| বাংলার জন্য ক্লিক করুন

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এবং সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ আর নেই

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ আর নেই। আজ (রোববার) সকাল পৌনে ৮টার দিকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতরের (আইএসপিআর) পরিচালক আব্দুল্লাহ ইবনে জায়েদ জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সকাল ৭টা ৪৫ থেকে ৮টার মধ্যে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

 জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুও সাবেক রাষ্ট্রপতির মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এর আগে শনিবার এরশাদের ছোট ভাই ও সাবেক মন্ত্রী জি এম কাদের জানিয়েছিলেন, ওনার লিভার যেটা কাজ করছিল না, এখনো সেই অবস্থায় আছে। ওনাকে শিরার মাধ্যমে শরীরে পুষ্টি দেওয়া হচ্ছে এখনো পর্যন্ত। ব্লাডে ওনার যে সমস্যা এবং সার্বিকভাবে ওনার যে বয়স হয়ে গেছে -এ দুটোর কারণে ডাক্তাররা মনে করছেন, রিকভারি যত দ্রুত হওয়ার কথা ছিল বা অন্যান্য ক্ষেত্রে যা হয় তার ক্ষেত্রে সেভাবে রিকভারি হচ্ছে না, অনেকটা স্লো।

৯০ বছর বয়সী এরশাদ রক্তে সংক্রমণসহ লিভার জটিলতায় ভুগছিলেন। গত ২২ জুন সিএমএইচে ভর্তি করা হয় তাকে। এর আগেও তিনি একাধিকবার দেশ-বিদেশে চিকিৎসা নেন।

রংপুর-৩ আসন থেকে বারবার নির্বাচিত এ সংসদ সদস্যের জন্ম ১৯৩০ সালের ১ ফেব্রুয়ারি। তিনি রংপুর জেলার দিনহাটায় জন্মগ্রহণ করেন। এরশাদ বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান, এককালীন প্রধান সামরিক প্রশাসক ও রাষ্ট্রপতি ছিলেন। তিনি জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা। ১৯৯০ সালে ব্যাপক গণ-আন্দোলনের মুখে ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর জেলও খাটতে হয় তাকে।

১৯৮১ সালে ৩০ মে, জিয়াউর রহমান নিহত হওয়ার পর এরশাদের রাজনৈতিক অভিলাষ প্রকাশ পায়। ১৯৮২ সালে ২৪ মার্চ এরশাদ রাষ্ট্রপতি আব্দুস সাত্তারের নির্বাচিত সরকারকে হটিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করেন। ১৯৮৩ সালের ১১ ডিসেম্বর নাগাদ তিনি প্রধান সামরিক প্রশাসক হিসেবে দেশ শাসন শুরু করেন। ওইদিন তিনি দেশের রাষ্ট্রক্ষমতা রাষ্ট্রপতি বিচারপতি এএফএম আহসানুদ্দিন চৌধুরীর কাছ থেকে নিজের অধিকারে নেন।

এরশাদ দেশে উপজেলা পদ্ধতি চালু করেন এবং ১৯৮৫ সালে প্রথম উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৮৬ সালে তিনি জাতীয় পার্টি প্রতিষ্ঠা করেন এবং এ দলের মনোনয়ন নিয়ে ১৯৮৬ সালে পাঁচ বছরের জন্য দেশের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন।

প্রবল গণআন্দোলনের মুখে ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হন সাবেক সামরিক শাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। দিনটিকে আওয়ামী লীগ `গণতন্ত্র মুক্তি দিবস`, বিএনপি `গণতন্ত্র দিবস` এবং এরশাদের জাতীয় পার্টি `সংবিধান সংরক্ষণ দিবস` হিসেবে পালন করে। কোনো কোনো রাজনৈতিক দল দিনটিকে `স্বৈরাচার পতন দিবস` হিসেবেও পালন করে থাকে।

রাজনীতিতে বহুল বিতর্কিত এ ব্যক্তি মুক্তিযুদ্ধেও অংশ নেননি। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ মুক্তিযুদ্ধ শুরুর সময় এরশাদ ছুটিতে রংপুর ছিলেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ না করে পাকিস্তান চলে যান। পাকিস্তান থেকে আটকে পড়া বাঙালিরা যখন ১৯৭৩ সালে দেশে ফিরে আসেন তখন তিনিও প্রত্যাবর্তন করেন।

এরশাদ ও তার দল জাতীয় পার্টি বেশ কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশের রাজনীতিতে রীতিমতো হাস্যরসের বস্তুতে পরিণত হয়েছিল। একেক সময় একেক ধরনের সিদ্ধান্ত এবং নির্বাচনের আগ মুহূর্তে ‘অসুস্থ বোধ’ রাজনৈতিক অঙ্গনে নানা প্রশ্নের জন্ম দেয়।

১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে তিনি কারাগার থেকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। ওই নির্বাচনে রংপুরের পাঁচটি আসন থেকে নির্বাচিত হন তিনি। বিএনপি সরকার তার বিরুদ্ধে কয়েকটি দুর্নীতি মামলা দায়ের করে। তার মধ্যে কয়েকটিতে তিনি দোষীসাব্যস্ত হন এবং সাজাপ্রাপ্ত হন।

১৯৯৬ সালের সাধারণ নির্বাচনেও তিনি পাঁচটি আসন থেকে নির্বাচিত হন। ছয় বছর আবরুদ্ধ থাকার পর ১৯৯৭ সালের ৯ জানুয়ারি তিনি জামিনে মুক্তি পান। তার প্রতিষ্ঠিত জাতীয় পার্টি ২০০০ সালে তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে, যার মধ্যে মূল ধারার চেয়ারম্যান হন তিনি।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচনে সংসদে প্রধান বিরোধী দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে জাতীয় পার্টি। তার স্ত্রী রওশন এরশাদ প্রধান বিরোধীদলীয় নেতা হন।

গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয়ের পর টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে মনোনীত হন। জোটগতভাবে নির্বাচন করে ২২টি আসনে জয়ী হয় জাতীয় পার্টি।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এবং সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ আর নেই
                                  

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ আর নেই। আজ (রোববার) সকাল পৌনে ৮টার দিকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতরের (আইএসপিআর) পরিচালক আব্দুল্লাহ ইবনে জায়েদ জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সকাল ৭টা ৪৫ থেকে ৮টার মধ্যে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

 জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুও সাবেক রাষ্ট্রপতির মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এর আগে শনিবার এরশাদের ছোট ভাই ও সাবেক মন্ত্রী জি এম কাদের জানিয়েছিলেন, ওনার লিভার যেটা কাজ করছিল না, এখনো সেই অবস্থায় আছে। ওনাকে শিরার মাধ্যমে শরীরে পুষ্টি দেওয়া হচ্ছে এখনো পর্যন্ত। ব্লাডে ওনার যে সমস্যা এবং সার্বিকভাবে ওনার যে বয়স হয়ে গেছে -এ দুটোর কারণে ডাক্তাররা মনে করছেন, রিকভারি যত দ্রুত হওয়ার কথা ছিল বা অন্যান্য ক্ষেত্রে যা হয় তার ক্ষেত্রে সেভাবে রিকভারি হচ্ছে না, অনেকটা স্লো।

৯০ বছর বয়সী এরশাদ রক্তে সংক্রমণসহ লিভার জটিলতায় ভুগছিলেন। গত ২২ জুন সিএমএইচে ভর্তি করা হয় তাকে। এর আগেও তিনি একাধিকবার দেশ-বিদেশে চিকিৎসা নেন।

রংপুর-৩ আসন থেকে বারবার নির্বাচিত এ সংসদ সদস্যের জন্ম ১৯৩০ সালের ১ ফেব্রুয়ারি। তিনি রংপুর জেলার দিনহাটায় জন্মগ্রহণ করেন। এরশাদ বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান, এককালীন প্রধান সামরিক প্রশাসক ও রাষ্ট্রপতি ছিলেন। তিনি জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা। ১৯৯০ সালে ব্যাপক গণ-আন্দোলনের মুখে ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর জেলও খাটতে হয় তাকে।

১৯৮১ সালে ৩০ মে, জিয়াউর রহমান নিহত হওয়ার পর এরশাদের রাজনৈতিক অভিলাষ প্রকাশ পায়। ১৯৮২ সালে ২৪ মার্চ এরশাদ রাষ্ট্রপতি আব্দুস সাত্তারের নির্বাচিত সরকারকে হটিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করেন। ১৯৮৩ সালের ১১ ডিসেম্বর নাগাদ তিনি প্রধান সামরিক প্রশাসক হিসেবে দেশ শাসন শুরু করেন। ওইদিন তিনি দেশের রাষ্ট্রক্ষমতা রাষ্ট্রপতি বিচারপতি এএফএম আহসানুদ্দিন চৌধুরীর কাছ থেকে নিজের অধিকারে নেন।

এরশাদ দেশে উপজেলা পদ্ধতি চালু করেন এবং ১৯৮৫ সালে প্রথম উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৮৬ সালে তিনি জাতীয় পার্টি প্রতিষ্ঠা করেন এবং এ দলের মনোনয়ন নিয়ে ১৯৮৬ সালে পাঁচ বছরের জন্য দেশের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন।

প্রবল গণআন্দোলনের মুখে ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হন সাবেক সামরিক শাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। দিনটিকে আওয়ামী লীগ `গণতন্ত্র মুক্তি দিবস`, বিএনপি `গণতন্ত্র দিবস` এবং এরশাদের জাতীয় পার্টি `সংবিধান সংরক্ষণ দিবস` হিসেবে পালন করে। কোনো কোনো রাজনৈতিক দল দিনটিকে `স্বৈরাচার পতন দিবস` হিসেবেও পালন করে থাকে।

রাজনীতিতে বহুল বিতর্কিত এ ব্যক্তি মুক্তিযুদ্ধেও অংশ নেননি। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ মুক্তিযুদ্ধ শুরুর সময় এরশাদ ছুটিতে রংপুর ছিলেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ না করে পাকিস্তান চলে যান। পাকিস্তান থেকে আটকে পড়া বাঙালিরা যখন ১৯৭৩ সালে দেশে ফিরে আসেন তখন তিনিও প্রত্যাবর্তন করেন।

এরশাদ ও তার দল জাতীয় পার্টি বেশ কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশের রাজনীতিতে রীতিমতো হাস্যরসের বস্তুতে পরিণত হয়েছিল। একেক সময় একেক ধরনের সিদ্ধান্ত এবং নির্বাচনের আগ মুহূর্তে ‘অসুস্থ বোধ’ রাজনৈতিক অঙ্গনে নানা প্রশ্নের জন্ম দেয়।

১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে তিনি কারাগার থেকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। ওই নির্বাচনে রংপুরের পাঁচটি আসন থেকে নির্বাচিত হন তিনি। বিএনপি সরকার তার বিরুদ্ধে কয়েকটি দুর্নীতি মামলা দায়ের করে। তার মধ্যে কয়েকটিতে তিনি দোষীসাব্যস্ত হন এবং সাজাপ্রাপ্ত হন।

১৯৯৬ সালের সাধারণ নির্বাচনেও তিনি পাঁচটি আসন থেকে নির্বাচিত হন। ছয় বছর আবরুদ্ধ থাকার পর ১৯৯৭ সালের ৯ জানুয়ারি তিনি জামিনে মুক্তি পান। তার প্রতিষ্ঠিত জাতীয় পার্টি ২০০০ সালে তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে, যার মধ্যে মূল ধারার চেয়ারম্যান হন তিনি।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচনে সংসদে প্রধান বিরোধী দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে জাতীয় পার্টি। তার স্ত্রী রওশন এরশাদ প্রধান বিরোধীদলীয় নেতা হন।

গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয়ের পর টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে মনোনীত হন। জোটগতভাবে নির্বাচন করে ২২টি আসনে জয়ী হয় জাতীয় পার্টি।

লাইফ সাপোর্টে এরশাদ
                                  

রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়েছে। বিষয়টি জানিয়েছেন জাপার সাবেক মহাসচিব জিয়াউদ্দিন বাবলু। তিনি বলেন, আজ (বৃহস্পতিবার) বিকেল সোয়া ৪টায় এরশাদকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়।

এদিকে এরশাদের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া কামনা করেছেন তার স্ত্রী জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান এবং বিরোধীদলীয় উপনেতা বেগম রওশন এরশাদ।

আজ বেলা আড়াইটায় জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি এবং জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান এবং বিরোধীদলীয় উপনেতা বেগম রওশন এরশাদ এমপি সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের আইসিইউতে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে দেখতে যান

এসময় জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, সুনীল শুভরায়, মেজর (অব.) খালেদ আকতার, আলমগীর সিকদার লোটন, যুগ্ম মহাসচিব এসএম ইয়াসিরসহ জাতীয় পার্টির বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের আইসিইউ থেকে বের হয়ে বেগম রওশন এরশাদ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া কামনা করেন। শুক্রবার দেশের সব মসজিদ, মন্দির, গির্জা, প্যাগোডাসহ ধর্মীয় উপসনালয়ে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রোগমুক্তি এবং সুস্থতা কামনায় দোয়া করতে অনুরোধ জানিয়েছেন বেগম রওশন এরশাদ।

এর আগে জানা যায়, রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত, বিদেশে নেয়ার অবস্থা নেই। তবে উন্নতির আশা রয়েছে বলে জানিয়েছেন তার ভাই ও পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদের। এরশাদের শারীরিক সুস্থতার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার জাতীয় পার্টির বনানী অফিসে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা নিয়ে ব্রিফ করেন তার ভাই ও পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদের। তিনি বলেন, এরশাদের শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত, বিদেশে নেয়ার অবস্থা নেই। তবে উন্নতির আশা করছেন চিকিৎসকরা।

গত ২২ জুন বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কের বাসভবনে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে দ্রুত সিএমএইচে নেয়া হয়।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে এরশাদের রক্তে হিমোগ্লোবিনের সমস্যা ধরা পড়ে। দুই দফায় সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা নিয়ে এলেও তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়নি। এই দফায় সিএমএইচে ভর্তি হলে এরশাদের ফুসফুস ও কিডনিতে সংক্রমণ ধরা পড়ে।

আশা করছি হোলি আর্টিজানে হামলার দ্রুত বিচার কাজ শেষ হবে : মনিরুল
                                  

হলি আর্টিজানে হামলার মতো ঘটনা যেন পুনরাবৃত্তি না ঘটে সে লক্ষ্যে পুলিশ ও কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট কাজ করছে বলে জানিয়েছেন কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান ও ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, আমরা বলতে চাই, এই হামলার সঙ্গে যারা নব্য জেএমবির জড়িত ছিল, তারা সবাই নিহত হয়েছে। অনেকে অভিযানে নিহত ও জীবিত গ্রেপ্তার হয়। আমরা আশা করছি, দ্রুত বিচার কাজ শেষ হবে। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির মাধ্যমে নিহতের পরিবার তাদের অপূরণীয় ক্ষতির ক্ষেত্রে একটু হলেও মানসিক সান্ত্বনা পাবেন।

আজ সোমবার সকাল সোয়া ১০টায় রাজধানীর গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার তিন বছর উপলক্ষে পুষ্পস্তক অর্পণ ও নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনার পর সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

হলি আর্টিজানে হামলার পর তিন বছরে বাংলাদেশে জঙ্গিদের অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে মনিরুল ইসলাম  বলেন, হলি আর্টিজানে হামলার পরপরই শোলাকিয়ায় ঈদের জামাতে হামলার চেষ্টা হয়। একই কায়দায় আরও কয়েকটি সহিংস ও নৃশংস হামলার পরিকল্পনা ছিল। তবে আমরা আমাদের ইনটেলিজেন্স তথ্যের মাধ্যমে, প্রি অ্যাক্টিভ অপারেশনের মাধ্যমে, প্রো অ্যাক্টিভ ইনভেস্টিগেশনের মাধ্যমে, তাদের সে পরিকল্পনাগুলো নস্যাৎ করে দিয়েছি।

তিনি আরো বলেন, জঙ্গিবাদের যে সাংগঠনিক কাঠামো তা আমরা বিভিন্ন অভিযানে ভেঙে দিয়েছি। তবে জঙ্গিদের আমরা দমন করতে পারলেও জঙ্গিবাদ মতাদর্শে বিশ্বাস করে কিংবা উগ্রবাদ বা জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ ব্যক্তি এখনও সমাজে বিদ্যমান। তারা অনুকূল পরিবেশ পেলে কিংবা কখনও সক্ষমতা অর্জন করে, ওই মতাদর্শে বিশ্বাসীদের কারণে ঝুঁকি থাকবে। সেই ঝুঁকির মাত্রা নির্ভর করে তাদের সক্ষমতার মাত্রার ওপর। তবে বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে কখনও কখনও জঙ্গিরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠার চেষ্টা করে। কিন্তু সেটা যাতে না পারে সেজন্য আইনি প্রক্রিয়ার পাশাপাশি নাগরিক উদ্যোগের মাধ্যমে জঙ্গিবাদের মতবাদ ঠেকানো সম্ভব হবে।

আমরা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছি দায়িত্বশীল জাতি হিসেবে : প্রধানমন্ত্রী
                                  

জাপান সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, চরম সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও দায়িত্বশীল জাতি হিসেবে আমরা জোর করে বিতাড়িত মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিকদের আশ্রয় দিয়েছি। তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের চরম উসকানি ও সংকটের মধ্যেও বাংলাদেশ এই পরিস্থিতিতে নৈরাজ্য ও আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতা বাড়তে দেয়নি।

আজ বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সকালে জাপান সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টোকিওর হোটেল ইমপেরিয়ালে আয়োজিত ২৫তম আন্তর্জাতিক নিকেই সম্মেলনে প্রধান বক্তার বক্তব্যে এ কথা বলেন। ‘এশিয়ার ভবিষ্যৎ লক্ষ্য: একটি নতুন বৈশ্বিক শৃঙ্খলায় সচেষ্ট হওয়া, চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা’ বিষয়ে এবারের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

উদীয়মান এশিয়ার অগ্রগতির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, বিশ্ব সম্প্রদায় আমাদের দিকে তাকাচ্ছে। উদীয়মান এশিয়া বিশ্বকে শান্তি ও সমৃদ্ধির দিকে নিয়ে যাবে, নতুন করে গড়ে তুলবে।

সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, চরম সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও দায়িত্বশীল জাতি হিসেবে আমরা জোর করে বিতাড়িত মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিকদের আশ্রয় দিয়েছি। আমরাই শুধু মানবতার ডাকে সাড়াই দিইনি, আমরা এই সচেতনতার সঙ্গে সংকটটিকে নৈরাজ্য ও আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতায় বাড়তে দিইনি।

বিশ্ব শান্তি ও সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রা নিয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মানব সভ্যতা যুদ্ধের ভয়াবহতা এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের থাবায় জর্জরিত হয়েছে। তারপরও পৃথিবী সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। কেননা, মানবতা ও ইতিবাচক শক্তি সফল হতে বাধ্য।

ঢাকেশ্বরী মন্দিরে ধর্মীয় সম্মেলনে শ ম রেজাউল করিম
                                  

                                  বক্তব্য রাখছেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ.ম. রেজাউল করিম

ধর্ম, বর্ণ, নির্বিশেষে অধিকার প্রতিষ্ঠায় স্বর্ণালী অধ্যায় সৃষ্টি করেছে সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক :
গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, মাঝে মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা সাম্প্রদায়িক শক্তি মসজিদে, মন্দিরে, গির্জায় আঘাত হানে। ওদের কোনো ধর্ম নেই, ওরা সন্ত্রাসী, ওরা অসুর। ওদের বিরুদ্ধে আমাদের সবাইকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক সরকার কাজ করছে। শেখ হাসিনার পাশে সম্মিলিতভাবে সবাইকে দাঁড়াতে হবে। ১০ মে রাজধানীর ঢাকেশ্বরী মন্দিরে বাংলাদেশ সেবাশ্রম ফাউন্ডেশনের ১১তম বার্ষিক ধর্মীয় সম্মেলন ২০১৯ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। বাংলাদেশ সেবাশ্রম ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় কমিটি এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। শ ম রেজাউল করিম বলেন, শেখ হাসিনার সরকার মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সরকার। শেখ হাসিনার সরকার হিন্দু, বৌদ্ধ, মুসলিম, খ্রিষ্টানের অধিকার প্রতিষ্ঠার সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বাস করেন, এ দেশ হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টানের দেশ। এ দেশ কোনো একক ধর্মীয় সম্প্রদায়ের দেশ নয়। এ দেশের সব ধর্মাবলম্বী সব অধিকার ভোগ করবে, এটাই আমাদের সংবিধানের কথা। সাম্প্রদায়িক রাজনীতির প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করে জিয়াউর রহমান বাংলাদেশে আবার খান এ সবুর, শাহ আজিজ, মওলানা আব্দুল মান্নান, এদেরকে রাজনীতিতে নিয়ে আসলেন। জামায়াতে ইসলামকে মাওলানা আব্দুর রহিমের নেতৃত্বে আবার বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠার সুযোগ করে দিলেন। সংবিধানের ৩৮ অনুচ্ছেদকে বাতিল করে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি চালুর ব্যবস্থা করলেন। মতিউর রহমান
নিজামী, আলী আহসান মুজাহিদ, দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী, সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী, আব্দুল আলিমসহ স্বাধীনতাবিরোধী চিহ্নিত রাজাকার খুনিদের বাংলাদেশের রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিত করে। আবার কারো কারো গাড়িতে বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়ে জাতিকে, ৩০ লাখ শহীদকে অপমানিত করা হয়েছিল। দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের পরে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আবার সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, আমরা পরিষ্কারভাবে বলতে চাই শেখ হাসিনা সরকার সব ধর্ম, বর্ণ, নির্বিশেষে সবার অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য স্বর্ণালী অধ্যায় সৃষ্টি করেছে। আজকে দেশে মুসলিম সম্প্রদায়, হিন্দু সম্প্রদায়, বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান সবার জন্য রাষ্ট্রীয় সব সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে। জঙ্গিদের আমরা নিভৃত করতে পেরেছি কিন্তু নিঃশেষ করতে পারিনি উল্লেখ করে শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘অধিকাংশ জঙ্গিরা হচ্ছে স্বাধীনতাবিরোধী সাম্প্রদায়িক প্রতিক্রিয়াশীল মৌলবাদী। তাদের বিরুদ্ধে সব ধর্ম, বর্ণের মানুষ মিলে সোচ্চার হতে হবে। তাহলেই আমাদের ত্রিশ লাখ শহীদের রক্ত স্বার্থক হবে, দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রম স্বার্থক হবে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আরাধ্য সাধনা সফল হবে। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. মিহির কান্তি মজুমদার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য ও জগন্নাথ হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. অসীম সরকার, মহানগর সর্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কিশোর কুমার ম-ল প্রমুখ।

এতিম শিশুদের সঙ্গে ইফতার করলেন প্রধানমন্ত্রী
                                  

              ইফতারের আগে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়- পিআইডি

মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন :
যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, আলেম-ওলামা, এতিম ও প্রতিবন্ধী শিশু, ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় আহতসহ আত্মীয়-পরিজনদের নিয়ে ইফতার করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১৯ মে গণভবন প্রাঙ্গণে সবাইকে নিয়ে এ ইফতারে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন কমিটি ও জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির সদস্যরাও এ ইফতারে অংশ নেন। ইফতারের কিছুক্ষণ আগে আয়োজনস্থলে আসেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর দেওয়া সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদক-দুর্নীতি, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ মুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ দেশের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চান। ইফতারের আগে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অংশ নেন।

ইউনাইটেড ব্রাদার্স ফোরাম’র উদ্যোগে সুবিধাবঞ্চিত পথ শিশুদের মাঝে ইফতার ও পোশাক বিতরন
                                  

                 শিশুদের মাঝে ইফতার ও ঈদবস্ত্র বিতরণ করছেন মানবাধিকার খবর সম্পাদক

মানবাধিকার খবর প্রতিবেদন : তরুণ সামাজিক সংগঠন ইউনাইটেড ব্রাদার্স ফোরাম (ইউবিএফ) এর উদ্যোগে সুবিধাবঞ্চিত পথ শিশুদের নিয়ে `খুশির ইফতার` এবং পোশাক বিতরন আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়ে গেল। গত  ১৭ মে ২০১৯, শুক্রবার ঢাকার কেন্দীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মোঃ রিয়াজ উদ্দিন, সম্পাদক ও প্রকাশক, `মানবাধিকার খবর`, জনাব মোঃ আব্দুস সাত্তার, ভাইস প্রেসিডেন্ট, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড, বংশাল প্রাঞ্চ ও সাইফুদ্দিন পাভেল, সভাপতি, কোম্পানীগঞ্জ স্টুডেন্ট ফাউন্ডেশন। ইউবিএফ এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন এর সভাপতিত্বে অনুিষ্ঠত এ আয়োজনে আরও উপস্থিত  ছিলেন ইউবিএফ এর উপদেষ্টা ও বিশিষ্ট সমাজসেবক জনাব মোঃ মোফাজ্জল হোসেন ও ইউবিএফ এর অন্যান্য সদস্যবৃন্দ অনুষ্ঠানে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের ও তাদের পরিবারের সদস্যদের মাঝে ইফতার ও পোশাক বিতরণের পাশাপাশি পথশিশুদের সহায়তায় ইউবিএফ এর ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরা হয়।

দেশে ফিরলেন প্রধানমন্ত্রী
                                  
অনলাইন ডেস্ক: শনিবার (১১ মে) সকাল ৯টা ৫০ মিনিটে তাকে বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটটি শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

লন্ডনের স্থানীয় সময় শুক্রবার (১০ মে) সন্ধ্যা ৬টা ৩৫ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে হিথ্রো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

সে সময় বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম।

প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর বাণিজ্য ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম প্রমুখ।

এর আগে গত ১ মে (বুধবার) দশদিনের সরকারি সফরে লন্ডন যান প্রধানমন্ত্রী।

 

 
যুব সমাজকে মানবতার সেবায় নিয়োজিত করলে অপরাধ কমবে: আইনমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক: আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, আর্ত মানবতার সেবায় নিয়োজিত করতে আমাদের যুব সমাজকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে যুব সমাজকে আর্তমানবতার সেবায় নিয়োজিত করা গেলে আমাদের সামাজিক অপরাধসমূহ কমে যাওয়ার পাশাপাশি সমাজে শান্তি-শৃঙ্খলা ফিরে আসবে।
তিনি বলেন, সামাজিক বন্ধনও সুদৃঢ় হবে। কারণ মানবতার কল্যাণে নিবেদিত ব্যক্তিরা সামাজিক অপরাধ করতে পারে না।
গত ৮ মে বুধবার রাজধানীর হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ মিলনায়তনে বিশ্ব রেড ক্রস ও রেড ক্রিসেন্ট দিবস-২০১৯ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি।
মন্ত্রী বলেন, হেনরী ডুনান্ট যুদ্ধ ক্ষেত্রে আহতদের সেবা ও নিহতদের সৎকার করার উদ্দেশ্যে রেডক্রস ও রেড ক্রিসেন্ট প্রতিষ্ঠা করলেও এর সেবা ও কর্মপরিধি বর্তমানে ব্যাপক এবং বিস্তৃত। রেড ক্রিসেন্ট এখন একটি ভরসার জায়গা। দুর্যোগে জনগণের বন্ধু এখন রেড ক্রিসেন্ট। তাই হেনরী ডুনান্ট পৃথিবীতে একজন সফল ও স্বার্থক সমাজ সেবক। তার মানবিকতা ও বিশাল ত্যাগই তাকে ইতিহাসের পাতায় মহামানবের স্থান করে দিয়েছে।
তিনি বলেন, আসলে আর্তমানবতার সেবায় নিজেকে বিলিয়ে দেওয়ার মধ্যেই রয়েছে জীবনের স্বার্থকতা। জীবনের উদ্দেশ্য শুধু নিজেকে সুখী করা নয় বরং উদ্দেশ্য হওয়া উচিত অন্যকে সুখী করা। পৃথিবীতে দান করে কিংবা মানবসেবা করে কেউ কখনো গরীব হয়নি, বরং গরীব মানসিকতার মানুষরাই কখনো কারও জন্য কিছু করতে পারেনি। পৃথিবীতে সেই মানুষগুলোই সবচেয়ে সুখের কাছাকাছি যেতে পেরেছে, যারা নিজেদেরকে আর্তমানবতার সেবায় বিলিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছে। নিজের জন্য নয় সমাজ ও মানুষের সেবা করার মাঝেই রয়েছে সবচেয়ে বড় আনন্দ।
আনিসুল হক বলেন, মানবসেবাই বড় ধর্ম তাই আসুন মানবের কল্যাণে, অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াই। সকলের পদযাত্রা হোক মানবতার কল্যাণে, সত্য, সুন্দর ও মানবতার জয়গানে।
তিনি বলেন, পৃথিবীতে ইতিহাসে যুগেযুগে অনেক জ্ঞানীগুণী সমাজসেবক ও মহৎপ্রান মানুষ জন্মগ্রহন করেছেন। রেডক্রস ও রেডক্রিসেন্টের প্রতিষ্ঠাতা হেনরী ডুনান্ট সেই সব শ্রেষ্ঠ মানুষের একজন। যার আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে এখন বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ অসহায় ও বিপন্ন মানবতার সেবায় নিয়োজিত। যিনি জাতি ধর্ম নির্বিশেষে পৃথিবীর সকল মানুষকে এক পতাকাতলে একই কর্মসূচীতে সামিল করেছিলেন। সাম্য মৈত্রীর বন্ধনে আবদ্ধ করেছিলেন মানব সন্তানদের।
বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান হাফিজ আহমদ মজুমদার এমপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে সোসাইটির ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. হাবিবে মিল্লাত এমপি, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. শাহ্ কামাল বক্তৃতা করেন।

গভীর নিম্নচাপে রূপ নিয়েছে ‘ফণী’, বন্দরে ৩ নম্বর সর্তকতা
                                  

অনলা্ইন ডেস্ক: ঝড় ‘ফণী’ গভীর নিম্নচাপে রূপ নিয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এ কারণে সর্তকতা নামিয়ে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

আজ শনিবার দুপুর ১টার দিকে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে আবহাওয়া অফিসে ঘূর্ণিঝড়ের সর্বশেষ অবস্থান ও পরিস্থিতি সম্পর্কে এ তথ্য জানান অধিদপ্তরের পরিচালক আয়েশা খাতুন।

তিনি বলেন, মোংলা এবং পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত নামিয়ে তার পরিবর্তে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। তেমনিভাবে চট্টগ্রাম ৭ নম্বর বিপদ সংকেত নামিয়ে তার পরিবর্তে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এ ছাড়া কক্সবাজারে ৪ নম্বর সতর্কতা সংকেত নামিয়ে তার পরিবর্তে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। অর্থাৎ চট্টগ্রাম, পায়রা, মোংলা এবং কক্সবাজার এই চার সমুদ্রবন্দরেই বর্তমানে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে বলে জানান অধিদপ্তরের পরিচালক।

আয়েশা খাতুন বলেন, ‘অমাবশ্যা আছে এবং আমাদের কোস্টাল রিজিওনে বায়ুচাপের তারতম্যের আধিক্য আছে, সেই কারণেই আমরা যে উপকূলীয় জেলাসমূহ আছে যেমন- চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, ভোলা, হাতিয়া, সন্দ্বীপ, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহে ২-৪ ফুট উচ্চতার বায়ুতাড়িত জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।’

‘এ কারণে বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে যে সমস্ত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার আছে, তাদেরকে আমরা এখনো নিরাপদ আশ্রয়ে থাকার পরামর্শ দিয়েছি’, বলেন অধিদপ্তরের পরিচালক।

তিনি বলেন, ‘ঘুর্ণিঝড় ফণী যে আমাদের ঢাকা-ফরিদপুর অঞ্চলসহ পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে ছিল-এটি দুর্বল হয়েছে এবং দুর্বল হওয়ার কারণে আমার বলেছি যে এটা আমাদের গভীর নিম্নচাপ আকারে পাবনা, টাঙ্গাইল এবং ময়মনসিংহ এলাকার ওপরে আছে এবং এর আশপাশের এলাকায় আছে। 
এবং আমরা বিপদ সংকেত নামিয়ে ফেলতে বলেছি। তো সেই ক্ষেত্রে যারা সাইক্লোন সেল্টারে আছে, সেই হিসেবে আমাদের অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ব্যবস্থা নিবে, সিদ্ধান্ত নিবেন।’

আয়েশা খাতুন আরও বলেন, ‘আজকে সকাল থেকে এবং দুপুর ১২টা পর্যন্ত দেশের অনেক স্থানে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টিপাত হয়েছে এবং অনেক স্থানে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হয়েছে। আমাদের পূর্বাভাস হচ্ছে যে এখনো এই গভীর নিম্নচাপটির প্রভাবেও দেশের অনেক স্থানে বৃষ্টি হতে পারে ঝড়ো হাওয়াসহ। যার গতিবেগ থাকতে পারে ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার।’

 মানবাধিকার খবরঃ মোঃ রবিউল ইসলাম

ঘূর্ণিঝড় ফণী: যে সব নির্দেশনা দিলেন প্রধানমন্ত্রী
                                  

অনলা্ইন ডেস্ক: শক্তিশালী হয়ে দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরের অবস্থান করছে ‘ফণী’। মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে সাত নম্বর বিপদ সংকেত দেখানো হয়েছে। তাছাড়া চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরকে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত এবং কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এছাড়া ফণীর কারণে দেশের সব নদীবন্দরে নৌযান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

এ অবস্থায় অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ বাংলাদেশে আঘাত হানলে ক্ষতি কমিয়ে আনতে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোকে কাজ করতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (২ মে) সচিবালয়ে বিভিন্ন দুর্যোগে গণমাধ্যমের করণীয় বিষয়ে বাংলাদেশ ক্লাইমেট চেঞ্জ জার্নালিস্ট ফোরামের (বিসিজেএফ) নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় একথা জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় আসন্ন দুর্যোগ মোকাবিলায় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগকে ক্ষতি কমিয়ে আনার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আমাদের দুর্যোগ মোকাবিলায় প্রস্তুতির পাশাপাশি এ নির্দেশনা বাড়তি শক্তি হিসেবে কাজ করবে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. শাহ্ কামাল বলেন, ১৯টি জেলা আক্রান্ত হতে পারে, সে সব জেলার মানুষ নিজেরাই সচেতন হয়েছে। আমরা পূর্বপ্রস্তুতি নিয়েছি। শুকনো খাবার পাঠানো হয়েছে, মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। আশ্রয়কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে। আমরা একটি প্রাণও হারাতে চাই না। সে অনুযায়ী প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি।

আবহাওয়া বিভাগ জানায়, ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৬০ কিলোমিটার যা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১৮০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে।

আবহাওয়া বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, ফণীর আঘাত বেশ মারাত্মক হতে পারে। ফণীর প্রভাবে জলোচ্ছ্বাসও হতে পারে। ডুবে যেতে পারে নিম্নাঞ্চল।

উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে যাতে স্বল্প সময়ের নোটিশে তারা নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে পারে। সেই সঙ্গে তাদের গভীর সাগরে বিচরণ না করতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া বিভাগ জানায়, ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৬০ কিলোমিটার যা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১৮০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে।

আবহাওয়া বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, ফণীর আঘাত বেশ মারাত্মক হতে পারে। ফণীর প্রভাবে জলোচ্ছ্বাসও হতে পারে। ডুবে যেতে পারে নিম্নাঞ্চল।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’র কারণে ৪ মে শনিবারের এইচএসসি ও সমমানের নির্ধারিত সকল পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। আগামী ৮ মে’র পরীক্ষা  ১৪ মে মঙ্গলবার যথাসময়ে সময়ে অনুষ্ঠিত হবে।

বৃহস্পতিবার (২ মে) ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক এ তথ্য জানান।

রুটিন অনুযায়ী ৪ মে সকালে উচ্চতর গণিত প্রথমপত্র ও ইসলাম শিক্ষা পরীক্ষা ছিল। আর বিকেলে গার্হস্থ্য বিজ্ঞান প্রথম পত্রের পরীক্ষা ছিল। এছাড়া মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীন জীববিজ্ঞান প্রথম পত্রের (তত্ত্বীয়) পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল।

পরিবর্তিত রুটিন অনুযায়ী ৪ মে’র বাতিলকৃত পরীক্ষা আগামী ১৪ মে মঙ্গলবার একই সময়ে অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীন জীববিজ্ঞান প্রথম পত্রের (তত্ত্বীয়) পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল।

অন্যদিকে ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ মোকাবিলায় সেনাবাহিনীকে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ। আজ বৃহস্পতিবার সকালে সাভারে এক অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেন, ‘দুর্যোগের পূর্বে আমাদের কোথাও যদি কোনো দায়িত্ব দেওয়া হয় অথবা দুর্যোগ চলাকালীন বা পরবর্তী সময়ে যেকোনো পরিস্থিতিতে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে আশেপাশের এলাকায় বা তাদের দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় যেকোনো দায়িত্ব পালনের জন্য আমরা প্রস্তুত রয়েছি।’

সেনাবাহিনীর সকল ডিভিশন এবং এরিয়া হেড কোয়ার্টারকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে জানিয়ে সেনাপ্রধান বলেন, ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় বেসামরিক প্রশাসনের সঙ্গেও সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

 

নিহত দুজন জঙ্গি দাবি বেনজীর আহমেদের
                                  

মোহাম্মদপুরে ‘জঙ্গি আস্তানা’ অভিযান

 

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বছিলায় ‘জঙ্গি আস্তানায়’ বিস্ফোরণে দুজন নিহত হয়েছে বলে ধারণা করছেন র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ। তবে ফরেনসিক পরীক্ষার পর মৃতের সংখ্যার ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যাবে বলে জানান। নিহত দুজন ‘জঙ্গি’ বলেও নিশ্চিত করেছেন তিনি।

গতকাল রোববার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটা থেকে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে বাড়িটি ঘিরে রাখা হয়। বাড়িটির ভেতর থেকে গুলি ও দুটি বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া গেছে বলে দাবি করে র‍্যাব। বাড়িটির আশপাশের লোকজনকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। বছিলার মেট্রো হাউজিং এলাকায় বাড়িটি অবস্থিত। মেট্রো হাউজিংয়ের দক্ষিণ-পূর্ব কোনার শেষ প্রান্তে একতলা টিনশেডের ভবনটির অবস্থান। জঙ্গি অবস্থানের তথ্য জানার পরিপ্রেক্ষিতেই বাড়িটি ঘিরে অভিযান শুরু করে র‍্যাব-২।

রায়েরবাজার বধ্যভূমির ঠিক পেছনে র‍্যাব-২-এর নতুন সদর দপ্তর থেকে মাত্র আধা কিলোমিটার দূরে বাড়িটি অবস্থিত। বাড়িটির ঠিক পাশে একটি দোতলা ভবন রয়েছে। বেশির ভাগ প্লট ফাঁকা। কিছু বাড়ি নির্মাণাধীন।

আজ সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে র‌্যাবের ডিজি বেনজীর আহমেদ ‘জঙ্গি আস্তানা’ পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষে বেলা ১১ টার দিকে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, তিনটি পায়ের নমুনা পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, দুজন নিহত হয়েছেন। ফরেনসিক পরীক্ষায় বোঝা যাবে কয় জন মারা গেছেন।

এর আগে আজ সকালে র‍্যাবের পরিচালক (গণমাধ্যম) মুফতি মাহমুদ খান সাংবাদিকদের বলেন, বাড়িটির ভেতর দু-তিনজন ‘জঙ্গি’ মারা গেছেন বলে ধারণা করা যাচ্ছে।

তবে র‍্যাব-২-এর একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, বাড়ির ভেতর দুজন ‘জঙ্গির’ ছিন্নভিন্ন মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

বেনজীর আহমেদ বলেন, এ ঘটনায় বাড়ির মালিক ও তত্ত্বাবধানকারীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। বাড়ির মালিক জানিয়েছেন, বাসাটি চলতি মাসের ১ তারিখে ভাড়া নেন নিহত ব্যক্তিরা। 

তবে ভাড়া দেওয়ার সময় তাঁদের কাছ থেকে জাতীয় পরিচয়পত্রের কোনো কপি নেওয়া হয়নি। গতকাল রাতে বাড়ির তত্ত্বাবধানকারীকে র‌্যাব বাড়িটি থেকে বের করার সময় র‌্যাবকে লক্ষ্য করে বাড়ির ভেতর থেকে গুলি ছোড়া হয়।

তিনি বলেন, নিহত ব্যক্তিরা জঙ্গি। তবে ‘জঙ্গিরা’ কোন সংগঠনের সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

সিনিয়র সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ আর নেই
                                  

থাইল্যান্ডে চিকিৎসাধীন প্রখ্যাত সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ আর নেই (ইন্নালিল্লাহি...রাজিউন)। শনিবার বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টা ১০ মিনিটে ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার মৃত্যুর খবর মেয়ে হুমায়রা মেঘলা গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৯ বছর। হৃদরোগ, কিডনি ও উচ্চ রক্তচাপজনিতসহ বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছিলেন মাহফুজ উল্লাহ।

 

এর আগে গত ১০ এপ্রিল গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ব্যাংককে নেয়া হয়। অষ্ট্রেলিয়া প্রবাসী বড় মেয়ে ডা. মেঘলা ও জামাতা মাহফুজ উল্লাহর সঙ্গে যান।

গত ২ এপ্রিল সকালে ধানমণ্ডির গ্রিন রোডে মাহফুজ উল্লাহ তার নিজ বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়।

পরে শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় মাহফুজ উল্লাহকে উন্নত চিকিৎসার জন্য থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ দেশের একজন প্রথিতযশা সাংবাদিক। ছাত্রজীবনে বাম রাজনীতি করা মাহফুজ উল্লাহ ষাটের দশকে ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি ছিলেন।

তিনি সাংবাদিকতা ছাড়াও খণ্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছেন। এছাড়া তিনি ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়েও সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগে শিক্ষকতায় নিয়োজিত ছিলেন।

কাজের প্রলোভন দেখিয়ে ভারতে পাচার কারাভোগ শেষে দেশে ফিরেছে ২৯ বাংলাদেশি
                                  

মানবাধিকার খবর’র উদ্যোগে ফেরার অপেক্ষায় ও উদ্ধার প্রক্রিয়ায় আরো ৮ নারী ও শিশু

ভারত থেকে ফিরে মোঃ রিয়াজ উদ্দিন :
ভালো কাজের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন সময় ভারতে পাচার হওয়া ২৯ জন বাংলাদেশি যুবক, কিশোর ও নারী বিভিন্ন মেয়াদে ভারতে কারাভোগ শেষে দেশে ফিরেছেন। ৫ এপ্রিল সকালে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে দেশে ফিরে এসেছেন তারা। বেলা ১১টার দিকে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ তাদেরকে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়ায় বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের হাতে হস্তান্তর করে।
ইমিগ্রেশন পুলিশ আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদেরকে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়। পরবর্তীতে বেনাপোল পোর্ট থানা কাগজপত্র যাচাই শেষে তাদের পরিবারের কাছে পৌঁছে দিতে রাইটস যশোর নামে একটি এনজিও সংস্থার হাতে তুলে দিয়েছে বলে পুলিশ জানায়। ফেরত আসা বাংলাদেশিদের মধ্যে ১১ জন কিশোর ও ১৫ জন যুবক ও ৩ জন নারী রয়েছে। এসব নারী,কিশোর ও যুবকদের ভারতের কর্ণাটক রাজ্য ও মহারাষ্ট্রের মুম্বাই থেকে উদ্ধার করা হয়। তাদের বাড়ি সাতক্ষীরা, যশোর, নড়াইল, খুলনা ও হবিগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। তারা হচ্ছে- খুলনা জেলার জাফর চৌধুরীর ছেলে জুয়েল চৌধুরী (২৩), মাজেদুল ইসলামের ছেলে সফিকুল ইসলাম (৩৩), বরকত শেখের ছেলে তরিকুল ইসলাম (২৩), আমিন সরদারের ছেলে লিটন মোহাম্মাদ (২৮),

শাহাদতের ছেলে রফিকুল ইসলাম (২৬), আব্দুল ছাত্তার খানের ছেলে বাবু খান (২৭), রফিকুল ইসলামের ছেলে রিফাত খান (২২), রেজাউল ইসলামের ছেলে সাগর হোসেন (২৪), আখতার খানের ছেলে রাকিব খান (২৪), রেজাউল শেখের ছেলে হাসান শেখ (২২), জাহাঙ্গীর হাওলাদারের ছেলে রনি হাওলাদার (২৩), যশোর জেলার আমজাদ হোসেনের ছেলে সাজ্জাদ মোল্যা (২৬), আব্দুল হোসেনের ছেলে জামাল মোল্যা (২৪), জহুর আলী সরদারের ছেলে নজরুল ইসলাম (২৩), গফফার গাজির ছেলে ইমাম হোসেন (২২), আবুল হোসেনের ছেলের আল- আমিন (২৩), হাবিবুর রহমানের ছেলে সাদ্দাম বেপারী (২৮), আব্দুল খায়েরের ছেলে আলামিন (২৫), মহাসিন শেখের ছেলে রাজিব শেখ (২০), আবুল খালেকের ছেলে সাব্বির হোসেন (২২), আলমগীর মোলার ছেলে আশরাফ হোসেন (২৫), বাগেরহাট জেলার মহিমুদ এর ছেলে নুর ইসলাম (৪৬), আছাদের ছেলে সিরাজুল ইসলাম (৪৬) ও সাতক্ষীরা জেলার সবেদ আলীর ছেলে আব্দুল গনি (৩৮)।ফেরত আসা হাবিবুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, গত তিন বছর আগে ভালো কাজের প্রলোভনে তারা দালালের মাধ্যমে ভারতে যায়। ভারতের বেঙ্গালুরু শহরে যাওয়ার পর সেখানকার পুলিশের হাতে তারা আটক হয়। পরে পুলিশ তাদের জেলে প্রেরণ করে। অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে আদালত তাদের আড়াই বছর জেল দেয়। সাজার মেয়াদ শেষে তাদের দেশে ফেরত পাঠানো হয়। 

এ বিষয়ে এনজিও সংস্থা রাইটস যশোরের এরিয়া কোয়ার্ডিনেটর তৌফিকুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, ফেরত আসাদের ইমিগ্রেশন ও বেনাপোল পোর্ট থানার আনুষ্ঠানিকতা শেষে যশোর তাদের তত্বাবধানে রাখা হবে।
এরপর প্রত্যেকের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হবে। ফেরত আসা বাংলাদেশিরা যদি পাচারকারীদের শনাক্ত করে মামলা করতে চায় সেক্ষেত্রে আইনি সহয়তা দেওয়া হবে বলেও জানান এই এনজিও কর্মকর্তা।বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাশার জানান, সংসারে অভাব-অনটনের কারণে আড়াই বছর আগে এ সব বাংলাদেশি কিশোর-যুবকরা ভাল কাজের আশায় দালালের খপ্পরে পড়ে বিভিন্ন সীমান্তে অবৈধ পথে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের বেঙ্গালুর শহরে যায়। সেখানে রাজমিস্ত্রী, রং মিস্ত্রির কাজ করার সময় সে দেশের পুলিশের কাছে ধরা পড়ে।
আদালতের মাধ্যমে বছর অন্ধ্র প্রদেশের ভিজলুর কর্নেটো জেলখানায় থাকে। সেখান থেকে তালাশ অ্যাসোসিয়েশন নামে ভারতের একটি এনজিও সংস্থা তাদের জেল থেকে ছাড়িয়ে নিজেদের শেল্টার হোমে রাখে। পরবর্তীকালে দু’দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন আইনে তাদের দেশে ফেরার ব্যবস্থা করা হয়। ৫ এপ্রিল সকালে ভারতীয় পুলিশ তাদের বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশে ফেরত পাঠায়। এদের সবাইকে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।
এরআগে ৪ এপ্রিল এই ২৯ জন বাংলাদেশিকে বিমানযোগে হায়দরাবাদ থেকে কোলকাতায় আনা হয়। গত ৫ এপ্রিল কলকাতাস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে চ্যান্সারী প্রধান বিএম জামাল হোসেন, বাংলাদেশের এনজিও সংস্থা রাইটস যশোরের নির্বাহী পরিচালক বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক এবং মানবাধিকার খবর পত্রিকার সম্পাদক মোঃ রিয়াজ উদ্দিনের উপস্থিতিতে পাচার ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গুরুত্¦পূর্ণ আলোচনা হয়।
ভারতের বহুল প্রচারিত বাংলা দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকার ৬ এপ্রিল সংখ্যায় এক সংবাদে বলা হয়, কোনও না কোনও সময়ে কর্নাটক পুলিশের হাতে তারা ধরা পড়েছিলেন বেআইনি ভাবে ভারতে থাকা বা অনুপ্রবেশের জন্য। কিছু দিন জেলও খাটতে হয়েছে। এ বার দুই দেশের চুক্তি মেনে ফিরিয়ে দেওয়া হল ওই ২৯ জনকে।
৪ এপ্রিল কলকাতা বিমানবন্দরে বাইরে অপেক্ষা করছিল রাজ্য পুলিশের বাস।
সেই বাসে তাঁদের পৌঁছে দেওয়া হয় বেনাপোল সীমান্তে। ওই যুবকেরা সীমান্ত পেরিয়ে যাওয়া পর্যন্ত সঙ্গে ছিলেন কর্নাটক পুলিশের তিন অফিসার।
এ ছাড়া ভারতের দিল্লি থেকে উদ্ধার হওয়া বাংলাদেশী ৪ নারী ও কলকাতায় উদ্ধার হওয়া ২ শিশু হৃদয় হোসেন আপন (১১), রাব্বি হাসান (১৩) আগামী ১৫ দিনের মধ্যে সকল আইনি প্রক্রিয়া শেষে দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। ৪ নারী বর্তমানে দিল্লির স্টপ সেফ হোমে ও দুই শিশু কলকাতার লক্ষিকান্তপুরে নুর আলী সেফ হোমে অবস্থান করছেন। অপর দিকে মাদারীপুর শিবচরের মায়া (২৪), বাগেরহাটের কচুয়া কুলসুম আক্তার (১৫) পাচার হয়ে বর্তমানে ভারতের মুম্বাইতে রয়েছেন বলে জানা গেছে। তাদেরকে উদ্ধারের জন্য মানবাধিকার খবর জোর তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। আশা করছি, খুব শীঘ্রই তাদেরকে উদ্ধার করে আইনি প্রক্রিয়া শেষে, দেশে ফিরিয়ে এনে অবিভাবকদের হাতে তুলে দেওয়া সম্ভব হবে।

গণপূর্তমন্ত্রীর পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালেকের মৃত্যুতে মানবাধিকার খবর সম্পাদকের গভীর শোক
                                  

গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিমের পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালেকের মৃত্যুতে মানবাধিকার খবর পরিবারের পক্ষ থেকে পত্রিকার সম্পাদক মো. রিয়াজ উদ্দিন গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং তার শোক-সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।
উল্লেখ্য আজ রবিবার সকাল ৭টা ২০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মন্ত্রীর পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আব্দুল খালেক ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি...রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯০ বছর।
সকাল ১০টার দিকে রাজধানীর বেইলি রোডস্থ মন্ত্রীর সরকারি বাসভবনে মরহুমের প্রথম নামাজে জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। তাকে পিরোজপুরের নাজিরপুরে গ্রামের বাড়িতে দাফন করা হবে। তিনি অসংখ্য শুভাকাঙ্খক্ষী ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে প্রধানমন্ত্রীকে বিএনপিকর্মীর চিঠি
                                  

মানবাধিকার খবর ডেস্ক
কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আবেদন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছেন বিএনপির এক কর্মী। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গিয়ে নিজ হাতে ১৪ মার্চ দিয়ে আসা চিঠিতে শামসুল আলম নামে ওই কর্মী প্রধানমন্ত্রীকে সালাম জানিয়ে লিখেছেন, আমি আপনার (প্রধানমন্ত্রীর) ছোট ভাই শেখ রাসেল না হতে পারি আপনার ভাইয়ের বয়সী একজন ছোট ভাই হিসাবে ও দেশের একজন নাগরিক হিসাবে আপনার নিকট আবেদন করতে চাই। আপনি বেগম খালেদা জিয়ার মামলা, মামলার রায় এবং কারাবাস সকল বিষয়ে অবগত আছেন। তিনি অসুস্থ, বয়স্ক, দেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলীয় নেতা ও বিএনপির চেয়ারপাসন-এই বিষয়গুলো বিবেচনা করে তাকে মুক্তি দিন। আমি তাকে মুক্তি দেওয়ার জন্য আপনার নিকট বিনীতভাবে অনুরোধ করছি। শামসুল আলম আরো লিখেছেন, যেহেতু বিপদ-আপদের কোন হাত পা নেই, আল্লাহ্ সবকিছুর নিয়ন্ত্রক। আপনাকে কথা দিলাম, ওয়াদা করলাম, আপনার কোন কারণে বা বিপদে যদি কারো নিকট কোন বিষয়ে আবেদন করতে হয় আমি করবো। আপনার একজন ছোট ভাই হিসাবে, আমার মত ছোট মানুষ আপনার কাজে লাগতে পারলে নিজকে ধন্য মনে করবো। শুধু তাই নয়, মানব কল্যাণে যে কোন বিষয়ে আমার মত ছোট মানুষকে আপনি ডাকলে আমি অবশ্যই সাড়া দিবো এবং হাজির হয়ে যাব। খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে আপনাকে আমি বিশেষ ভাবে অনুরোধ করছি। চিঠিতে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট প্রধানমন্ত্রীর পরিবারের সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন আলম। উল্লেখ্য, সাবেক ছাত্রনেতা শামসুল আলম ঢাকা মহানগর বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত ও লক্ষ্মীপুর জেলা বিএনপির সদস্য। তিনি বলেন, দলের নেতারা বলছেন আইনী উপায়ে বেগম জিয়ার মুক্তি সম্ভব নয়। অন্যদিকে কর্মসূচিও নেই। তাই বিবেকের দংশন থেকেই প্রধানমন্ত্রীর কাছে নেত্রীর মুক্তি চেয়ে চিঠি দিয়েছি।


   Page 1 of 5
     জাতীয়
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এবং সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ আর নেই
.............................................................................................
লাইফ সাপোর্টে এরশাদ
.............................................................................................
আশা করছি হোলি আর্টিজানে হামলার দ্রুত বিচার কাজ শেষ হবে : মনিরুল
.............................................................................................
আমরা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছি দায়িত্বশীল জাতি হিসেবে : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
ঢাকেশ্বরী মন্দিরে ধর্মীয় সম্মেলনে শ ম রেজাউল করিম
.............................................................................................
এতিম শিশুদের সঙ্গে ইফতার করলেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
ইউনাইটেড ব্রাদার্স ফোরাম’র উদ্যোগে সুবিধাবঞ্চিত পথ শিশুদের মাঝে ইফতার ও পোশাক বিতরন
.............................................................................................
দেশে ফিরলেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
যুব সমাজকে মানবতার সেবায় নিয়োজিত করলে অপরাধ কমবে: আইনমন্ত্রী
.............................................................................................
গভীর নিম্নচাপে রূপ নিয়েছে ‘ফণী’, বন্দরে ৩ নম্বর সর্তকতা
.............................................................................................
ঘূর্ণিঝড় ফণী: যে সব নির্দেশনা দিলেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
নিহত দুজন জঙ্গি দাবি বেনজীর আহমেদের
.............................................................................................
সিনিয়র সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ আর নেই
.............................................................................................
কাজের প্রলোভন দেখিয়ে ভারতে পাচার কারাভোগ শেষে দেশে ফিরেছে ২৯ বাংলাদেশি
.............................................................................................
গণপূর্তমন্ত্রীর পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালেকের মৃত্যুতে মানবাধিকার খবর সম্পাদকের গভীর শোক
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে প্রধানমন্ত্রীকে বিএনপিকর্মীর চিঠি
.............................................................................................
আমার মন্ত্রণালয়কে দেখতে চাই স্বচ্ছ, দুর্নীতি, ভোগান্তি ও হয়রানিমুক্ত
.............................................................................................
মানবাধিকার খর্বের কোনো বিষয়ে সরকারের বিন্দুমাত্র হস্তক্ষেপ নেই : গণপূর্তমন্ত্রী
.............................................................................................
পিআইবির মহাপরিচালক শাহ আলমগীর আর নেই
.............................................................................................
জাবিতে ক্লাস নিলেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ
.............................................................................................
মহাজোটের অভাবনীয় জয় ঃ বিশ্ব নেতাদের অভিনন্দন
.............................................................................................
মহান বিজয় দিবস
.............................................................................................
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠ নির্বাচনের জন্য সকল দলকে সুমতির পরিচয় দিতে হবে
.............................................................................................
সাফজয়ী কিশোরদের ৪ লাখ করে টাকা দিলেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বাংলাদেশ প্রশংসিত প্রস্তাবিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নিবর্তনমূলক বিধানগুলো নিয়ে উদ্বেগ
.............................................................................................
এবার যমজ ছেলের বাবা হলেন রেলমন্ত্রী
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীকে ও সংবাদ সম্মেলনে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া মানবতাবোধ বাংলাদেশের কাছে বিশ্বের শেখার আছে
.............................................................................................
সৌদি থেকে নির্যাতনের শিকার ৮৩ নারী দেশে ফিরেছেন
.............................................................................................
২০১৮-২০১৯ অর্থ বাজেট পাস
.............................................................................................
মাদকবিরোধী অভিযানঃ বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের উদ্বেগ
.............................................................................................
ছাদ কেটে আমিন জুয়েলার্স এ চুরি
.............................................................................................
মহাকাশে এক টুকরো বাংলাদেশ
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তায় কাজ করছে ১৬০০ মাঝি
.............................................................................................
ডিইউজে নির্বাচনে গনি-শহিদ পরিষদ পূর্ণ প্যানেল বিজয়ী
.............................................................................................
হাসপাতালে জাফর ইকবালের পাশে প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বিনা ভাড়ায় দশ মাস বসবাস
.............................................................................................
মনিকাকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য কামনা
.............................................................................................
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ৫ বছরের কারাদন্ড খালেদা জিয়ার
.............................................................................................
তাজরিন ট্র্যাজেডির পাঁচ বছর স্মরণ করলো নিহতদের শোকার্ত সহকর্মীরা
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা, বিরল রোগে আক্রান্ত জহিরুল বাঁচতে চায়
.............................................................................................
জাতীয় মানবাধিকার কমিশন চেয়ারম্যানের এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার
.............................................................................................
বেপরোয়া রোহিঙ্গা রামুতে এক বাঙালি নিহত ॥ উখিয়ায় আহত ৪
.............................................................................................
সাংবাদিক হত্যায় বিচার না হওয়া দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ দশম
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের কারণে বনের ক্ষতি দেড়’শ কোটি টাকা
.............................................................................................
ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকে চাপ দিন : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
১০ মাসে ২,৯২৬টি সড়ক দুর্ঘটনা নিহত ৩,৬০৮ আহত ৭,৭৮৬
.............................................................................................
প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ
.............................................................................................
বহিঃবিশ্বে সুনাম অর্জন শত বছরের ভাসমান সবজী ক্ষেত
.............................................................................................
জাতীয় নির্মম নৃশংস !
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

Editor & Publisher: Rtn. Md Reaz Uddin
Corporate Office
53,Modern mansion(8th floor),Motijheel C/A, Dhaka
E-mail:manabadhikarkhabar34@gmail.com,manabadhikarkhabar34@yahoo.com,
Tel:+88-02-9585139
Mobile: +8801978882223 Fax: +88-02-9585140
    2015 @ All Right Reserved By manabadhikarkhabar.com    সম্পাদকীয়    Adviser List

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]