, রাজা মাদকাসক্তের কারণে দীর্ঘদিন ধরে অস্বাভাবিক জীবনযাপন করছে। সে প্রায়ই বিভিন লোকজনের ওপর হামলা করত। হাসির বাবা ইব্রাহিম সিকদার জানান, তার মেয়ে কোনো যুবককে দেখলে আঙ্কেল বলে ডাক দিত। রাজাকে দেখেও হাসি আঙ্কেল বলে ডাক দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রাজা হাসিকে প্রথমে চড়-থাপ্পড় দিতে থাকে। একপর্যায়ে তাকে আছাড় মারে। এর পর ইট দিয়ে তার মাথা থেঁতলে দেয়। তখন সেখানে কেউ ছিল না। পরে স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে হাসিকে উদ্ধার করে বরিশাল শেরে বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। ঘটনার পর পরই পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘাতক রাজাকে গ্রেফতার করে।

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যার প্রতিবাদে বামাফা’র মানব বন্ধন
                                  


॥ মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন ॥

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যা, ধর্ষণ, নির্যাতন, লুন্ঠন, ভয়াবহ পাশবিক অত্যাচারের প্রতিবাদে একটি বিরাট মানব বন্ধন করেছে বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউন্ডেশন (বিএমএফ)।

১৭ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এ মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান জনাব কাজী রিয়াজুল হক উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন- দিন দিন মায়ানমার সেনাবাহিনীর অত্যাচার বেড়েই চলছে। জ্যান্ত মানুষকে জবাই করা হচ্ছে, লাইন করে যুবতীয় মেয়েদের ধর্ষন করে মেরে ফেলা হচ্ছে, হাজার হাজার গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়া হচ্ছে। আগুনের লেলিহান শিখায় পুড়ছে মানুষ, পুড়ছে ঘরবাড়ি। চারদিকে শুধু লাশের গন্ধ, তাতে ভারী হয়ে উঠছে রাখাইন রাজ্যের বাতাস। সবকিছু হারিয়ে মানুষ জীবনের ভয়ে পালিয়ে আসছে বাংলাদেশে। তিনি উক্ত বর্বরোচিত অত্যাচারের তীব্র নিন্দা জানান এবং মায়ানমার সরকারকে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব প্রদানপূর্বক ফিরিয়ে নেয়ার জন্য বিশ্ব নেত্রীবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানান। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোঃ আব্দুর রহিম খান বলেন, মায়ানমারে রোহিঙ্গাদের কান্নায় পৃথিবীর আকাশ-বাতাস আজ ভারি হয়ে উঠছে। নারী-পুরুষ ও শিশু বাঁচাও বলে আর্তচিৎকার করছে। গণহত্যা করা হচ্ছে অসংখ্য নিষ্পাপ নারী-শিশু, যুবক ও বৃদ্ধদের।

ধর্ষিত এবং নির্যাতিত হচ্ছে অসংখ্য মা-বোন। খালি হচ্ছে হাজার মায়ের কোল। মায়ানমার সেনাবাহিনীর অত্যাচারে প্রায় ৪ লাখেরও অধিক রোহিঙ্গা। এই সংকটময় মুহুর্তে বাংলাদেশের জনগণকে রোহিঙ্গাদের পাশে মানবিক সাহায্য নিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। সংগঠনের মহানচিব এ্যাড. কামাল হোসেন বুলিষ্ঠ বক্তব্য রাখেন।

উক্ত, অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারন সম্পাদক মোঃ রোকনুজ্জামান ভূইয়া রকি, ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি জনাব মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, ঢাকা মহানগর উত্তরের সাধরন সম্পাদক মোঃ ছলিম উদ্দিন, মিসেস লাভলী আক্তার, মোঃ জুয়েল রানা, মোঃ ইমরান হোসেন, মোঃ দেলেওয়ার হোসেন, মোঃ কাইয়ুম ও সাব্বির আহমেদ রনিসহ আরো অনেক নেত্রীবৃন্দ।

উল্লেখ্য যে, সম্প্রতি বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউন্ডেশন রোহিঙ্গাদের মাঝে ত্রাণ বিতরন করে। এসময় সংগঠনের চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শিশুটিকে হত্যার পর ঝুলিয়ে রাখা হয় জানালায় ॥ গ্রেফতার ১
                                  



॥ মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন ॥

সাড়ে চার বছরের রুহি করিম বাবাকে ফোন করে বলেছিল, `আব্বু আমি স্কুল থেকে বাসায় এসেছি। নিচে খেলতে যাব। আম্মু যেতে দিচ্ছে না। তুমি আম্মুকে বলে দাও, আমাকে যেতে দিক।` এটাই ছিল বাবা রেজাউল করিমের সঙ্গে রুহির শেষ কথা। ফোনটি রেখেই সে বাসা থেকে নিচে নেমে যায় খেলতে। এর এক ঘণ্টা পর বাসা থেকে প্রায় ১০০ গজ দূরে একটি পরিত্যক্ত টিনের ঘরের মধ্যে শিশুটির লাশ পাওয়া যায়। রুহিকে গলাটিপে হত্যার পর লুঙ্গি পেঁচিয়ে ঘরের জানালায় ঝুলিয়ে রাখা হয়। নির্মম এ হত্যাকান্ড ঘটেছে রাজধানীর কদমতলীর দক্ষিণ মাতুয়াইল এলাকায়। হত্যায় জড়িত সন্দেহে হাসিবুর রহমান হাসিব নামে এক কিশোরকে গ্রেফতার করেছে কদমতলী থানা পুলিশ। পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রুহিকে হত্যার কথা স্বীকার করে হাসিব বলেছে, রুহিসহ একই এলাকার চার শিশু তার কাছে আইসক্রিম খেতে চায়। সে দিতে রাজি না হওয়ায় তিন শিশু চলে গেলেও রুহি আইসক্রিমের বায়না ধরেই থাকে।

সে ভাবে, রুহিকে টিনের ঘরে আটকে রেখে তার বাবার কাছে মুক্তিপণ হিসেবে কিছু টাকা আদায় করবে। এ ভাবনা থেকেই রুহিকে রাস্তা থেকে ওই টিনশেড বাড়ির মধ্যে নিয়ে যায়।
সেখানে রুহি চিৎকার করলে গলাটিপে ধরে হাসিব। কিছুক্ষণ পরই শিশুটি মারা যায়।

কদমতলী থানার ওসি বলেন, স্বজনরা শিশুটিকে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে ওই পরিত্যক্ত টিনের ঘরে ঝুলন্ত অবস্থায় পায়। সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে মাতুয়াইল শিশু মাতৃসদন হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

শিশুটির বাবা রেজাউল করিম বলেন, তার কোনো শত্রু নেই। হাসিবের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন তিনি। দক্ষিণ মাতুয়াইলের ৩ নম্বর গলির পাঁচতলা একটি বাড়ির তৃতীয় তলায় দুই মেয়ে ও স্ত্রী সানজিদা পারভীনকে নিয়ে ভাড়া থাকেন রেজাউল। ছোট ছেলের বয়স ১ বছর ৪ মাস। রেজাউল জানান, তিনি মাতুয়াইল হাসপাতালের ক্যান্টিন ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত। মা সানজিদাকে না জানিয়ে দুপুর ১২টার দিকে নিচে খেলতে চলে যায় সে। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সানজিদা তাকে ফোনে জানান, মেয়েকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। সানজিদা বাসা থেকে নিচে নেমে প্রতিবেশীদের সহায়তায় আশপাশে খোঁজাখুঁজি করেন। তখন এক নারী প্রতিবেশী জানান, হাসিব নামে এক যুবকের সঙ্গে টিনশেডের পাশে পানি খেছিল রুহি।
সন্দেহ হওয়ায় দুপুর ১টার দিকে টিনশেডের একটি ঘরে খোলা দরজা দিয়ে এক নারী প্রতিবেশী ঢোকেন। তখন ঘরের জানালার সঙ্গে শিশুটি গলায় লুঙ্গি পেঁচানো অবস্থায় ঝুলছিল। মেয়েকে সেখান থেকে নামিয়ে মাতুয়াইল হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ছোট্ট মেয়েটিকে হারিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন মা-বাবাসহ স্বজনরা। ফুটফুটে শিশুটির চলে যাওয়া যেন কেউ মানতে পারছেন না। আর্তনাদ করতে থাকেন সবাই। পুরো হাসপাতালে নেমে আসে শোকের ছায়া।

প্রধান বিচারপতি অস্ট্রেলিয়া গেলেন
                                  



॥ মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন ॥

এক মাসেরও বেশি সময় ছুটি কাটাতে অস্ট্রেলিয়ার পথে রওনা হওয়ার সময় রাজধানীর হেয়ার রোডের বাড়ির সামনে অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের একটি লিখিত বক্তব্য দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। প্রধান বিচারপতির লিখিত বক্তব্যটি সংক্ষিপ্ত হলেও তাতে বর্তমান পরিস্থিতির অনেক কিছুই উঠে এসেছে।

লিখিত বক্তব্যে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেছেন, ‘আমি সম্পূর্ণ সুস্থ আছি। কিন্তু ইদানিং একটা রায় নিয়ে রাজনৈতিক মহল, আইনজীবী, বিশেষভাবে সরকারের মাননীয় কয়েকজন মন্ত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে ব্যক্তিগতভাবে যেভাবে সমালোচনা করেছেন, এতে আমি সত্যিই বিব্রত।’

 

 

ডিজিটাল হেল্থ সার্ভিস বিষয়ে উদ্বুদ্ধকরন সভা
                                  



গত ৫ অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কনফারেন্স হলে ডেভলপমেন্ট স্টুাডিস বিভাগে এ্যাডভিন কানাডা আয়োজিত ডিজিটাল হেল্থ বিষয়ে ঢাকা জেলার ২০টি এনজিও’র নীতি নির্ধারক পর্যায়ের ব্যক্তিদের নিয়ে এক সেনসিটিজেশন সেশন এর আয়োজন করা হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এ্যাডভিন কানাডা এর কান্ট্রি ডাইরেক্টর জনাব জামালুদ্দিন সাহেব ডিজিটাল হেল্থ বিষয়ে মাল্টিমিডিয়াতে বক্তব্য উপস্থাপন করেন এ্যাডভিন কানাডা’র প্রকল্প পরিচালক জনাব এনামুল হক। তিনি ডিজিটাল হেল্থ বিষয়ের এ্যাডভিন কানাডা বাংলাদেশে কাজের সুবিধা এবং উক্ত প্রকল্পে কিভাবে এনজিওগুলো অন্তর্ভূক্ত হতে পারে। সে বিষয়ে বিস্তারিত বিবরন তুলে ধরেন।

প্রোগ্রামে বিভিন্ন এনজিও যেমন- জনসেবা কেন্দ্র, এ্যন্টিড্রাগ ফাউন্ডেশন, এএসডি, এসএসএস সহ প্রায় ২০টি এনজিও’র প্রতিনিধিগন উপস্থিত ছিলেন। উপস্থাপনা শেষে ডিজিটাল হেল্থ বিষয়ে প্রশ্নের উত্তর সেশনে উক্ত বিষয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন এ্যাডভিন কানাডা এর কান্ট্রি ডাইরেক্টর। সমগ্র অনুষ্ঠানটি সমন্বয় করেন জনসেবা কেন্দ্রের ডাইরেক্টর প্রোগ্রাম এন্ড রিসার্চ জনাব ডক্টর মোঃ শফিকুর রহমান।

- প্রেস বিজ্ঞপ্তি

 


   Page 1 of 3
     জাতীয়
তাজরিন ট্র্যাজেডির পাঁচ বছর স্মরণ করলো নিহতদের শোকার্ত সহকর্মীরা
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা, বিরল রোগে আক্রান্ত জহিরুল বাঁচতে চায়
.............................................................................................
জাতীয় মানবাধিকার কমিশন চেয়ারম্যানের এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার
.............................................................................................
বেপরোয়া রোহিঙ্গা রামুতে এক বাঙালি নিহত ॥ উখিয়ায় আহত ৪
.............................................................................................
সাংবাদিক হত্যায় বিচার না হওয়া দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ দশম
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের কারণে বনের ক্ষতি দেড়’শ কোটি টাকা
.............................................................................................
ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকে চাপ দিন : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
১০ মাসে ২,৯২৬টি সড়ক দুর্ঘটনা নিহত ৩,৬০৮ আহত ৭,৭৮৬
.............................................................................................
প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ
.............................................................................................
বহিঃবিশ্বে সুনাম অর্জন শত বছরের ভাসমান সবজী ক্ষেত
.............................................................................................
জাতীয় নির্মম নৃশংস !
.............................................................................................
মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যার প্রতিবাদে বামাফা’র মানব বন্ধন
.............................................................................................
শিশুটিকে হত্যার পর ঝুলিয়ে রাখা হয় জানালায় ॥ গ্রেফতার ১
.............................................................................................
প্রধান বিচারপতি অস্ট্রেলিয়া গেলেন
.............................................................................................
ডিজিটাল হেল্থ সার্ভিস বিষয়ে উদ্বুদ্ধকরন সভা
.............................................................................................
ভারতের সঙ্গে ৪৫০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তি
.............................................................................................
নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের পাশে মানবাধিকার খবর ও উৎস রমনাপার্ক
.............................................................................................
বিশ্বের ১৮ নারী নেতার তালিকায় শেখ হাসিনা
.............................................................................................
চাষী নজরুল মরণোত্তর সম্মাননা পেলেন
.............................................................................................
সীমাখালীর চিত্রা নদীর উপর বেইলী ব্রিজের নির্মাণ কাজ শেষের পথে
.............................................................................................
ভাগডোমায় আশ্রায়ন প্রকল্প না করার দাবীতে মানববন্ধন আবু তাহের, দিনাজপুর
.............................................................................................
সড়ক দূর্ঘটনায় স্কুলছাত্র নিহত
.............................................................................................
এনডিপি’র ইফতার মাহফিলে খালেদা জিয়া আদালতের পরিবেশ নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ
.............................................................................................
বিশ্ব পরিবেশ দিবসে প্রধানমন্ত্রী কোনোভাবেই সুন্দরবনের ক্ষতি নয়
.............................................................................................
দ্বিতীয়বার আনন্দ পুরষ্কার পেলেন ড. আনিসুজ্জামান
.............................................................................................
বনানীতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী ধর্ষণ অবশেষে ধর্ষক সাফাত ও সাদমান গ্রেফতার
.............................................................................................
কক্সবাজারকে আন্তর্জাতিক পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তুলব- প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
সিংড়ায় মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই সম্পন্ন
.............................................................................................
এক নজরে ঢাকা-দিল্লী ২২ চুক্তি
.............................................................................................
নতুন বছরে দেশ আরও এগিয়ে যাবে... প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
মধ্যরাতে ৬ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে ফেসবুক
.............................................................................................
‘অটিজম চ্যাম্পিয়ন’ সায়মা ওয়াজেদ
.............................................................................................
আইপিইউ সম্মেলন ঘিরে নিরাপত্তার চাদরে রাজধানী
.............................................................................................
শেখ হাসিনার ভারত সফর : সতর্ক দৃষ্টি রাখছে চীন
.............................................................................................
জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভা বুধবার
.............................................................................................
১৯৭৮ চুক্তি অনুযায়ী রোহিঙ্গা বিষয়ে বাংলাদেশকেই ভুমিকা নিতে হবে
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

Editor & Publisher: Rtn. Md Reaz Uddin
Mobile:+88-01711391530, Email: md.reaz09@yahoo.com Corporate Office
53,Modern mansion(8th floor),Motijheel C/A, Dhaka
E-mail:manabadhikarkhabar@gmail.com,manabadhikarkhabar34@yahoo.com,
Tel:+88-02-9585139
Mobile: +8801978882223 Fax: +88-02-9585140
    2015 @ All Right Reserved By manabadhikarkhabar.com    সম্পাদকীয়    Adviser List

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]